চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ১১ জানুয়ারি ২০১৮
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিশ্ব ইজতেমা বয়কট করার ঘোষণা অনেকের

সমীকরণ প্রতিবেদন
জানুয়ারি ১১, ২০১৮ ১২:২৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সারাদেশে কওমী মাদ্রাসাগুলোতে বিক্ষোভ : কাকরাইল গ্রুপ ও দেওবন্দীরা মুখোমুখি
তাবলিগের মৌলভী সা’দকে ঠেকাতে দিনভর অবরুদ্ধ বিমানবন্দর সড়ক
সমীকরণ ডেস্ক: আগামীকাল শুক্রবার থেকে টঙ্গীর তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে চরম অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়েছে। তাবলিগের দুই গ্রুপের মধ্যে চরম উত্তেজনা যে কোনো সময় সহিংসতায় রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দিল্লির নিজামুদ্দিনের তাবলিগি মারকাজের আমির মাওলানা সা’দ কান্ধলভীকে বিশ্ব ইজতেমায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছেন বাংলাদেশের কওমি আলেম-উলামারা। পাক-ভারত-বাংলাদেশের কওমি শীর্ষ আলেমদের মতামত ও সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে এবং তার আগমন ঠেকাতে চলা আলেম-উলামা ও তাবলিগপন্থিদের নজিরবিহীন বিক্ষোভ ফাঁকি দিয়ে গতকাল বুধবার বিকালে পুলিশ প্রহরায় বিমান বন্দর থেকে কাকরাইলের মারকাজে পৌঁছান সা’দ কান্ধলভী ও তার সঙ্গীরা। দেওবন্দী অনুসারী আলেমদের মতামত তোয়াক্কা না করে সা’দকে বাংলাদেশে আনার ঘটনায় এখন মারমুখী অবস্থায় রয়েছেন তাবলিগের শূরা সদস্য প্রকৌশলী ওয়াসিফুল ইসলামের নিয়ন্ত্রণাধীন কাকরাইল মসজিদ গ্রুপ ও তাবলিগ জামাতের আমির হাফেজ মাওলানা জোবায়ের আহমাদের নেতৃত্বাধীন দেওবন্দপন্থিরা। সাদকে বাংলাদেশে প্রবেশ ঠেকাতে তাবলিগ জামাতের হাজার হাজার অনুসারী হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ঘিরে অবরোধ রচনা করে গতকাল দিনভর বিক্ষোভের কারণে যানজটে অচল হয়ে পড়ে ব্যস্ততম ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক। চরম দুর্ভোগে পতিত হয় উত্তরা, গাজীপুর, সাভার এলাকায় চলাচলরত যানবাহন ও সাধারণ মানুষ। বিমান বন্দর মোড়ের দুই দিকেই যানবাহন চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে গন্তব্যে যেতে হয়েছে নিরুপায় লোকজনকে। কেবল ঢাকা নয়, সারাদেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোতে বিক্ষোভ হয়েছে। অনেক মাদ্রাসার পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে সাদ ইজতেমায় গেলে তারা বয়কট করবেন।
সর্বশেষ সাদ কান্ধলভীর আগমন ঠেকাতে ব্যর্থ হওয়ার পর কাকরাইল মসজিদ ঘেরাও ও সড়কে পাহারা বসানোর নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করে তাবলিগের একাংশ। তারা বিমান বন্দর সড়ক ছেড়ে দিয়ে একদল টঙ্গীর দিকে আরেক দল কাকরাইল মসজিদ অভিমুখে রওনা হন।
মাগরিবের নামাজের পর কয়েকটি ট্রাকে করে তাবলিগের লোকজন এসে কাকরাইল মসজিদের সামনে জড়ো হতে থাকে। আগে থেকেই মসজিদের চারদিক ঘিরে রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। সেখানে তাবলিগের লোকজনের আগমন বাড়তে থাকলে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। তাবলিগ-জামাতের একটি অংশ মসজিদটিতে প্রবেশ করতে চায়। যদিও পুলিশ তাদের ফিরিয়ে দেয়। এ সময় পুলিশের সাথে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। পরে পুলিশ, র্যাব ও গোয়েন্দা বিভাগের সদস্যদের সংখ্যা বাড়ানো হয়। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কাকরাইল মসজিদ চত্বর ঘিরে রেখেছে পুলিশ। সেখানে সর্ব সাধারণের প্রবেশ সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে।
জানা গেছে, মাওলানা সাদ কান্ধলভী বছর খানেক আগে থেকেই ইসলাম ও ইসলামের ইতিহাস নিয়ে অত্যন্ত আপত্তিকর মন্তব্য করার কারণে তাকে বারবার সতর্ক করার পর ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ তার বিরুদ্ধে ফতোয়া দেয়। ওই ফতোয়ায় মুসলমানদের সতর্ক করে বলা হয় মাওলানা সাদ তার বিতর্কিত মন্তব্য থেকে সরে না আসেন তা হলে তার সঙ্গে কাজ করা ঠিক হবে না। কিন্তু তার ভুল তিনি শোধরাননি। এ কারণেই বাংলাদেশে তার আগমন নিয়ে কওমি আলেমরা বিক্ষোভ প্রতিবাদ করে আসছেন।
বাংলাদেশে তাবলিগ পরিচালনাকারী ১১ সদস্যের সুরা কমিটির ৭ জন হাফেজ মাওলানা জোবায়ের আহমদের পক্ষে। ৩ জন ওয়াসিফুলের পক্ষে। একজন মৌন। সা’দ কান্ধলভীকে আনার প্রসঙ্গ নিয়ে বিত-ায় গত ১৫ নভে¤॥^র মাওলানা জোবায়ের আহমাদ ও ওয়াসিফুল ইসলামের গ্রুপের মুসল্লিদের মধ্যে সংঘর্ষে কাকরাইল মসজিদ রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। সা’দ ভক্ত ওয়াসিফ ও তার অনুসারীদের রুম ভাঙচুর করে দখলে নেয় জোবায়ের গ্রুপ। ওয়াসিফের রুমের দরজা ভাঙচুর করে। এতে প্রায় ৫ জন আহত হন। পরে ওয়াসিফুল তার লোকজন নিয়ে আবারো কাকরাইল মসজিদে তার নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেন। পরবর্তীতে দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছে।
তাবলিগের কয়েকজন মুরুব্বীর সাথে আলাপ করে জানা যায়, ইজতেমায় সা’দকে আনা না আনা নিয়ে গত ৭ জানুয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের নির্দেশনাক্রমে তাবলিগ জামাতের মুরুব্বী ও কওমি আলেমদের সমন্বয়ে গঠিত একটি কমিটি সাদের ঢাকা সফরের প্রতি নিষেধাজ্ঞার সুপারিশ করেন।
জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া যাত্রাবাড়িতে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে উলামায়ে কেরাম, কাকরাইলের শুরার উপদেষ্টা, কাকরাইলের শুরা ও ভারতে সফরকারী প্রতিনিধি দলের সদস্য উপস্থিতি ছিলেন। ওই বৈঠকে ২১ জনের মধ্যে ১৩ জন এবারের ইজতেমায় মাওলানা সাদ কান্ধলভীর না আসার পক্ষে মত দেন।
জানা যায়, গত বছরও বিশ্ব ইজতেমায় সাদকে না আসার অনুরোধ জানান বাংলাদেশের কওমি আলেমরা। তিনি কেবল মাত্র বয়ান শুনবেন কিন্তু বয়ান করবেন না এই মুচলেকা দিয়ে আসেন। এসে গত ইজতেমায় চার বার বয়ান করেন সাদ।
এদিকে বিশ্ব ইজতেমায় মাওলানা সা’দের যোগদান ঘিরে সৃষ্ট বিতর্কের দ্রুত অবসান চেয়েছেন তাবলিগ জামাতের আরেক অংশের নেতারা। গত রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন, মাওলানা সা’দ না আসলে এটা বিশ্ব ইজতেমা থাকবে না। এটা হবে স্থানীয় ইজতেমা। কারণ, মাওলানা সা’দ না আসলে অনেক বিদেশি মুসল্লি ইজতেমায় অংশ নেবেন না বলে জানিয়েছেন।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ জানিয়েছেন, রাস্তাজুড়ে তীব্র যানজটের কারণে বিমানের সবকটি ফ্লাইটের যাত্রীরা ভোগান্তিতে পড়েছেন। সময়মতো বিমানবন্দরে আসতে পারেননি অনেক যাত্রী। যে কারণে বেশিরভাগ ফ্লাইট ১ থেকে ৩ ঘণ্টা দেরি করে উড্ডয়ন করেছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।