মাদকের ব্যাপারে কোনো ছাড় দেওয়া যাবে না

21

চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় ডিসি নজরুল ইসলাম
নিজস্ব প্রতিবেদক:
করোনাকালীন পরিস্থিতির কারণে চুয়াডাঙ্গায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার করে জুন মাসের আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ১০টায় জুম ক্লাউড অ্যাপে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। সভার শুরুতেই কার্যবিরণী ও আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক জেলার সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরেন চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সাজিয়া আফরিন। জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষ থেকে কমিটির কয়েকজন সদস্য এবং জুম অ্যাপে কয়েকজন সদস্য যুক্ত থেকে এ সভার কার্যক্রমে অংশ নেন।
সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, ‘চুয়াডাঙ্গায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ সংক্রমণ প্রতিরোধে আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে। কয়েকদিন বন্ধ থাকার পর আবারো দেশে ফিরছেন ভারতে আটকে পড়া বাংলাদেশীরা। এজন্য জেলার সব কয়টি কোয়ারেন্টিন সেন্টার পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করে প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়া দামুড়হুা উপজেলা সীমান্তবর্তী এলাকায় করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ওই এলাকার সকল পশুহাট বন্ধ রাখার নির্দেশনা আগেই দেওয়া হয়েছে। একইসাথে সীমান্তে বিজিবি টহল জোরদারসহ সংক্রমিত এলাকায় করোনা ঝুঁকি মোকাবিলায় যাতায়াত নিয়ন্ত্রণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’


এসময় জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার মাদক প্রতিরোধের বিষয়ে বলেন, সময় যেটিই হোক, মাদকের ব্যাপারে কোনো ছাড় দেওয়া যাবে না। মাদকবিরোধী অভিযান বাড়াতে হবে। এসময় তিনি আরও বলেন, করোনভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সংকটময় পরিস্থিতিতেও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো। প্রশাসন এবং সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তর দিন-রাত মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে। করোনাকালীন পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার একটি নিয়ম বা গাইডলাইন করে দিয়েছে। একজন সুনাগরিকের দায়িত্ব সেটি মেনে নেওয়া।
সভায় জুম অ্যাপে যুক্ত থেকে অংশগ্রহণ করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হেড কোয়ার্টার) কনক কুমার দাস, চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকন, আলমডাঙ্গা পৌর মেয়র হাসান কাদির গণু, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান, আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মণ্ডল, দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দিলারা রহমান, জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মুনিম লিংকনসহ জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিগণ।