মিথ্যা দাবি করে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

328

আলমডাঙ্গার সাদ্দামের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অস্ত্র মামলাটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: আলমডাঙ্গার দূর্লভপুর গ্রামের সাদ্দামের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অস্ত্র মামলাটি মিথ্যা দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করেছে তার পরিবার। এ সময় ওই মিথ্যা অস্ত্র মামলা থেকে সাদ্দামকে মুক্তির দাবি জানান তারা। গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান সাদ্দামের মা ফজিলা বেগম।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ফজিলা বেগম বলেন, আমার ছেলে সাদ্দাম জাতীয়তাবাদী রাজনীতির সাথে জড়িত। সে চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রদলের সদস্য। আগামী ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দেওয়ায় বিরোধী রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ পথের কাটা পরিষ্কার করতে মিথ্যা অস্ত্র মামলায় পুলিশের কাছে তাকে ধরিয়ে দিয়েছে। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন সাজানো নাটক বলে তিনি দাবী করেন। তিনি আরো বলেন, সাদ্দাম ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকার কারনে তার বিরুদ্ধে কিছু রাজনৈতিক মামলা আছে, যেগুলো উদ্যেশ্য প্রনোদিত। ঘটনার দিন ১১ অক্টোবর বুধবার রাত ১টার পর আলমডাঙ্গা থানার এসআই টিপু সুলতানসহ অন্যান্য অফিসার আমার বাড়ি থেকে ঘুমন্ত সাদ্দামকে ডেকে তোলে। এসময় আমার ঘরের সম্মুখে কারো রেখে যাওয়া জংধরা মর্চেপড়া ওয়ান শাটার গান উদ্ধার করে। পরদিন তাকে অস্ত্র মামলাসহ আদালতে প্রেরণ করে। বর্তমানে কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করা  আমার ছেলেকে শত্রুপক্ষীয় লোক দ্বারা প্রভাবিত হয়ে এ ধরনের হয়রানীমূলক মিথ্যা মামলায় জাড়িয়ে তার জীবনটা ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। এতে তার ভবিষ্যৎ জীবন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে।
এসময় তিনি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে সাদ্দামের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলা থেকে মুক্তির দাবি জানিয়ে আরো বলেন, সাদ্দামের  পিতা মজিদকে ২০০১ সালের ২৪ শে আগস্ট নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ও চাচা বীর মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার হোসেনকে ১৯৯৪ সালের ২৮শে জুন প্রকাশ্যে দিবালকে পূর্ব বাংলার কমিউনিষ্ট পার্টির লোকেরা নির্মমভাবে হত্যা করে। কিন্তু আজ সাদ্দামের এজাহারে সেই পূর্ব বাংলা কমিউনিষ্ট পার্টির সক্রিয় আঞ্চলিক নেতা বলা হয়েছে। যা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়াতেও প্রকাশ করা হয়েছে। যা অত্যান্ত দুঃখজনক। এ ঘটনা আদৌ সত্য নয় বলে তিনি দাবী করেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সাদ্দামের স্ত্রী আছমা খাতুন, বোড় বোন শারমিন আক্তার লিপি, চাচা ওহিমদ্দিন, বোনাই রফিকুল ইসলামসহ ইলেকট্রনিক প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।
উল্লেখ্য, গত ১১ অক্টোবর মঙ্গলবার রাতে নিজ বাড়ি থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, এক রাউন্ড তাজা গুলি ও চাপাতিসহ সাদ্দামকে আটক করে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশ।