বাবা-মেয়েসহ ৩ জনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম : রেফার্ড

320

আলমডাঙ্গার ফুলবগাদী গ্রামে শরিকানা জমি নিয়ে চাচাতো ভাইদের সাথে বিরোধ

শহর প্রতিবেদক: আলমডাঙ্গার ফুলবগাদী গ্রামে শরিকানা জমিদখলকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে একই পরিবারের নারীসহ ৩জন আহত হয়েছে। গতকাল রোববার দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় গতকালই তাদের ৩ জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসক।
জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার গাংনী ইউনিয়নের ফুলবগাদী পূর্বপাড়ার মৃত ফয়েজ উদ্দীন মোল্লার ছেলে আব্দুর রহমান ও আতিয়ার রহমানের সাথে তাদের চাচাতো ভাইদের মধ্যে মাঠের ৩ বিঘা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিলো। গতকাল দুপুরে আতিয়ার, আব্দুর রহমান ও তার মেয়ে রুনা মাঠের দিকে যাচ্ছিলো। এসময় ক্যামব্রিয়ান স্কুলের পাশে কলাবাগানে আগে থেকে ওঁত পেতে থাকা চাচতো ভাই ও তাদের ছেলেরা লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আতিয়ার, আব্দুর রহমান ও রুনার ওপর হামলা চালায়। পরে আহতাবস্থায় তাদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তিনজনকেই রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসক।
আহত আব্দুর রহমান জানান, আমি, আমার মেয়ে ও ছোট ভাই দুপুরে মাঠর দিকে যাচ্ছিরাম। এ সময় আমার চাচাতো ভাই একই গ্রামের মৃত ইছা মোল্লার ছেলে উকিল, হাকিম, মুক্তার, আতালের ছেলে জসিম, গাংনী গ্রামের খবির উদ্দীনের ছেলে পান্না, মনি মোল্লার ছেলে লাল্টুসহ তাদের লোকজন আমাদের লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে জখম করে।
হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আওলিয়ার রহমান জানান, ধারালো অস্ত্রের কোপে তারা গুরুতর জখম হয়েছে। তাদের ক্ষত গভীর হওয়ায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় তিনজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। এ বিষয়ে আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আকরাম হোসেন জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।