চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ৩ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মধ্যবিত্ত ও নিম্ন-বিত্তদের হাহাকার!

ব্যবসায়ীদের সুযোগসন্ধানী আচরণ : লাগামহীন নিত্যপণ্য, প্রশাসনের দুর্বল তদারকি
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
মার্চ ৩, ২০২২ ১০:১০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ঊর্ধ্বমুখী দ্রব্যমূল্যের সাথে সামঞ্জস্য রেখে বেতন বাড়ানোর দাবি চাকরিজীবীদের


সমীকরণ প্রতিবেদন:
চালের উৎপাদন, বিপণন, মজুত ও আমদানি-সবকিছুতেই এবার রেকর্ড হয়েছে। অথচ নিত্যপণ্যের বাজারে চাল, ডাল, ভোজ্য তেল, মাছ-মাংস, আটা-ময়দা, সবজিসহ সব ধরনের খাদ্যের দাম ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। বাজারে কর্তৃপক্ষের কোনো নিয়ন্ত্রণ বা নজরদারি নেই। মোটা চাল ৫০ টাকার উপরে, সরু চাল ৭০ টাকা, বোতলজাত সয়াবিন তেল এক লিটার ১৮৫ টাকা, চিনি ৮৫ টাকা মসুর ডাল ১২০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি ১৬০ টাকা, গরুর মাংস ৬৫০ টাকা ও মৌসুমি সবজির দাম বেড়েছে গড়ে দ্বিগুণ। কোনো পণ্যের দাম স্থির নেই। এ অবস্থায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতিতে সবচেয়ে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সাধারণ ভোক্তারা। ক্রয়ক্ষমতা হারাচ্ছেন তারা। আয়ের তুলনায় ব্যয়ের পরিমাণ বাড়াতে পরিবারগুলোতে তৈরি হয়েছে বাজার ভীতি। টিসিবি’র লাইনও অনেক দীর্ঘ। বাজার দর নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছে সরকার এমনটাই মনে করছে সাধারণ মানুষ। নিত্যপণ্যের দামের এমন ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার জন্য করোনায় উৎপাদন কমে যাওয়া, বিশ্ববাজারে অস্থিরতা, অতিরিক্ত আমদানি নির্ভরতা ও সুযোগসন্ধানী ব্যবসায়ীদের কারসাজিকে দায়ী করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। আবার কেউ কেউ অভ্যন্তরীণ বাজারের সুশাসনের অভাবকেও দায়ী করছেন। এ ছাড়া ইউক্রেন ও রাশিয়ার বর্তমান সংকট বাংলাদেশের বাজারেও প্রভাব পড়বে।
সূত্রমতে, চলতি অর্থবছর সাড়ে ৩ কোটি টন চাহিদার বিপরীতে সরবরাহের লাইনে আছে ৪ কোটি ৬৮ লাখ টন চাল। অর্থাৎ উদ্বৃত্ত থাকবে ১ কোটি ১৮ লাখ টন। আগে কখনোই এত বেশি চাল উদ্বৃত্ত হয়নি। বিভিন্ন সূত্র বলছে, আগে শুধু মিলারদের কাছে ধান মজুত থাকতো। এবার শুধু মিলার নয়, মৌসুমি ধান ব্যবসায়ী, বড় বড় অনেক কোম্পানি, এমনকি অনলাইন ব্যবসায়ীরাও ধান/চাল ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। আবার মজুতও করছে। সংশ্লিষ্টদের প্রশ্ন, উদ্বৃত্ত থাকা সত্ত্বেও চালের দাম ক্রমাগত বাড়ছে কেন? এ ছাড়া প্রতি বছর ভরা মৌসুমে চালের দাম কমলেও এবার কমেনি বরং বেড়েছে। অর্থাৎ বোঝা যাচ্ছে, বাজারে কারসাজি চলছে, যা সিন্ডিকেটের নিয়ন্ত্রণে। বিশেষজ্ঞদের মতে, কারসাজি শুধু চালের বাজারে নয়, রোজায় যেসব পণ্যের চাহিদা বেশি থাকে, রমজান সামনে রেখে সেসব খাদ্যপণ্যও চলে গেছে সিন্ডিকেটের কবজায়। বাজারে সব পণ্যেই এখন ঊর্ধ্বমুখী। করোনা মহামারির কারণে সাধারণ মানুষ এমনিতেই কষ্টে আছে। খাদ্যপণ্যের ক্রমাগত দামবৃদ্ধি তাদের কষ্ট আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। তাই খাদ্যপণ্যের কারসাজি রোধে সরকারকে কঠোর হতে হবে। আর রমজানকে সামনে রেখে তদারকি ব্যবস্থা আরও জোরদার করতে হবে।
রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা টিসিবি’র হিসাবে গত এক সপ্তাহে চাল, ময়দা, ভোজ্য তেল, আমদানিকৃত পিয়াজে দাম বেড়েছে। এসব পণ্য বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। এর মধ্যে মোটা চাল ৩.২৩ শতাংশ, মাঝারি চাল ১.৮৯ শতাংশ, সরু ৩.১৩ শতাংশ বেড়েছে এক সপ্তাহে। এ ছাড়া খোলা ও প্যাকেটজাত ময়দার কেজিতে ২ টাকা, লুজ সয়াবিন লিটারে ৫ টাকা, লুজ সয়াবিনের লিটারে ১০ টাকা বেড়েছে। বেড়েছে আলু, জিরা, লবঙ্গ ও মুরগির দামও।
দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন বলেন, দাম কমাতে সরকারকে ভর্তুকি দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। টিসিবিকে আরও সক্রিয় করতে হবে। আর টিসিবি’র মাধ্যমে একটি কার্ড পদ্ধতি করা যেতে পারে। একটি বিশেষ শ্রেণি এই কার্ডের মাধ্যমে সপ্তাহে বা মাসে টিসিবি থেকে বাজার করবে। এর পাশাপাশি দেশে যেসব বড় ব্যবসায়ী সিস্টেমের বাইরে কাজ করেন তাদের নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করতে হবে। দোকান মালিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি মাহমুদ বলেন, প্রথমত- সরকারকে বিভিন্ন পণ্যের ওপর ভ্যাট হার কমাতে হবে। এ ছাড়া যারা আমদানি করে তাদের থেকে পণ্য ডিলার, এরপর পাইকার, এরপর খুচরা বিক্রেতা পর্যন্ত পৌঁছে কয়েক হাত যেতেই দাম বেড়ে যাচ্ছে। এসব ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ভ্যাট আদায় করা হচ্ছে। একই পণ্যে কয়েকবার ভ্যাট আদায় হচ্ছে। এতেও পণ্যের দাম বেড়ে যাচ্ছে বলে তিনি মনে করেন।
কনজুমার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, সবকিছুর দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। ব্যবসায়ীদের সুযোগসন্ধানী আচরণ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে যখন দাম বাড়ে তখন সঙ্গে সঙ্গে দেশের অভ্যন্তরে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়া হয়। যখন দাম কমে, তখন পণ্যের দাম কমার প্রবণতা দেখা যায় না। তিনি বলেন, আয় বৈষম্য বেশ বেড়েছে। বর্তমানে উন্নয়নের মহাসড়কে আছি। কিন্তু উন্নয়নের মহাসড়কে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত যদি পিষ্ট হয়ে যায় তাহলে সেই উন্নয়ন আমাদেরকে পিষ্ট করবে। এজন্য সরকারকে বাজার মনিটরিং জোরদার করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই।
সম্প্রতি বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির জন্য আওয়ামী লীগের সিন্ডিকেট দায়ী। আওয়ামী লীগ সিন্ডিকেট ইচ্ছা করে জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়েছে। দেশের মানুষ দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে দুর্ভোগে পড়েছে। তবে এ ব্যাপারে সরকারের কোনো ভাবাবেগ নেই।
সরেজমিন দেখা গেছে, টিসিবি’র ন্যায্যমূল্যের ভোগ্যপণ্যের জন্য ট্রাকের সামনে দীর্ঘ লাইন পড়েছে। লাইনে এখন মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন-বিত্তদের একসঙ্গে দেখা যাচ্ছে। যে কারণে টিসিবি’র ট্রাকের সামনে অসংখ্য মানুষের ভিড় প্রতিদিনই বাড়ছে। এরই মধ্যে শুরু হয়েছে ইউক্রেন ও রাশিয়ার যুদ্ধ। এই যুদ্ধ ভোগ্যপণ্যের বিশ্ববাজারে আঘাত আসবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।
একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরত আব্দুল রশিদ নামে এক শিক্ষক বলেন, ২২ হাজার টাকা বেতনে আগে পরিবারে সব ধরনের খরচ ও মাস শেষে কিছু টাকা সঞ্চয় করা যেতো। কিন্তু এখন পরিবারের চাহিদা পূরণ করতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে। যদি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য এভাবে বাড়তে থাকে মানুষের জীবনে এর নেতিবাচক প্রভাব আরও গভীর হবে। জাকারিয়া নামে এক ব্যাংক কর্মকর্তা বলেন, নিয়মিত ব্যয় বাড়লেও আয় আগের পরিমাণই আছে।
বাজারে দেখা গেছে, বছরের শুরুতে বড় দানার মসুর ডাল ছিল ৮০ টাকা উপরে ওই ডাল বিক্রি হচ্ছে ১১০-১২০ টাকা কেজি। সয়াবিন তেল খোলা ১২২-১২৪ টাকা বর্তমানে ওই খোলা তেল বিক্রি হচ্ছে ১৫৫-১৬০ টাকা। বোতলজাত সয়াবিন তেল ছিল ১৩০-১৩৫ টাকা। এখন বিক্রি হচ্ছে ১৮৫ টাকায়। চিনি বিক্রি হতো ৬৫-৭০ টাকা এখন বিক্রি হচ্ছে ৮০-৮৫ টাকা। আটা (প্যাকেট-খোলা) ২৮-৩৩ টাকা বর্তমানে ৪০-৪৫ টাকা। গুঁড়া দুধ ৫০০-৬৩০ টাকা এখন ৬৯০-৭০০ টাকা। মুরগি ব্রয়লার ১১০-১২০ টাকা বর্তমানে ১৬০-১৭০ টাকা। সরু চাল ৫৮-৬৪ এখন বিক্রি হচ্ছে এখন ৬৫-৭০ টাকা। আর মোটা চাল বর্তমানে ৫০ টাকার উপরে বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে ৫০-৫৫ টাকায় পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে।
আলু, পটল, বেগুন, বরবটি, কাকরোল, কচুর গাটি, করলা, উস্তা, টমেটো বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া একটি লাউ ৮০ থেকে ৯০ টাকা। শীতকালীন সবজি শিম প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ থেকে টাকায়। আর দেশি টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকায়। আর করলা বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি। সবজি বিক্রেতা বাশার বলেন, বাজারে ক্রেতা তেমন না কমলেও চাহিদা কমেছে। যেসব ক্রেতা আগে ব্যাগভর্তি সবজি কিনতেন তারা এখন হিসেব করে কিনছেন। সরকারি বিপণন সংস্থার (টিসিবি) তথ্যও বলছে, গত এক মাসের ব্যবধানে গরুর মাংসের দাম বেড়েছে ৫.১৭ শতাংশ। রাজধানীর বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৬৫০ টাকা দরে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।