চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ২৭ জানুয়ারি ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিশ্বে প্রথমবারের মতো ‘জীবন্ত ওষুধ’!

সমীকরণ প্রতিবেদন
জানুয়ারি ২৭, ২০১৯ ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

প্রযুক্তি ডেস্ক: বিশ্বে প্রথমবারের মতো জীবন্ত ওষুধ তৈরি করলেন বিজ্ঞানীরা। যুগান্তকারী এই জেনেটিক্যালি মডিফায়েড ব্যাকটেরিয়া শরীর থেকে টক্সিন বের করে দিয়ে লিভার ও পাকস্থলীর রোগ সারাবে। আমেরিকান একদল গবেষক বিশেষ এই ব্যাকটেরিয়া উদ্ভাবন করেছেন। আমাদের শরীরে সব সময় যেসব টক্সিন বা ক্ষতিকর উপাদান ঢুকে পড়ছে, অন্ত্র থেকে সেসব উপাদান বাইরে বের করে লিভার ও পাকস্থলীর রোগ সারাতে নতুন উদ্যোগ নিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এক্ষেত্রে বিশ্বের প্রথম ‘জীবন্ত ওষুধ’ জেনেটিক্যালি মডিফাই করা ব্যাকটেরিয়া ব্যবহার করা হবে। গবেষকরা নতুন এই ব্যাকটেরিয়ার মাধ্যমে শরীর থেকে অতিরিক্ত অ্যামোনিয়া দূর করার যুগান্তকারী উপায় উদ্ভাবন করেছেন। শরীরে অতিরিক্ত অ্যামোনিয়া থাকলে তা লিভার ড্যামেজ সহ বিরল সব জেনেটিক ডিজঅর্ডার তৈরি করতে পারে। আমেরিকার ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির অঙ্গ সংগঠন সিলোজিক নতুন এই ব্যাকটেরিয়া ‘এসওয়াইএনবি১০২০’ উদ্ভাবন করেছে। ইঁদুরের ওপর পরিচালিত গবেষণায় দেখা গেছে, নতুন এই ব্যাকটেরিয়া তাদের শরীর থেকে অতিরিক্ত অ্যামোনিয়া দূর করতে সক্ষম। এছাড়া সুস্থ মানুষদের ওপর ছোট একটি গবেষণায় দেখা গেছে, ব্যাকটেরিয়াটি ঠিক মতো কাজ করেছে এবং এই ‘জীবন্ত ওষুধ’ গ্রহণ করা নিরাপদ। সিলোজিকের চিফ সায়েন্টিফিক অফিসার পল মিলার বলেন, ‘এই গবেষণায় এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, ব্যাকটেরিয়াকে বিশেষ কাজে ব্যবহার করা সম্ভব এবং তা মানবদেহে গিয়ে কাঙ্ক্ষিত উপায়ে কাজ করতে পারে।’ জীবন্ত এই ওষুধ মুখে গিলেই খেতে হয়। ‘এসওয়াইএনবি১০২০’ নামের এই ওষুধ মানবদেহের বৃহৎ অন্ত্রে কম অক্সিজেনে টিকে থাকতে পারে। সেখানে অ্যামোনিয়াকে আরজিনাইন নামের অ্যামাইনো এসিডে পরিণত করবে এই ওষুধ। সিলোজিক কর্তৃপক্ষ বলছে, চলমান গবেষণায় তারা বেশ উৎসাহী হয়ে উঠেছে। শিগগিরই বিশ্বের প্রথম এই ‘জীবন্ত ওষুধ’ বাজারে নিয়ে আসতে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।