মুক্তিযোদ্ধাসহ চার ব্যক্তি প্রতারণার শিকার

37

ঝিনাইদহ অফিস:
ঝিনাইদহে মুক্তিযোদ্ধাসহ ৪ ব্যক্তি এক আদম ব্যবসায়ীর প্রতারণার শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা মো. রবিউল আলমসহ প্রতারণার শিকার ওই ৪ জন ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সস্মেলনে এই অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভুক্তভোগী ঝিনাইদহ সদর উপজেলার দরিগোবিন্দপুর গ্রামের মৃত মুন্সি আফজাল হোসেনের ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা রবিউল আলম। এ সময় আরও তিন ভুক্তভোগী সদর উপজেলার মান্দারবাড়িয়া গ্রামের মৃত ওহাব জোয়ার্দ্দারের ছেলে শামীম জোয়ার্দ্দার, কালীগঞ্জ উপজেলার পারশ্রীরামপুর গ্রামের মৃত ছনু মন্ডলের ছেলে আমজাদ হোসেন, একই উপজেলার একই গ্রামের মৃত মোশারফ হোসেন মন্ডলের ছেলে আমিরুল ইসলামসহ তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য তারা ৪ জন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ভগবাননগর পূর্বপাড়া গ্রামের খায়বার আলী বাটুল ও তার পরিবারের সদস্যদের কাছে গত ইং ০৯/০৪/২০১৫ তারিখে ১২ লাখ ২০ হাজার তুলে দেন। টাকা দেওয়ার পর থেকে বিদেশে না পাঠিয়ে বিভিন্ন তালবাহানা শুরু করে। এই অবস্থায় প্রতারক বাটুল ভুক্তভোগীদের নামে ১০/০১/২০১৬ তারিখে একটি ভূয়া ভিসা বাটুলের পুত্র খায়রুলের মাধ্যমে তাদের হাতে পৌছাইয়া দেয়। এরপর তারা ঢাকা জনশক্তির অফিসে যোগাযোগ করিলে ভিসাগুলি জাল বলিয়া প্রমাণিত হয়। এরপর তারা গত ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখে টাকা চাইতে প্রতারক বাটুলের বাড়িতে গেলে খায়বার আলী বাটুলের সাথে তাদের তর্কবির্তকের সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে পরিবারের সদস্যরা জোটবন্ধ হয়ে তাদের মারপিট করে। এ ঘটনায় আদম ব্যবসায়ী বাটুল তার স্ত্রী ও ভাইসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে তারা ঝিনাইদহ সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করে। এরপর থেকে প্রতারক বাটুল অজ্ঞাত স্থান থেকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য তাদের প্রাণণাশের হুমকি অব্যাহত রেখেছেন।
ভুক্তভোগীরা আরও অভিযোগ করে বলেন, শুধু তাদের কাছ থেকে নয়, প্রতারক আদম ব্যবসায়ী বাটুল তাদেরসহ অন্তত ২০ জনের নিকট খেকে প্রতারণার মাধ্যমে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এব্যাপারে আদম ব্যবসায়ী খায়বার আলী বাটুলের সাথে ০১৯১৩৭২৮৯৮০ নাম্বারে যোগাযোগ করলে টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে তিনি নিজেকে দেলোয়ার হোসেন রনি পরিচয় দেন এবং ময়মনসিংহের ভালুকায় আছি বলে ফোন কেটে দেন।