চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ২৬ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাজেটের অর্ধেকও ৯ মাসে বাস্তবায়ন করা যায়নি

এডিপি বাস্তবায়ন হার ২৭%; সার্বিক রাজস্ব আদায় হার ৬৯%
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ২৬, ২০২২ ৯:২৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন:
অর্থবছরের ৯ মাসে বাজেটের অর্ধেকও বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। মূল বাজেটের তো নয়ই, বাজেটের আকার কমিয়ে সংশোধিত বাজেটেরও অর্ধেক বাস্তবায়ন করা যায়নি। অর্থমন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। চলতি জুন মাসের ৩০ তারিখে শেষ হতে চলা ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই ২০২১-মার্চ ২২) বাজেট বাস্তবায়নের হার দাঁড়িয়েছে মূল বাজেটের ৪৩ দশমিক ৫১ শতাংশ এবং সংশোধিত বাজেটের ৪৪ শতাংশ। গত ২০২০-২১ অর্থবছরের একই সময়ে বাজেট বাস্তবায়নের হার ছিল মূল বাজেটের ৪৩ শতাংশ। সে হিসাবে গত অর্থবছরের তুলনায় বাজেট বাস্তবায়নের হার সামান্য বেড়েছে। সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ বাজেট বাস্তবায়নের এ খসড়া হিসাব চূড়ান্ত করেছে বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটি কমিয়ে ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর বিপরীতে অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ব্যয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৬২ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা। গত ২০২০-২১ অর্থবছরের একই সময়ে মোট ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৪২ হাজার ৩৪ কোটি টাকা। এ বিষয়ে অর্থ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, মূলত বাজেট বাস্তবায়নে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অদক্ষতার কারণে অর্থবছরের অধিকাংশ সময় বাজেট বাস্তবায়ন আশানুরূপ হয় না। দেখা যায়, অর্থবছরে প্রথম আট-নয় মাসে বাজেট বাস্তবায়ন ৪৫ থেকে ৪৮ শতাংশ হয়েছে। কিন্তু বাকি তিন মাসে ৪০-৪৫ শতাংশ বাজেটের অর্থ খরচ করা হয়ে থাকে। তাড়াহুড়ো করে অর্থ খরচ করার কারণে একদিকে যেমন অর্থের অপচয় হয়। অন্যদিকে, এতে কাজের মানও ভালো হয় না। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি বিভিন্ন সময় প্রশিক্ষণ দিয়ে কর্মকর্তাদের কাজে দক্ষতা ও মান বাড়ানোর, যাতে তারা দ্রুততার সাথে বাজেট বাস্তবায়ন করতে পারেন।

এদিকে, বাজেট উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, সাধারণভাবে কোনো অর্থবছরেই পুরো বাজেট বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না। এমনকি সংশোধিত বাজেটও পুরোপুরি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না। গত পাঁচ বছরে মূল বাজেটের গড়ে ৮১ শতাংশ এবং সংশোধিত বাজেটের গড়ে ৮৬ দশমিক ৮০ শতাংশ বাস্তবায়িত হয়েছে। পর্যালোচনায় দেখা যায়, ৯ মাসে বাজেট বাস্তবায়নে তেমন অগ্রগতি না হলেও প্রতিটি প্রান্তিকেই বাজেট বাস্তবায়নের হার বেড়েছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর ২০২১) ৬৭ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা (মূল বাজেটের ১১%); দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ২০২১) ৮২ হাজার ৪৪২ কোটি টাকা (মূল বাজেটের ১৪%) এবং তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ ২০২২) ৯৪ হাজার ৮৭ কোটি টাকা (মূল বাজেটের ১৮.৫১%) ব্যয় হয়েছে।
অর্থ বিভাগের হিসাব মতে, ৯ মাসে সার্বিক লক্ষ্যমাত্রার (এনবিআর ও এনবিআর-বহির্ভূত) ৬৯ শতাংশ রাজস্ব আদায় হয়েছে। মূল বাজেটে সার্বিক রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা। এর বিপরীতে আদায় হয়েছে ২ লাখ ৭০ হাজার ৬৬৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে ‘জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের’ (এনবিআর) আওতাধীন রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা। এর বিপরীতে ৯ মাসে আদায় হয়েছে ২ লাখ ৩৯ হাজার ৬৮৯ কোটি টাকা (লক্ষ্যমাত্রার ৭২%)। অন্যদিকে এনবিআর-বহির্ভূত ১৬ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ৯ মাসে আদায় হয়েছে ৫ হাজার কোটি টাকা (লক্ষ্যমাত্রার ৩১%) এবং কর-ব্যতীত রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ৪৩ হাজার কোটি টাকার বিপরীতে আদায় হয়েছে ২৫ হাজার ৯৫৯ কোটি টাকা (লক্ষ্যমাত্রার ৬০%) । অর্থ বিভাগের হিসাব মতে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ‘বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি’ (এডিপি) বাস্তবায়নের হার দাঁড়িয়েছে মূল এডিপির মাত্র ২৭ দশমিক ০৬ শতাংশ ও সংশোধিত এডিপির ২৯ শতাংশ। গত অর্থবছরের একই সময়ে এডিপি বাস্তবায়ন হার ছিল মূল এডিপির ২৮ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে এডিপির আকার ছিল ২ লাখ ২৫ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটি কাটছাঁট করে ২ লাখ ৯ হাজার ৯৭৭ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়। এর বিপরীতে ৯ মাসে ব্যয় হয়েছে ৬০ হাজার ৯৬৪ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে এডিপিতে মোট ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ৫৯ হাজার ২৫ কোটি টাকা।অর্থবছরের ৯ মাসে বাজেটের অর্ধেকও বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। মূল বাজেটের তো নয়ই, বাজেটের আকার কমিয়ে সংশোধিত বাজেটেরও অর্ধেক বাস্তবায়ন করা যায়নি। অর্থমন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। চলতি জুন মাসের ৩০ তারিখে শেষ হতে চলা ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই ২০২১-মার্চ ২২) বাজেট বাস্তবায়নের হার দাঁড়িয়েছে মূল বাজেটের ৪৩ দশমিক ৫১ শতাংশ এবং সংশোধিত বাজেটের ৪৪ শতাংশ। গত ২০২০-২১ অর্থবছরের একই সময়ে বাজেট বাস্তবায়নের হার ছিল মূল বাজেটের ৪৩ শতাংশ। সে হিসাবে গত অর্থবছরের তুলনায় বাজেট বাস্তবায়নের হার সামান্য বেড়েছে। সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ বাজেট বাস্তবায়নের এ খসড়া হিসাব চূড়ান্ত করেছে বলে জানা গেছে।
প্রসঙ্গত চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটি কমিয়ে ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর বিপরীতে অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ব্যয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৬২ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা। গত ২০২০-২১ অর্থবছরের একই সময়ে মোট ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৪২ হাজার ৩৪ কোটি টাকা। এ বিষয়ে অর্থ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, মূলত বাজেট বাস্তবায়নে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অদক্ষতার কারণে অর্থবছরের অধিকাংশ সময় বাজেট বাস্তবায়ন আশানুরূপ হয় না। দেখা যায়, অর্থবছরে প্রথম আট-নয় মাসে বাজেট বাস্তবায়ন ৪৫ থেকে ৪৮ শতাংশ হয়েছে। কিন্তু বাকি তিন মাসে ৪০-৪৫ শতাংশ বাজেটের অর্থ খরচ করা হয়ে থাকে। তাড়াহুড়ো করে অর্থ খরচ করার কারণে একদিকে যেমন অর্থের অপচয় হয়। অন্যদিকে, এতে কাজের মানও ভালো হয় না। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি বিভিন্ন সময় প্রশিক্ষণ দিয়ে কর্মকর্তাদের কাজে দক্ষতা ও মান বাড়ানোর, যাতে তারা দ্রুততার সাথে বাজেট বাস্তবায়ন করতে পারেন। এদিকে, বাজেট উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, সাধারণভাবে কোনো অর্থবছরেই পুরো বাজেট বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না। এমনকি সংশোধিত বাজেটও পুরোপুরি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না। গত পাঁচ বছরে মূল বাজেটের গড়ে ৮১ শতাংশ এবং সংশোধিত বাজেটের গড়ে ৮৬ দশমিক ৮০ শতাংশ বাস্তবায়িত হয়েছে।
পর্যালোচনায় দেখা যায়, ৯ মাসে বাজেট বাস্তবায়নে তেমন অগ্রগতি না হলেও প্রতিটি প্রান্তিকেই বাজেট বাস্তবায়নের হার বেড়েছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর ২০২১) ৬৭ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা (মূল বাজেটের ১১%); দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ২০২১) ৮২ হাজার ৪৪২ কোটি টাকা (মূল বাজেটের ১৪%) এবং তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ ২০২২) ৯৪ হাজার ৮৭ কোটি টাকা (মূল বাজেটের ১৮.৫১%) ব্যয় হয়েছে। অর্থ বিভাগের হিসাব মতে, ৯ মাসে সার্বিক লক্ষ্যমাত্রার (এনবিআর ও এনবিআর-বহির্ভূত) ৬৯ শতাংশ রাজস্ব আদায় হয়েছে। মূল বাজেটে সার্বিক রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা। এর বিপরীতে আদায় হয়েছে ২ লাখ ৭০ হাজার ৬৬৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে ‘জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের’ (এনবিআর) আওতাধীন রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা। এর বিপরীতে ৯ মাসে আদায় হয়েছে ২ লাখ ৩৯ হাজার ৬৮৯ কোটি টাকা (লক্ষ্যমাত্রার ৭২%)। অন্যদিকে এনবিআর-বহির্ভূত ১৬ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ৯ মাসে আদায় হয়েছে ৫ হাজার কোটি টাকা (লক্ষ্যমাত্রার ৩১%) এবং কর-ব্যতীত রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ৪৩ হাজার কোটি টাকার বিপরীতে আদায় হয়েছে ২৫ হাজার ৯৫৯ কোটি টাকা (লক্ষ্যমাত্রার ৬০%) । অর্থ বিভাগের হিসাব মতে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ‘বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি’ (এডিপি) বাস্তবায়নের হার দাঁড়িয়েছে মূল এডিপির মাত্র ২৭ দশমিক ০৬ শতাংশ ও সংশোধিত এডিপির ২৯ শতাংশ। গত অর্থবছরের একই সময়ে এডিপি বাস্তবায়ন হার ছিল মূল এডিপির ২৮ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে এডিপির আকার ছিল ২ লাখ ২৫ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটি কাটছাঁট করে ২ লাখ ৯ হাজার ৯৭৭ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়। এর বিপরীতে ৯ মাসে ব্যয় হয়েছে ৬০ হাজার ৯৬৪ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে এডিপিতে মোট ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ৫৯ হাজার ২৫ কোটি টাকা।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।