চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ১৯ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রতিবাদও করতে পারছেন না মানুষ : ফখরুল

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
এপ্রিল ১৯, ২০২২ ৮:৪১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

‘কান্না থামছে না গুম হওয়া সদস্যদের পরিবারে। দিন, মাস, বছর পেরিয়ে গেলেও কোনো হদিস নেই হারিয়ে যাওয়া মানুষগুলোর। শুধু বুকভরা আশা নিয়ে তাদের অপেক্ষা নিখোঁজ স্বজনকে ফিরিয়ে পাওয়ার। কিন্তু ফিরে পাওয়া তো দূরের কথা, কেউ এর বিরুদ্ধে কোনো প্রতিবাদও করতে পারছেন না। যারা একটু প্রতিবাদের চেষ্টা করছেন তাদের ওপরই নেমে আসছে অকথ্য নির্যাতন-হয়রানি।’ কথাগুলো বলেছেন নিখোঁজ নুরুজ্জামান রনির স্ত্রী মনীসা ও নিখোঁজ মনির হোসেনের ভাই ওবায়দুল্লাহ হোসেন। এরই প্রেক্ষাপটে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগের শাসনব্যবস্থার বিরুদ্ধে যেসব তরুণ প্রতিবাদ জানাচ্ছে, তাদের নির্মূল ও নিশ্চিহ্ন করতেই সরকার গুম করে দিচ্ছে। তিনি বলেন, একদলীয় শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে চায় আওয়ামী লীগ। এখানে যারা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে, তারা তাদের নির্মূল করতে চায়, নিশ্চিহ্ন করতে চায়। তিনি বলেন, সারা দেশে অক্টোপাসের মতো দম বন্ধ করার পরিবেশ বিরাজ করছে। গতকাল রাজধানীর গুলশানে লেকশোর হোটেলে বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সংসদ সদস্য ইলিয়াস আলীকে গুম করার ১০ বছর উপলক্ষে বিএনপির এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী এবং ইলিয়াস আলীর স্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তাহসিনা রুশদীর লুনা উপস্থিত ছিলেন। বিএনপির সাবেক এমপি ইলিয়াস আলীর নিখোঁজ হওয়ার ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ‘ইলিয়াস আলীসহ সব গুমের শিকার ব্যক্তিদের ফিরিয়ে দাও’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে বিএনপির ৬০০-এর অধিক নেতা-কর্মীর ‘গুম’ হওয়ার একটি ভিডিও ক্লিপ দেখানো হয়। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে ও মানবাধিকার বিষয়ক কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট ফারজানা শারমিন পুতুল ও ইলিয়াস আলীর ছেলে ব্যারিস্টার আবরার ইলিয়াসের পরিচালনায় আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, গণ-অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক ড. রেজা কিবরিয়া, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ এবং বিএনপির মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ বক্তব্য রাখেন। এ ছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, জয়নুল আবদিন ফারুক, শাহজাদা মিয়া, ইসমাইল জবিউল্লাহ, অধ্যাপক সাহিদা রফিক, অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলাম, অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস, অধ্যাপক মামুন আহমেদ, শামা ওবায়েদ, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীসহ অনুষ্ঠানে ঢাকাস্থ যুক্তরাজ্য ও কানাডা হাইকমিশনের কূটনীতিকরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে গুম হওয়া নেতা-কর্মীদের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ইলিয়াস আলীর সহধর্মিণী তাহসিনা রুশদীর লুনা, সাইদুর রহমানের বাবা শফিকুর রহমান, মাজহারুল ইসলাম রাসেলের ভাই মশিউর রহমান লোটাস, পারভেজ হোসেনের ছোট মেয়ে আদিবা হোসেন হৃদি, নুরুজ্জামান রনির স্ত্রী মনীসা, মনির হোসেনের ভাই ওবায়দুল্লাহ হোসেন তাদের মনোবেদনা ও আকুতির কথা তুলে ধরেন। ইলিয়াস আলীর স্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তাহসিনা রুশদীর লুনা বলেন, ইলিয়াস আলীকে গুম করে দেওয়ার পর সরকার নাটক সাজাতে চেয়েছিল। খারাপ খারাপ কথা লিখে দেয়ালে পোস্টার সাঁটিয়েছিল। কিন্তু জনগণ সেটি গ্রহণ করেনি। লুনা বলেন, এই সরকার বিএনপির মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মীদের গুম করে দিয়ে মেসেজ দিতে চেয়েছিল যে, স্টপ হয়ে যাও। আন্দোলন করলে, কথা বললে গুম হয়ে যাবে। ২০১৭ সালে ১৭ এপ্রিল বনানীর আমতলীর কাছ থেকে এম ইলিয়াস আলী ও তার গাড়িচালক আনসার আলীকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠানের সদস্যরা তুলে নিয়ে যায়। মির্জা ফখরুল বলেন, যারা গুম হয়ে গেছেন আমি জানি না তারা আমাদের কাছে ফিরে আসবেন কি না। আমরা প্রতিমুহূর্তে প্রার্থনা করি, আল্লাহর কাছে দোয়া চাই তারা যেন ফিরে আসেন। আর যারা খুন হয়ে গেছেন, যাদের হত্যা করা হয়েছে, তাদের পরিবার-পরিজনদের একই অবস্থা। আমাদের গুম হয়ে যাওয়া পরিবারগুলোর স্বজনদের কথায় আমরা কষ্ট পেলেও অনুপ্রাণিত হই। তারা যে ত্যাগ স্বীকার করেছেন, এখনো করে যাচ্ছেন তা আমাদের এই সংগ্রামে আমাদের এই যুদ্ধে সাহস জোগাবে এবং আমরা সামনের দিকে আরও এগিয়ে গিয়ে সফল হতে পারব।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।