চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ১০ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙে দেয়া হচ্ছে

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
মে ১০, ২০২২ ১২:০৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সাড়ে পাঁচ বছরেও কেন্দ্রীয় কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে পারেনি বিএনপির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গসংগঠন জাতীয়তাবাদী যুবদল। ফলে সরকারবিরোধী আন্দোলনের আগ মুহূর্তে দলকে পুনর্গঠনের ধারাবাহিকতায় যুবদলের বর্তমান মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে ভেঙে নতুন কমিটি ঘোষণার কাজ শুরু করেছে বিএনপি। সেই লক্ষ্যেই আজ মঙ্গলবার যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের সাথে কথা বলবেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। বৈঠকে যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ সুপার ফাইভ এবং সহ-সভাপতি, যুগ্ম সম্পাদকসহ ৫১ জন নেতাকে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। বেলা ৩টায় নয়াপল্টন কার্যালয়ে এ বৈঠক হবে। কমিটির বিষয়ে যুবদল নেতাদের কাছ থেকে ভার্চুয়ালি ওয়ান টু ওয়ান মতামত নেবেন তারেক রহমান। এ বৈঠক থেকেই নতুন কমিটির বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে একাধিক সূত্রের দাবি। যুবদলের কয়েকজন সহসভাপতি জানান, আজ মঙ্গলবার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান তাদেরকে ডেকেছেন। স্কাইপের মাধ্যমে তিনি কথা বলবেন।

উল্লেখ্য, ছাত্রদলের পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট নতুন আংশিক কমিটি গঠনের সময়ও সদ্য বিলুপ্ত কমিটির (সুপার ফাইভ বাদে ৬০ সদস্যের বাকিদের) প্রত্যেকের ওয়ান টু ওয়ান মতামত নেন তারেক রহমান। প্রত্যেকে তাদের মতামত প্রদান করে নতুন কমিটি গঠনের ব্যাপারে সর্বময় ক্ষমতা সাংগঠনিক অভিভাবকের ওপর অর্পণ করেন। পরে ছাত্রদলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সুপার ফাইভের সাথে বৈঠকে বসে হাইকমান্ড। তখন সুপার ফাইভের নেতারাও সাংগঠনিক অভিভাবকের ওপর নতুন কমিটির ব্যাপারে সর্বময় ক্ষমতা অর্পণ করেন। যুবদলের নতুন কমিটি গঠনের ক্ষেত্রেও একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করবে বিএনপির হাইকমান্ড।

২০১৭ সালের ১৬ জানুয়ারি রাতে সংগঠনের কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও মহানগর দক্ষিণের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। কেন্দ্রীয় পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটির নেতারা হলেনÑ সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোর্ত্তাজুল করিম বাদরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নয়ন এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান। মেয়াদ শেষের প্রায় তিন বছর পর ২০২০ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি যুবদলের কেন্দ্রীয় ১১৪ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করেন দায়িত্বশীল নেতারা। এ আংশিক কমিটি দিয়েই চলছে যুবদল। অবশ্য ২০২১ সালের ২১ আগস্ট ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ যুবদলের কমিটি ভেঙে নতুন আহ্বায়ক কমিটি দেয়া হয়েছে। এবার কেন্দ্রীয় কমিটিকে ভেঙে নতুন কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চলতি বছরের ৪ এপ্রিল ৩৫১ সদস্যবিশিষ্ট একটি খসড়া কমিটি তারেক রহমানে কাছে পাঠায় যুবদল। তবে তারেক রহমান যুবদলের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে আগ্রহী নন। তিনি বরং বর্তমান কমিটি ভেঙে নতুন কমিটি দেয়ার পক্ষে বেশি আগ্রহী। তবে যুবদলের বর্তমান ও পদবঞ্চিত অসংখ্য নেতা তারেক রহমানকে কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার দাবি জানান। তারা বুঝিয়ে বলেন যে, কমিটি পূর্ণাঙ্গ না হলে অনেক ত্যাগী নেতা বাদ পড়বেন। যারা কোনো পরিচয় দিতে পারবেন না। অন্তত এক মাসের জন্যও কমিটি পূর্ণাঙ্গ হলে অনেকেই পদ পেয়ে পরে রাজনীতি ভালোভাবে করতে পারবেন। দলের চলমান সঙ্কটময় মুহূর্তে সবাইকে সাথে নিয়ে কাজ করাটা খুবই জরুরি। তাহলে আমরা আমাদের লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে পারব। অবশ্য কমিটির বিভিন্ন অনিয়মের কারণে নাখোশ বিএনপির হাইকমান্ড।
জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরপরই তৃণমূল থেকে দলকে শক্তিশালী করার উদ্যোগ নেয় বিএনপি। শুরু হয় দলের বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন পুনর্গঠনের কার্যক্রম। সারা দেশে থানা-পৌর এমনকি ইউনিয়ন পর্যন্ত বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও মহিলা দলের কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেয়া হয়। যুবদলকে ঢেলে সাজাতে সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে ১১টি টিম গঠন করা হয় ওই সময়ে। এতে এক নেতার এক পদ নীতি অনুসরণ পূর্বক স্থানীয় সক্রিয় ও সাবেক ছাত্রনেতাদের মূল্যায়নের নির্দেশনা দেয়া হয়। কিন্তু সেই নির্দেশনা মানা হয়নি বলে অভিযোগ তৃণমূল নেতাকর্মীদের। এর মধ্যে কয়েকটি টিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা পড়েছে। অনেক টিমের বিরুদ্ধেই আর্থিক লেনদেন ও উপঢৌকন নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগে বিরক্ত ও ক্ষুব্ধ বিএনপির হাইকমান্ড মেয়াদোত্তীর্ণ যুবদলকে ভেঙে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে সংগঠনটির বেশকিছু নেতা বর্তমান আংশিক কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার পক্ষে। এজন্য তারা বিএনপির স্থায়ী কমিটিসহ গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের কাছে তদবিরও করছেন। এর মধ্য দিয়ে মূলত তারা বর্তমান নেতৃত্বে থাকতে চান।

যুবদলের শীর্ষ পদপ্রত্যাশী যারা: যুবদলের সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক হতে আলোচনায় আছেন সংগঠনের সেক্রেটারি সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, মোর্ত্তাজুল করিম বাদরু, সহ-সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন, জাকির হোসেন সিদ্দিকী, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক নূরুল ইসলাম নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান, দফতর সম্পাদক কামরুজ্জামান দুলাল, সহ-সাধারণ সম্পাদক কামাল আনোয়ার আহম্মেদ, ছাত্রদলের সাবেক সেক্রেটারি আমিরুল ইসলাম খান আলিম, হাবিবুর রশিদ হাবিব, আকরামুল হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকার, সদ্য সাবেক সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন প্রমুখ। যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব গতকাল বলেন, সংগঠনকে গতিশীল করার লক্ষ্যে মাঝে-মধ্যেই বিএনপির হাইকমান্ডের সাথে বৈঠক হয়। কমিটি গঠন-পুনর্গঠন একটি চলমান প্রক্রিয়া। দলের হাইকমান্ড যেকোনো সময় যেকোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। সংগঠনের স্বার্থে দলের হাইকমান্ড যে সিদ্ধান্তই নেবেন সেটার প্রতি আমাদের পূর্ণ সমর্থন থাকবে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।