প্রায় দেড় কেজি ওজনের ১৩টি স্বর্ণের বার উদ্ধার : আটক ১

416

দর্শনা জয়নগর কাস্টমসে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের চোরাচালান বিরোধী অভিযান
দর্শনা অফিস: দর্শনা জয়নগর আন্তর্জাতিক চেকপোষ্টে যশোর শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালিয়ে ১ কেজি ৪৬০ গ্রাম ওজনের ১৩টি স্বর্ণের বারসহ স্বর্ণ চোরাচালানী দেলোয়ার শেখকে আটক করেছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরের দিকে দর্শনা আন্তর্জাতিক চেকপোষ্ট কাষ্টমস এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত স্বর্ণ চোরাকারবারী ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলার ওমেদ শেখের ছেলে। আটককৃতর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দামুড়হুদা থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। জানা যায়, যশোর বেনাপোল শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সহকারী পরিচালক সাইফুর রহমানের নেতৃত্বে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে বেনাপোল কাস্টমস শুল্ক গোয়েন্দার রাজস্ব কর্মকর্তা সুপারিনটেনডেন্ট ছবি রাণী দত্ত ও শুল্ক গোয়েন্দা ইন্সপেক্টর সাজিবুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে দর্শনা আন্তর্জাতিক জয়নগর চেকপোষ্টে চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালায়। এ সময় ভারতগামী বাংলাদেশী পাসপোর্টধারী যাত্রী যার নং (বিআর-০৫৩৭৫৯৬) দেলোয়ার (৫১) নামের এক ব্যক্তিকে আটক করে। আটককৃত চোরাকারবারীর লাগেজ তল্লাশী চালায় শুল্ক গোয়েন্দা পুলিশ। তল্লাশীকৃত লাগেজে চোরাকারবারীর অভিনব কায়দায় বিশেষভাবে লুকায়িত হ্যান্ডেলের নীচের ব্যাগের চামড়ার ভীতর থেকে ১৩ পিচ স্বর্ণের বার উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত স্বর্ণের পরিমান ১ কেজি ৪৬০ গ্রাম। যার আনুমানিক বাজার মূল্য ৭২ লাখ টাকা। আটককৃত চোরাকারবারী ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলার চরবর্ণী বাজারপাড়ার ওমেদ শেখের ছেলে দেলোয়ার শেখ।
বেনাপোল কাস্টমস শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের রাজস্ব কর্মকর্তা সুপারিনটেনডেন্ট ছবি রাণী দত্ত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সাংবাদিকদেরকে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা আন্তর্জাতিক জয়নগর সীমান্ত দিয়ে একটি স্বর্ণের চালান ভারতে পাচার হবে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা সকাল থেকে দর্শনা আন্তর্জাতিক জয়নগর চেকপোষ্ট কাষ্টমস এলাকায় অবস্থান করি। এরপর আমরা চোরাকারবারীকে ধরতে সীমান্ত এলাকায় নজরদারী বাড়াতে থাকি। এরই একপর্যায় দুপুর ২টার দিকে দেলোয়ার নামের বাংলাদেশী এক পাসপোর্টধারী যাত্রীকে আটক করি। তাকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায় সে ঘটনা স্বীকার করে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী কাছে থাকে উক্ত লাগেজে বিশেষ কায়দায় লুকায়িত লাগেজের হাতলের নিচ হতে ১৩ টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত স্বর্ণের ওজন ১ কেজি ৪৬০ গ্রাম। যার আনুমানিক বাজার মূল্য ৭২ লাখ টাকা।
উদ্ধারকৃত স্বর্ণ কাস্টমসে জমা দেওয়া হয়েছে এবং উক্ত মালামাল ট্রেজারী অফিসে জমা দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। আটককৃত আসামী দেলোয়ারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের পূর্বক গতকাল সন্ধ্যার দিকে দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। এ বিষয়ে দামুড়হুদা মডেল থানার (ওসি) সুকুমার কুন্ডু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আটককৃত আসামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে তাকে দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশে সোপর্দ করেছে।