চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ১৪ ডিসেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রতিটি বিজয় আসে আল্লাহর কাছ থেকে

ধর্ম প্রতিবেদন:
ডিসেম্বর ১৪, ২০২১ ১১:০৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। মহান আল্লাহ পাকিস্তানি হানাদারদের বিরুদ্ধে মজলুম বাঙালিদের  বিজয় নিশ্চিত করেছিলেন বলেই বাংলাদেশ স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ হিসেবে আজ বিশ্ব মানচিত্রে সগৌরবে নিজের অস্তিত্ব ঘোষণা করছে। ইসলামী বিশ্বাস অনুযায়ী বিজয় নির্ধারণ করেন আল্লাহ। আল্লাহ সব সময় ন্যায়ের পক্ষে। মুক্তিযুদ্ধে ন্যায়ের জয় হয়েছিল। অন্যায়কারী শক্তি পরাজিত হয়েছিল। পবিত্র কোরআনে রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মক্কা বিজয় সম্পর্কে ইরশাদ করা হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই আমি তোমাকে সুস্পষ্ট বিজয় দান করেছি।’ ৪৮:১ রসুল সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম মুশরেকদের সঙ্গে হুদায়বিয়ার চুক্তিতে আবদ্ধ হন। এ চুক্তি সম্পর্কে মুসলমানদের মধ্যে দ্বিধাদ্বন্দ্ব সংশয় দেখা দেয়। যে সংশয় কাটাতেই আল্লাহ রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বিজয়ের সুসংবাদ দেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষিত হয়েছিল ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ। ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি হানাদাররা নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ার পর বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। বাংলাদেশের মানুষ দীর্ঘ নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আল্লাহর এ নিয়ামতকে অর্জন করেছে। মুক্তিযুদ্ধে সামান্য কিছু রাজাকার আলবদর আলশামস ছাড়া দেশের সিংহভাগ মানুষ ছিল স্বাধীনতার প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ। কিছু মোনাফেক বাদে বাংলাদেশের আলেমসমাজও ছিল মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে। তাদের অনেকে অংশ নিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধে। কোনো কোনো ওলামায়ে কিরাম বয়ান-বক্তৃতার মাধ্যমে জনসাধারণকে মহান মুক্তিযুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করেছেন। আবার কেউ কেউ নিজের জীবন বাজি রেখে পাকিস্তানি হানাদারদের বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে লড়াই করেছেন। আলেমসমাজের মধ্যে যারা সর্বপ্রথম পাকিস্তানি শাসকদের জুলুম-অত্যাচারের বিরুদ্ধে সাহসী ভূমিকা রেখেছেন তার মধ্যে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী (রহ.)। মহান মুক্তিযুদ্ধে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালনকারী ও স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক ছিলেন আলেমসমাজেরই আরেক উজ্জ্বল নক্ষত্র মাওলানা আবদুর রশিদ তর্কবাগীশ (রহ.)। এদের প্রথমজন ছিলেন মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি। দ্বিতীয় জন একই দলের দ্বিতীয় সভাপতি। আল্লাহ প্রতিটি মানুষকে শৃঙ্খলা মুক্তভাবে সৃষ্টি করেছেন। মানুষের এই স্বাধীনতা আল্লাহর নেয়ামত।

আরবি ভাষার একটি প্রবচন হব্বুল ওয়াতান মিনাল ইমান। যার অর্থ- দেশপ্রেম ইমানের অঙ্গ। জন্মভূমি মক্কার প্রতি রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অপরিসীম ভালোবাসার কথা আমাদের জানা। প্রতিপক্ষ মুশরিকদের হিংস্রতায় রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মক্কা ছেড়ে মদিনায় চলে যেতে বাধ্য হন। তিনি যখন পবিত্র মদিনার উদ্দেশে যাচ্ছিলেন তখন পেছন ফিরে প্রিয় মাতৃভূমির দিকে তাকাচ্ছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘হে মক্কা প্রিয় জন্মভূমি আমার! যদি তোমার অধিবাসীরা আমাকে বাধ্য না করত আমি কোনো দিন তোমাকে ছেড়ে যেতাম না।’ আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এবং তাদের এদেশীয় ভাড়াটিয়া গোলামদের অত্যাচারে এক কোটি মানুষ দেশত্যাগে বাধ্য হয়। মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের পর তারা শত্রুমুক্ত স্বাধীন দেশে ফিরে আসেন। মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ মানুষ প্রাণ দিয়েছেন হানাদার ও তাদের সহযোগীদের হাতে। আড়াই থেকে তিন লাখ মা বোন সম্ভ্রম হারিয়েছেন। গণহত্যা ও নারীর সম্ভ্রম নষ্টের অপরাধে যারা জড়িত আল্লাহ তাদের জন্য লজ্জাজনক পরাজয় এনে দেন। প্রায় এক লাখ পাকিস্তানি সৈন্য আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের মূলধন ছিল দেশপ্রেম। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে স্বদেশকে ভালোবেসে আমাদের জন্য দেশপ্রেমের আদর্শ রেখে গেছেন। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর স্বদেশ মক্কাকে ভালোবাসতেন, মক্কার জনগণকে ভালোবাসতেন। তাদের আল্লাহর পথে আনার জন্য তিনি অপরিসীম অত্যাচার সহ্য করেছেন। তারপরও কখনো স্বদেশবাসীর অকল্যাণ কামনা করেননি। তায়েফে নির্যাতিত হওয়ার পরও কোনো বদ দোয়া করেননি। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মক্কা থেকে হিজরতের পর মদিনাকেও খুব ভালোবাসতেন। কোনো সফর থেকে প্রত্যাবর্তনকালে মদিনার সীমান্তে উহুদ পাহাড় চোখে পড়লে নবীজির চেহারায় আনন্দের আভা ফুটে উঠত এবং তিনি বলতেন, ‘এই উহুদ পাহাড় আমাদের ভালোবাসে, আমরাও উহুদ পাহাড়কে ভালোবাসি।’ বুখারি, মুসলিম। তাফসিরে কুরতুবিতে বর্ণনা করা হয়েছে- যখন রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজের জন্মভূমি মক্কা ত্যাগ করে মদিনায় হিজরত করছিলেন, তখন তাঁর চোখ সজল হয়ে উঠেছিল। দেশের জন্য, জন্মভূমির জন্য তাঁর মায়া ও ভালোবাসা ছিল অকৃত্রিম। পরে আল্লাহ রব্বুল আলামিন তাঁর প্রিয় হাবিবের মাধ্যমে মক্কাকে মুশরিকদের হাত থেকে মুক্তি দিয়ে, স্বাধীনতা দিয়ে ধন্য করেছেন। হিজরতের পর মদিনায় হজরত আবুবকর ও বিলাল (রা.) জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন। অসুস্থ অবস্থায় তাঁদের মনে প্রিয় স্বদেশ মক্কার স্মৃতিচিহ্ন জেগে উঠেছিল। তাঁরা জন্মভূমি মক্কার কথা স্মরণ করে আবেগে আপ্লুত হয়ে কবিতা আবৃত্তি করতে লাগলেন। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাহাবিদের মনের এ দুরবস্থা দেখে প্রাণভরে দোয়া করলেন, ‘হে আল্লাহ! আমরা মক্কাকে যেমন ভালোবাসি, তেমনি তার চেয়েও বেশি মদিনার ভালোবাসা আমাদের অন্তরে দান করুন।’ বুখারি।

মহান মুক্তিযুদ্ধে ওলামায়ে কিরাম, পীর-মাশায়েখদের অবদান ও আত্মত্যাগকে অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। আলেমসমাজের সঙ্গে রাজাকার-আলবদর বা মতলববাজ ধর্মব্যবসায়ী রাজনীতিকদের এক করে দেখাও ইতিহাস বিকৃতির শামিল। আল্লাহ সবাইকে সুমতি দান করুন। আমাদের স্বাধীনতা এসেছে রক্তের বিনিময়ে। এ স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বকে আল্লাহ হেফাজত করুন। আমাদের দেশকে আরও এগিয়ে নিন।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।