বিদেশযাত্রায় অনুমতি মেলেনি খালেদা জিয়ার

25

প্রস্তাব নাকচ করে ফাইল ফেরত পাঠিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়, দল ও পরিবারে উৎকণ্ঠা
সমীকরণ প্রতিবেদন:
উন্নত চিকিৎসায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশযাত্রা আটকে গেল। এক্ষেত্রে তাঁর পরিবারের আবেদন নাকচ করা হয়েছে। এর কারণ হিসেবে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দন্ডপ্রাপ্ত আসামি হওয়ায় বেগম জিয়ার বিদেশ যাওয়ার সুযোগ নেই। বিএনপি চেয়ারপারসনের ছোট ভাই শামীম এস্কান্দারের আবেদন চার দিন ধরে পর্যালোচনা ও দাপ্তরিক বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষে গতকাল বিকালে আনুষ্ঠানিকভাবে সরকার সিদ্ধান্ত জানাল।
আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় খালেদা জিয়ার সাজা ও দন্ডাদেশ স্থগিত করে যেভাবে তাঁকে সাময়িক মুক্তি দেওয়া হয়েছিল, তাতে এখন আর তাঁকে বিদেশে যেতে দেওয়ার সুযোগ নেই। আইনমন্ত্রীর মতামত পাওয়ার পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার অনুমতি চেয়ে তাঁর ভাই শামীম এস্কান্দারের আবেদনটি গ্রহণ করা গেল না। কয়েক দিন ধরে সরকারও বিএনপির নানা পদক্ষেপের ইতিবাচক অগ্রগতির পর হঠাৎ কেন এমন সিদ্ধান্ত হলো এ নিয়েও রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলে বিস্ময়ের সৃষ্টি হয়েছে। খালেদা জিয়ার পরিবারের পাশাপাশি বিএনপি নেতা-কর্মীদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছে। খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়া নিয়ে পরিবার নতুন কোনো পথে হাঁটতে পারেন বলে জানা গেছে। করোনা আক্রান্ত হয়ে তিনি রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে সিসিইউতে চিকিৎসাধীন। অবশ্য চার সপ্তাহ পর গতকাল তাঁকে করোনামুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। বিএনপি ও তাঁর মেডিকেল টিমের চিকিৎসকরা বলেছেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের এ মতামত বেআইনি। খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে কোনো অঘটন ঘটে গেলে তার দায় সরকারের। এটি সম্পূর্ণ বেআইনি। এ আইনে এমন কোনো বিধান নেই যে কোনো দন্ডপ্রাপ্ত আসামি বিদেশে যেতে পারবে না। এ আইন করাই হয়েছে দন্ডপ্রাপ্ত আসামিদের জন্য। তিনি আরও বলেন, চিকিৎসা শেষে ফিরে আসতে হবে- সরকার এই শর্ত দিতে পারত। খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। তাঁর অবস্থা অত্যন্ত জটিল। সরকার মানবিকভাবে দেখতে পারত। অনুমতি না দিয়ে সরকারের এত বড় দায়ভার নেওয়া উচিত হয়নি। সরকারের সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে খালেদা জিয়ার আইনজীবী ও দলটির যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, সরকারের এ সিদ্ধান্ত অমানবিক। তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেওয়া জরুরি।
বিএনপিপন্থি আইনজীবী মো. আসাদুজ্জামান বলেন, যে আইনি ব্যাখ্যায় বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে দেওয়া হলো না, তা সঠিক নয়। কারণ, ফৌজদারি কার্যবিধি, ১৮৯৮ এর ৪০১ ধারায় সরকারকে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিষয়ে শর্তহীন কিংবা শর্তযুক্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার। ৪০১ (১) এবং ৪০১(৪ক) ধারায় বলা আছে, আদালত যদি বিদেশ যেতে নিষেধ করে কোনো আদেশও দেয় তারপরও সরকার বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দিতে পারে। ৪০১(৪ক) ধারা অনুযায়ী, যে কোনো আইনে যদি কোনো আদালত কোনো ব্যক্তির (সাজাপ্রাপ্ত কিংবা সাজাপ্রাপ্ত নয়) চলাফেরার স্বাধীনতা খর্ব করে কোনো আদেশ দেন সেক্ষেত্রেও সরকার তা স্থগিত করে তার স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে পারে। এই ক্ষমতা সরকারের সহজাত ক্ষমতা কিংবা রহযবৎবহঃ ঢ়ড়বিৎ! দুদক আইন, ২০০৪ এ সরকারের এই ব্যাপক সহজাত ক্ষমতাকে খর্ব করা হয়নি । ফলে, দুদকেরও এখানে বলার কিছু নেই।
অন্যদিকে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রধান আইন কর্মকর্তা ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. খুরশিদ আলম খান বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের দন্ড মওকুফের একমাত্র এখতিয়ার রাষ্ট্রপতির রয়েছে। এটা চাইলে তারা আদালতে যেতে পারেন। সেখানে আদালতের ইচ্ছা, তাঁকে বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দেবে কি না। তিনি বলেন, বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দেওয়া সরকারের এখতিয়ারে নেই। আইন মন্ত্রণালয় সঠিক সিদ্ধান্তই দিয়েছে। যদি দন্ড মওকুফের বিষয় আসে তাহলে রাষ্ট্রপতির কাছে যেতে হবে। যদিও এর আগে দুদকের আইনজীবী বারবার বলে আসছিলেন, দুদকের মামলায় দন্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে হলে আদালতের অনুমতি নিয়েই যেতে হবে।
গতকাল সচিবালয়ে সাংবাদিকদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জমান খান কামাল বলেন, আইন অনুযায়ী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার সুযোগ নেই। মন্ত্রী বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন হঠাৎ করে কভিডে আক্রান্ত হয়ে এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এর মধ্যে তাঁর ছোট ভাই, তাঁকে বিদেশে নেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে আমাদের কাছে আবেদন করেছিলেন। আমরা আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতের জন্য সেখানে পাঠিয়েছিলাম। আইন মন্ত্রণালয় থেকে মত এসেছে। তারা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, ৪০১ ধারায় সাজা স্থগিত করে যে সুবিধাটি দেওয়া হয়েছে, ৪০১-এ সাজা মওকুফ করে তাঁকে বিদেশে পাঠানোর অবকাশ দ্বিতীয়বার নেই। আসাদুজ্জামান খান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশমতে, আইনের ৪০১ এর ১ ধারা অনুযায়ী তাঁর (খালেদা জিয়া) দন্ড স্থগিত করে বাসায় তাঁর সুবিধা মতো চিকিৎসা গ্রহণের সুযোগ করে দিয়েছিলেন। তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন এবং বাসায় অবস্থান করছিলেন। চিকিৎসা নেওয়ার শর্তসাপেক্ষে তাঁর সাজা স্থগিত হয়েছিল যে তিনি বিদেশে যেতে পারবেন না। বাসা থেকেই চিকিৎসা নেবেন। আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত অনুযায়ী, আবেদনটি আমরা মঞ্জুর করতে পারছি না।
বিএনপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, খালেদা জিয়ার যথাযথ চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে না এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিএনপির কে কী অভিযোগ করল সেটা প্রশ্ন না। আমাদের আইন অনুযায়ী যেটুকু করণীয় আমরা করছি। মানবতার প্রশ্ন এসেছে, সেটাও আমরা বলেছি এবং বিএনপি আবেদন করতেই পারে কিন্তু আইনের বাইরে আমরা কিছু করতে পারি না।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এক অনুষ্ঠানে বেগম জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করে বলেছেন, তাঁর উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন, যেটি দেশে সম্ভব নয়। তাঁর ওপর সরকার অন্যায় অবিচার করেছে। তাঁকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে চিকিৎসার সুযোগ দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
বিএনপি দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য জহির উদ্দিন স্বপন বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি না দেওয়ার সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হলো, এই সরকার কতটা অমানবিক। গোটা রাষ্ট্র ও সংবিধানকে তারা দলীয় হাতিয়ারে পরিণত করেছে। ৫ মে রাতে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার আবেদন নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। সেই রাতেই তা আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর কথা জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছিলেন, খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার প্রয়োজন হলে বিষয়টি ‘ইতিবাচক দৃষ্টিতে’ বিবেচনা করা হবে। আইন মন্ত্রণালয়ে যাচাই-বাছাই শেষে পরদিন বিকালে ওই আবেদনের ফাইল আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের হাতে যায়। সে সময় তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার সাময়িক মুক্তির শর্ত শিথিলের সুযোগ আছে কি না, তা দেখে তিনি দ্রুতই সিদ্ধান্ত দেবেন। তিনিও বিষয়টি ‘ইতিবাচকভাবে’ দেখার কথা বলেছিলেন। এ নিয়ে দিনভর আলোচনার মধ্যেই ৬ মে খালেদা জিয়ার পাসপোর্ট নবায়নের জন্য আবেদন করা হয়। আবেদন যেহেতু হয়েছে, নবায়নও ‘হয়ে যাবে’ বলে সেদিন জানিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি পেরিয়ে খালেদার পরিবারের করা আবেদনের ফাইল আইনমন্ত্রীর ‘মতামতসহ’ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছায় রবিবার সকালে। দুপুরে জানিয়ে দেওয়া হয়, খালেদা জিয়ার অনুমতি মেলেনি।
হঠাৎ কেন এমন সিদ্ধান্ত :
কয়েক দিন ধরে সরকার ও বিএনপির ইতিবাচক বক্তব্য ও পদক্ষেপের পর হঠাৎ কেন এমন সিদ্ধান্ত হলো এ নিয়ে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলে বিস্ময়ের সৃষ্টি হয়েছে। গত দুই দিনে সরকারি দলের একাধিক নেতার বক্তব্যে বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়ার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তারা বলেছেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে। তাঁর বিদেশ যাওয়ার প্রয়োজন নেই। অন্যদিকে বিএনপিপন্থি চিকিৎসক ও নেতাদের বক্তব্যেও উঠে আসে, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। তিনি করোনামুক্ত হয়েছেন। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ার কারণেই সরকার হয়তো বিদেশ যাওয়ার যৌক্তিকতা তুলে ধরেছেন। তাছাড়া বেগম জিয়া লন্ডন বা সিঙ্গাপুরে গিয়ে সুস্থ হলে বিএনপির রাজনীতিতে নতুন মাত্রার সৃষ্টি হতে পারে। সরকারের চোখে বিদেশযাত্রা ‘ষড়যন্ত্রের’ অংশ হতে পারে। তাছাড়া বিএনপি নেতাদের বক্তব্যকে লুফে নিয়ে সরকার বলছে, যেহেতু ঢাকার হাসপাতালেই খালেদা জিয়া ভালো হয়ে যাচ্ছেন, তাহলে বিদেশ যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা নেই। তবে বিএনপি নেতা ও চিকিৎসকদের বক্তব্য নিয়ে দলের ভিতরে-বাইরে নানা সমালোচনা চলছে।
তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি যা বলল :
উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়ার বিদেশে যেতে সরকার অনুমতি না দেওয়ার প্রতিক্রিয়ায় গতকাল সন্ধ্যায় তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর বেগম খালেদা জিয়া যে চিকিৎসা নিচ্ছেন, চিকিৎসকরাই বলছেন তা যথেষ্ট নয়। কারণ, করোনা পরবর্তী যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে, তাঁর বয়স (৭৬) এবং যে রোগগুলো আছে (আথ্রাইটিকস, ডায়াবেটিস, চোখের সমস্যা) যথেষ্ট ঝুঁকির সম্মুখীন আছেন। এটা তো পরিষ্কার, এই সরকার ওয়ান-ইলেভেনের ধারাবাহিকতায় বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দিতে চায়।
রাজধানীর কুড়িলে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার প্রবেশমুখে সাংবাদিকদের মির্জা ফখরুল আরও বলেন, এ সিদ্ধান্তের কোনো যুক্তিকতা থাকতে পারে না। তারা বলছে (সরকার) নজির নেই, নজির তো তারা অসংখ্য তৈরি করেছে। এটা শুধু মানবিক কারণে নয়; রাজনৈতিক কারণেও এটা জরুরি। খালেদা জিয়া তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনৈতিক নেতা, স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে শুরু করে গণতন্ত্রের পক্ষে তাঁর অবদান অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। সরকারের প্রতিহিংসামূলক রাজনীতি চরিতার্থ করতে এটা করা হয়েছে। তিনি বলেন, যে ধারাতে খালেদা জিয়ার সাজা সরকারের নির্বাহী আদেশে স্থগিত করা হয়েছে, সেই একই ধারায় বিদেশে যাওয়া, সাজা মওকুফ করে দেওয়ার যথেষ্ট পরিমাণ সুযোগ ছিল। সরকার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামিকে মাফ করতে পারে, বাইরে পাঠিয়ে দিতে পারে। কিন্তু খালেদা জিয়ার মতো একজন রাজনীতিবিদ, মুক্তিযুদ্ধে যার অবদান, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় যার অবদান তাঁর জন্য তাদের মানবতা, শিষ্টাচার কাজ করে না। এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়া রাজনীতির শিকার হলেন। রাজনীতির শিকার হয়ে তিনি কারাগারে গেছেন, এখনো তিনি বলতে গেলে অন্তরীণই আছেন।