চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ২৩ নভেম্বর ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মেহেরপুরে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে সচেতনতামূলক র‌্যালী ও পথসভা

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ২৩, ২০১৬ ৭:০০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

meherpur pic-1মেহেরপুর অফিস: বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে “মেহেরপুরের ঘোষণা, বাল্যবিবাহ আর না”এ স্লোগানে মেহেরপুরে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা, পথযাত্রা ও পথসভা করেছে মেহেরপুর জেলা প্রশাসন। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জেলা প্রশাসনের সামনের সড়ক থেকে জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহের নেতৃত্বে পথযাত্রার সূচনা করা হয়। পথযাত্রা ও মোটরসাইকেল শোভযাত্রায় অন্যান্যের মধ্যে অংশ গ্রহন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রশিদুল মান্নাফ কবীর, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) শেখ ফরিদ আহম্মেদ, মেহেরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি রশিদ হাসান খান আলোসহ জেলার সরকারী-বেসরকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারী এবং বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ অংশ গ্রহন করেন। পথযাত্রা ও মোটরসাইকেল শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মেহেরপুর পৌরসভা, গাংনী উপজেলার কাথুলি, তেঁতুলবাড়িয়া, কাজীপুর, বামন্দী, ধানখোলা ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে সংক্ষিপ্ত পথ সভা করেন।  পরে বিকাল সাড়ে তিনটার সময় গাংনী পৌরসভার সহযোগীতায় বাসস্ট্যান্ড শহীদ রেজাউল চত্ত্বরে সংক্ষিপ্ত পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। গাংনী পৌরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পথ সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ, গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ উজ জামান, পলাশীপাড়া সমাজ কল্যাণ সমিতির নির্বাহী পরিচালক মোশাররফ হোসেন। এসময় সরকারী অফিসের বিভিন্ন কর্মকর্তা ও স্থানীয় পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। মেহেরপুর জেলার দুটি পৌরসভা ও আঠারটি ইউনিয়নে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। উল্লেখ্য, গত ২০১৫ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারী সরকারীভাবে মেহেরপুর জেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত জেলা হিসেবে ঘোষনা করা হয়। তারই অংশ হিসেবে গতকাল বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে পথ সভার ও মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। এদিকে বাল্যবিয়ে বন্ধে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে গাংনী পৌর সভার উদ্যোগে গাংনী বাজার বাসস্ট্যান্ডে দিনব্যাপি জারি, কবি গান ও সাংস্কৃতি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।