চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ৬ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মৃত সন্তান পেটে নিয়ে তিন মাস ধরে ঘুরছেন অসহায় সালমা

হাসপাতালেও নার্সের অমানবিক আচরণ
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুলাই ৬, ২০২২ ৭:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

সমীকরণ প্রতিবেদক: মেহেরপুর শহরের ওষুধ দোকানির খপ্পরে পড়ে গত তিন মাস ধরে মৃত সন্তান পেটে নিয়ে ঘুরছেন সালমা খাতুন নামে এক নারী। অবশেষে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়ে নার্স সাবিনা ইয়াসমিনের রোষানলে পড়ে চিকিৎসা না পেয়ে হাসপাতালেরে বেডে কাতরাচ্ছেন। সালমা খাতুন মেহেরপুর সদর উপজেলার শ্যামপুর গ্রামের হাসিবুলের স্ত্রী।

সালমা খাতুনের ভাই রাসেদুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, গত তিন মাসে আগে মেহেরপুর সনোল্যাবে আল্ট্রাসনো করলে ডাক্তার জে পি আগরওয়ালা বলে গর্ভের সন্তান মারা গেছে। ডিএনসিসি করে বাচ্চা পেটে থেকে বের করে ফেলতে হবে বলে প্রাথমিক ওষুধ লিখে দেন। তখন মেহেরপুর কাথুলি বাসস্ট্যান্ডের কাছে ওষুধ কিনতে যান। এসময় ওষুধের দোকানদার  মহিবুল বলে ডাক্তারের রিপোর্ট ভুল আপনার সন্তান জীবিত আছে। আমার ওষুধ খেলে পেটের সন্তান জীবিত থাকবে। এরপর থেকে সালমা খাতুনের পেটে যখন ব্যথা ওঠে, তখন দোকানদার মহিবুল তাকে ওষুধ দেয়। এভাবে তিন মাস ধরে প্রায় ৪০ হাজার টাকার ওষুধ খেয়েছেন সালমা খাতুন। গত রোববার বিকেলে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়লে মেহেরপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে জরুরি বিভাগে সালমাকে আনা হয়। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি করে নেন। কিন্তু মহিলা ওয়ার্ডের কর্ত্যবরত নার্স সাবিনা ইয়াসমিন ভর্তি নিতে অস্বীকৃতি জানান।

Girl in a jacket

এসময় সালমা খাতুনের মাকে হাসপাতাল গেটে কাঁদতে দেখে স্থানীয় কয়েকজন যুবক বিষয়টা শুনে মহিলা ওয়ার্ডে সালমাকে ভর্তির জন্য নিয়ে যায়। কর্ত্যবরত নার্স সাবিনা ইয়াসমিন তাদের সাথেও রুঢ় আচরণ করে ভর্তি করা যাবে না বলে জানান। পরে ওই যুবকরা বিষয়টি হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক জমির মোহাম্মদ হাসিবুস সাত্তারকে ফোনে অভিযোগ দিলে নার্স সাবিনা ইয়াসমিন তাকে ভর্তি করে নেন। কিন্তু ভর্তির পর থেকে সালমাকে কোনো চিকিৎসা না দিয়ে হাসপাতালের বেডে ফেলে রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের আরএমও বলেন, কোনো রোগীকে ভর্তি না নেওয়ার ক্ষমতা কোনো নার্সের নেই। যদি এমন কোনো ঘটনা ঘটে থাকে, তাহলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।