মেহেরপুরে করোনা মুক্ত হওয়ায় দুজনকে ফুলেল শুভেচ্ছা

144

মেহেরপুর অফিস:
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মেহেরপুর শহরের বোস পাড়ার মদন কর্মকার ও শহরের তাঁতী পাড়ার পুষ্প রানী সাহা করোনাভাইরাস মুক্ত হওয়ায় তাঁদের দুজনকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে অবমুক্ত করাসহ এলাকার লকডাউন খুলে দেওয়া হয়েছে। গতকাল শনিবার স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে লকডাউন খুলে দেওয়াসহ মদন কর্মকারকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। মদন কর্মকার শহরের বোস পাড়ার মনমোহনের ছেলে। প্রায় ৩ সপ্তাহ পূর্বে মদন কর্মকারের করোনাভাইরাস পজিটিভ রিপোর্ট আসলে স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় তাঁকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখাসহ এলাকায় প্রায় ১০টি বাড়িতে লকডাউন করে দেওয়া হয়।
এদিকে হোমকোরেন্টাইনে থাকা মদন কর্মকারকে ৩ সপ্তাহ পর দুটি পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ আসায় গতকাল শনিবার দুপুরে মেহেরপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অলোক কুমার দাস তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে অবমুক্ত করেন। একই সঙ্গে এলাকার ১০টি বাড়ি লকডাউন তুলে নেওয়া হয়। এ সময় মেহেরপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাইনউদ্দিন, মেহেরপুর সদর থানার ওসি শাহ দারা খানসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
অপর দিকে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মেহেরপুর শহরের তাঁতী পাড়ার পুষ্প রানী সাহা করোনাভাইরাস মুক্ত হওয়ায় তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে অবমুক্ত করাসহ এলাকার লকডাউন খুলে দেওয়া হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরের দিকে স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে লকডাউন খুলে দেওয়াসহ পুষ্প রানী সাহাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। গত ২৬ মে করোনা উপসর্গ নিয়ে পুষ্প রানী সাহা ঢাকা থেকে মেহেরপুর আসার পর পরদিন করোনাভাইরাস পজিটিভ রিপোর্ট আসলে স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় তাঁকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখাসহ এলাকার প্রায় ১০টি বাড়িতে লকডাউন করে দেওয়া হয়েছিল। হোমকোরেন্টাইনে থাকা পুষ্প রানী সাহাকে ৩ সপ্তাহ পর দুটি পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ আসায় গতকাল শনিবার দুপুরে মেহেরপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অলোক কুমার দাস তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে অবমুক্ত করেন। একই সাথে এলাকার ১০টি বাড়ি লকডাউন তুলে নেওয়া হয়। এ সময় মেহেরপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাইনউদ্দিন, মেহেরপুর সদর থানার ওসি শাহ দারা খানসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।