চুয়াডাঙ্গা শুক্রবার , ২৫ ডিসেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বড়দিনের ছুটিতে বাড়ি ফিরলেন লাশ হয়ে

সমীকরণ প্রতিবেদন
ডিসেম্বর ২৫, ২০২০ ১২:০০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ট্রেনের দরজায় মোবাইলে কথা বলতে গিয়ে নিখোঁজ যুবকের সন্ধান মিলেছে
প্রতিবেদক, কার্পাসডাঙ্গা:
গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থেকে চুয়াডাঙ্গায় আসার পথে ট্রেনের থেকে নিখোঁজ হওয়া যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাতটার দিকে জয়দেবপুর রেললাইনের পাশে থাকা কালভার্টের নিচ থেকে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। বড়দিনের ছুটিতে বাড়িতে লাশ হয়ে ফিরলেন তিনি। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা তিনটার দিকে দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা গ্রামের মিশনপাড়ায় পৌঁছায় শাওনের লাশ। দুই ভাই-বোনের মধ্যে বড় ছিল শাওন। টাঙ্গাইলের একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করতেন তিনি। গতকাল শাওনের লাশ বাড়িতে পৌঁছালে একমাত্র ছেলেকে হারানোর শোকে কান্নায় ভেঙে পড়েন পরিবারের সদস্যরা।
নিহত শাওনের চাচাত ভাই রকি জানান, ট্রেনের দরজায় দাঁড়িয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলার সময় ট্রেনের বাইরে মাথা বের করলে কালভার্টের লোহার ব্রিজের সঙ্গে মাথায় ধাক্কা লেগে নিচে পড়ে যান শাওন। ট্রেনের দরজায় ছিটকে আসা রক্ত লেগে থাকতে দেখে রেল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানান শাওনের সহযাত্রী দুই বন্ধু। পরে রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে মির্জাপুর স্টেশনে নেমে শাওনকে খোঁজাখুঁজি করেন তাঁরা।
এ বিষয়ে মির্জাপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার নাজমুল হুদা জানান, জয়দেবপুর ও মির্জাপুর স্টেশনের মাঝামাঝি এলাকায় রেললাইনের একটি কালভার্টের নিচ থেকে শাওনের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহতের পরিবারে সদস্যদের কোনো অভিযোগ না থাকায় গতকালই মরদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়ায় পরিবারের সদস্যদেরক লাশ হস্তান্তর করেছে পুলিশ। এদিকে, গতকাল বিকেল চারটার দিকে কার্পাসডাঙ্গা খ্রিস্টিয় কবরস্থানে তাঁর লাশের কবর দেওয়া হয়।
উল্লেখ্য, গত বুধবার রাতে গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থেকে চুয়াডাঙ্গা উদ্দেশ্যে বন্ধু অবুন কাঠান, তাঁর স্ত্রীসহ তিনজন ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী আন্তঃনগর চিত্রা এক্সপ্রেস ট্রেনের ‘চ’ বগিতে চড়েন। ট্রেন ছাড়ার কিছুক্ষণ পর শাওন তাঁর ছিট থেকে উঠে মোবাইলে কথা বলতে বলতে দরজার দিকে যান। অনেকক্ষণ যাবৎ ফিরে না এলে সন্দেহ হলে সবাই তাঁকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। শাওনকে না পেয়ে বিষয়টি ট্রেনে দায়িত্বরত স্টাফদের জানানো হয়। মির্জাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেনটি থামলে সবকটি বগিতে খোঁজাখুঁজি করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি। পরে শাওন যেই দরজায় সামনে দাঁড়িয়ে ছিল, সেখানে মাথার ঘেনু ও রক্তের ছিটেফোঁটা পাওয়া যায়। বিষয়টি নিয়ে ট্রেনযাত্রী ও স্টাফদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। পরে বিষয়টি স্টেশন মাস্টারকে জানালে শাওনের সঙ্গে থাকা দুজনকে হেফাজতে নেন স্টেশন মাস্টার। খোঁজ শুরু হয় শাওনের। গতকাল সকালে পুলিশ শাওনের লাশ উদ্ধার করে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।