চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ৭ জুন ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভরা মৌসুমেও বাগানে নেই লিচু!

সমীকরণ প্রতিবেদন
জুন ৭, ২০২১ ১২:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মিঠুন মাহমুদ:
জীবননগর বাজারে হঠাৎ করেই লিচুর দাম বেড়েছে। দুই দিনের ব্যবধানে লিচুর দাম দ্বিগুণ হয়েছে। ফলে আগ্রহী অনেকেই আর কিনতে পারেছেন না লিচু। ফলন বিপর্যয়ের কারণেই এ অবস্থা বলে জানিয়েছেন বাগানের মালিক ও ব্যাপারীরা। গতকাল রোববার লিচুর এলাকা খ্যাত জীবননগর উপজেলার সীমান্ত ইউনিয়নের নতুনপাড়া, গোয়ালপাড়া, সদরপাড়া, গয়েশপুর, হরিহরনগর, মেদেনীপুর ও উথলী গ্রামের বাগানগুলোতে ঘুরে দেখা গেছে, কোনো গাছেই লিচু নেই। অথচ জুনের ১০ তারিখ পর্যন্ত লিচুর ভরা মৌসুম থাকে। এ বছর লিচু বাগানের মাত্র ২৫ শতাংশ গাছে লিচুর মুকুল এসেছিল। ফলে ভরা এ মৌসুমেও লিচুহীন হয়ে পড়েছে জীবননগর।
জীবননগর আইপিএম কৃষি ক্লাবের সভাপতি ও জীবননগরের খ্যাতিমান চাষি রমজান হোসেন জানান, তাঁর বাগানে এবার সামান্য কিছু মুকুল আসার পর নতুন পাতা বের হতে শুরু করে। তাই গাছে নেই লিচু। গাছে সামান্য যা লিচু ছিল, তা ব্যাপারীরা ক্রয় করে বাজারে নিয়ে যান। এক সপ্তাহের মধ্যেই তা প্রায় ফুরিয়ে গেছে। ফলে চাহিদা অনুযায়ী যোগান নেই। এ জন্য দাম দ্বিগুণ হয়ে গেছে।
নতুনপাড়া গ্রামের চাষি আদম বয়াতি জানান, তাঁর পাঁচ বিঘা লিচু বাগান রয়েছে। মে মাসের শেষের দিকে তাঁর গাছে লিচু শেষ হয়ে গেছে। এবার তাঁর বাগানে খুবই কম পরিমাণ গাছে মুকুল এসেছিল। তাই বাগান এত তাতাড়ি লিচুশূন্য হয়ে পড়েছে। তিনি আরও জানান, এবার বাগান মালিকরা যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তেমনি ভোক্তাদেরও বেশি টাকায় লিচু কিনে খেতে হচ্ছে।
গয়েশপুর গ্রামের আরেক সফল চাষি আতিয়ার রহমান জানান, লিচুর আয় থেকে সংসার চালিয়েও দুই ছেলে মেয়েকে উচ্চশিক্ষিত করে গড়ে তুলেছেন। বর্তমানে তাঁর মালিকানায় রয়েছে বিশালাকৃতির ৬৫টি লিচু গাছ। প্রতি মৌসুমে ৩-৪ লাখ টাকার লিচু বিক্রি করেন। কিন্তু এবার লিচু না আসায় তাঁর চোখে-মুখে হতাশার ছাপ। তিনি আরও জানান, এখন তো লিচুর ভরা মৌসুম চলে। কিন্তু মৌসুমের মাঝামাঝি এসেই লিচু শেষ হয়ে যাওয়ায় দাম দ্বিগুণ হয়ে গেছে। আর দুই-এক দিন পর দ্বিগুণ না দাম তিন গুণ হবে বলে জানান তিনি।
বাজারে লিচু কিনতে আসা জীবননগর পৌর এলাকার মাসুম বলেন, ‘দুদিন আগে যে লিচুর দাম ছিল ১০০-২৫০ টাকা। সে লিচু এখন কিনতে হচ্ছে সাড়ে পাঁচশ টাকা দরে।’
জীবননগর বাজারের লিচু ব্যবসায়ী মতিয়ার রহমান বলেন, ‘এই তীব্র গরমের কারণে লিচুর চাহিদা অনেক। আগে তো আমাদের এলাকায় লিচুর চাষ হত, এবারও হয়েছে। কিন্তু আগের তুলনায় এবার অনেক কম। সে কারণে লিচু বাইরে থেকে কিনতে হচ্ছে বেশি দামে। যার ফলে বাজারে লিচুর দাম দ্বিগুন হয়ে গেছে।’
জীবননগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শারমিন আক্তার জানান, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এ বছর জানুয়ারিতে হঠাৎ করেই শীত কম পড়ে। ফলে কাক্সিক্ষত মুকুল বের হয়নি। এতে ফলন বিপর্যয় হয়েছে। তবে মোজাফ্ফর জাতের লিচুর মুকুল জানুয়ারির প্রথম দিকে আসায় এ জাতে কোনো সমস্যা হয়নি। জীবননগরে বোম্বাই লিচুর চাষই সবচেয়ে বেশি হয়। ফলে জীবননগরের চাষিরা চরম ক্ষতির মুখে পড়েছেন। সারের মাত্রার কম-বেশির কারণেও মুকুল কম আসতে পারে। তবে লিচুর চাহিদার তুলনায় বাজারে না থাকায় দামটা বেশি হয়েছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।