মুজিবনগরে বিচালী ব্যবসায়ীকে আটকের অভিযোগ

281

মুজিবনগর অফিস: মুজিবনগর উপজেলার পুরন্দরপুর গ্রাম থেকে আফজেল আলী নামে এক বিচালী ব্যবসায়ীকে বিজিবি ধরে নিয়ে এসেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বুধবার রাত আনুমানিক দেড়টার দিকে তার নিজ বাসায় থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় ধরে নিয়ে আসে বলে আফজেলের পরিবারের সদস্যরা জানায়। আফজেলের স্ত্রী এ বিষয়ে বিজিবির বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, বুধবার রাত দেড়টার দিকে আমার রুমের দরজায় ধাক্কা মারে মুজিবনগর উপজেলার দারিয়াপুর ক্যাম্পের একদল বিজিবি। আমি তার পরিচয় জানতে চাইলে তারা জানায় আমরা কুষ্টিয়া থেকে এসেছি দরজা খোলেন। আমি ভাবলাম আমার কোন আত্মীয় হয়তোবা এসেছে। সেই ভেবে আমি দরজা খুলতেই তারা ঘরে ঢুকে আমার স্বামীকে তাদের হাতে থাকা লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর শুরু করে। পরে আমি চিৎকার করে উঠে আমার ছেলেকে ডাক দিলে তাকেও মারতে থাকে। এছাড়াও আমার ভাসুরের স্ত্রী গেলে তাকেও মারতে থাকে, এদিকে একজনের হাতে একটি ব্যাগ দেখে আমি সেই ব্যাগ নিয়ে কাড়াকাড়ি শুরু করে দিয়ে। আর সে অবস্থায় আমার পিছন থেকে আরেকজন তাড়িয়ে এসে আমাকে মারতে থাকে। আমার গায়েও হাত দিতে তারা বাদ দেয়নি। কি জন্য আমার স্বামীকে ধরে নিয়ে যাচ্ছে, আমার সন্তান, স্বামীকে কেন মারধর করছে সে বিষয় আমি জানতে চাইলে তারা জানায় থানায় গেলেই সব বুঝতে পারবে। এই বলে আমার স্বামীকে নিয়ে তারা ক্যাম্পে চলে যায়।
দারিয়াপুর ইউনিয়নের গৌপিনাথপুর, পুরন্দরপুর ৮নং ওয়ার্ডের তারা মেম্বার জানান, দিবাগত রাতে যখন বিজিবি আফজেল আলীকে তুলে নিয়ে যেতে আসে তখন তার স্ত্রী আমার কাছে আসে। আমি অসুস্থ্য থাকায় সেখানে যেতে পারিনি। তাই রাতে কিভাবে কি ঘটেছে সে সম্পর্কে আমি কিছুই বলতে পারবো না। সকালে শুনলাম তাকে নাকি ঘুমন্ত অবস্থায় তার ঘর থেকে তুলে নিয়ে গেছে। তবে সে গত দুই থেকে তিন বছর আগে ইন্ডিয়ান গরুর ব্যবসা করতো, কিন্তু এখন ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সে বিচালীর ব্যবসা করছে।
ঘটনার বিষয়ে দারিয়াপুর ক্যাম্পের সরকারী নাম্বারে ফোন দিলে ক্যাম্প কমান্ডার, নায়েক সুপিদার কৃষ্ণপদ ভূমি জানান, এ বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। ঘটনার বিষয়ে জানতে হলে চুয়াডাঙ্গা কোম্পানি কমান্ডার সিও স্যারের কাছে ফোন দেন।