চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ১৩ অক্টোবর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভোটার তালিকার মৃত ব্যক্তি এলাকায় করছেন গনসংযোগ

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
অক্টোবর ১৩, ২০২১ ৭:১৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বগুড়ার সোনাতলা পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়ার জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি ও গণসংযোগ করে আসছেন ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুল কাশেম সেখ। জাতীয় পরিচয়পত্রও আছে তার। নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি যেন নিমিষেই শেষ হয়ে যায় তার। তিনি উপজেলা নির্বাচন অফিসে মনোনয়ন ফরম কিনতে গিয়ে জানতে পারলেন ভোটার তালিকায় তিনি ১১ বছর আগেই মৃত! এ ঘটনায় নানা আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হলেও কোনও সমাধান মেলেনি।

জানা গেছে, আগামী ২ নভেম্বর বগুড়ার সোনাতলা পৌরসভা নির্বাচন। গত ৪ অক্টোবর মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করেন উপজেলা নির্বাচন অফিস। সেখানে ফরম কিনতে যান ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও চমরগাছা গ্রামের মৃত আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সদস্য আব্দুল কাশেম শেখ। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের ডাটাবেজে তার নাম খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। পরে তার নাম খুজে পাওয়া গেল মৃতের তালিকায়। ওই তালিকায় সে ২০১১ সালে মৃত দেখানো হয়েছে। এজন্য ওই কাউন্সিলর প্রার্থী এবারের মতো নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে জানিয়েছে উপজেলা নির্বাচন অফিস।

উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে জানা গেছে, আব্দুল কাশেম সেখের এসআইডি নাম্বার দিয়ে কম্পিউটারে সার্চ দিলে নো ডাটা ফাউন্ড লেখা ওঠে। তবে মৃত্যু তালিকায় রয়েছে তার নাম। নির্বাচন অফিসের তথ্যানুযায়ী ২০১১ সালে কোন এক কারণে তার এই মৃত্যুর ঘটনা ভুল করে ঘটেছে।

আব্দুল কাশেম সেখ বলেন, বেঁচে থাকতেই আমাকে মৃত বানিয়েছে নির্বাচন অফিস। এ কারণে ইচ্ছা থাকা সত্তেও নির্বাচনে অংশ নিতে পাচ্ছি না। এখন কতদিনে জীবিত হতে পারবো সেটা নিয়েই চিন্তিত তিনি।

সোনাতলা উপজেলা নির্বাচন অফিসার আশরাফ হোসেন বলেন, যেকোন ভুলের কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে। সংশোধনের আবেদন করলে এটির সমাধান হবে। তবে এবারের মতো তিনি ভোট করতে পারবেন না। কারণ দ্রুত সময়ের মধ্যে বর্তমান হালনাগাদ তালিকায় তার নাম তোলা আর সম্ভব নয়।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।