মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাথে কথা বলবে বিএনপির মনোনয়ন বোর্ড

565

চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার আজ
নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শুরু হয়েছে। আজ সোমবার সাক্ষাৎকারের দ্বিতীয় দিনে সকাল ৯টা থেকে বরিশাল বিভাগ এবং চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর জেলার মনোনয়ন প্রত্যাশীরাসহ আড়াইটা থেকে খুলনা বিভাগের সকল জেলার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শুরু হবে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে। সাক্ষাৎকারে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের খুটিনাটি অনেক প্রশ্নের উত্তর দিতে হতে পারে বলে জানা যায়।
চুয়াডাঙ্গা-১ ও ২ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা আজ সাক্ষাৎকারে অংশ নেওয়ার জন্য ইতোমধ্যে ঢাকায় পৌছেছেন। চুয়াডাঙ্গা-১ আসন থেকে কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অহিদুল ইসলাম বিশ্বাস, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য, সাবেক ছাত্রনেতা শরীফুজ্জামান শরীফ উল্লেখযোগ্য প্রার্থী হিসেবে বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডের সাক্ষাৎকারে অংশ নিবেন। তবে চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য লে. কর্ণেল (অব:) সৈয়দ কামরুজ্জামান, সর্দার আলী হোসেন প্রমূখ অংশ নিবেন বলে জানা গেছে। এছাড়া চুয়াডাঙ্গা-২ আসন থেকে মনোনয়ন বোর্ডে কেন্দ্রীয় বিএনপির উপ-কোষাধ্যক্ষ ও জেলা বিএনপির ১নং যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদ হাসান খান বাবু উল্লেখযোগ্য প্রার্থী হিসেবে সাক্ষাৎকারে অংশ নিবেন। তাছাড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোখলেচুর রহমান টিপু তরফদার মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে সাক্ষাৎকারে অংশ নেবেন।
এদিকে, মেহেরপুর দুটি আসন থেকে মেহেরপুর জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মাসুদ অরুণ, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি জাভেদ মাসুদ মিল্টনসহ আরো অনেকে আজকে মনোনয়ন বোর্ডের সাক্ষাতকারে অংশ নেবে।
বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডে রয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরুদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।
এদিকে ঝামেলা এবং সবধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের জন্য বেশ কয়েকটি নির্দেশনা রয়েছে বিএনপির। দলটির পক্ষ থেকে পরিষ্কার করে বলা হয়েছে, যারা মনোনয়ন ফরম পূরণ করে দলের প্রধান কার্যালয়ে জমা দিয়েছেন, তাদের-ই কেবল সাক্ষাতকার নেয়া হবে। সাক্ষাতকারের সময় মনোনয়ন প্রত্যাশীকে আবেদন ফরম জমাদানের রশিদ সঙ্গে আনতে হবে। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা তাদের সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে আসতে পারবেন না। সমর্থকদের সঙ্গে করে আনলে, তা অসদাচরণ বলে গণ্য হবে। গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয় এবং আশপাশে মনোনয়ন প্রত্যাশী ও আমন্ত্রিতরা ছাড়া অন্য কেউ থাকতে পারবেন না। তবে সংশ্লিষ্ট মহানগর ও জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকগণ সাক্ষাতের সময় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সঙ্গে থাকতে পারবেন। সংশ্লিষ্ট বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদকগণও উপস্থিত থাকতে পারবেন।