প্রতিটি দিকে জননেত্রী শেখ হাসিনার নজর আছে

25

চুয়াডাঙ্গায় প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা বিতরণকালে এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার
নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গায় ৩৫০ জন পরিবহন শ্রমিকের মধ্যে মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল রোববার বেলা ১১টায় শহরের ভিজে স্কুল ফুটবল মাঠে (চাঁদমারী মাঠ) চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব উপহার বিতরণ করেন। এ সময় প্রত্যেককে ১০ কেজি চাল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি পেঁয়াজ ও ১ কেজি মসুরির ডাল, ১ লিটার সয়াবিন তেল, ১ কেজি চিনি ও ১ প্যাকেট সেমাই মানবিক সহায়তা হিসেবে প্রদান করা হয়।
জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনিরা পারভীন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আবু তারেক, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) সাজিয়া আফরীন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান ও চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু জিহাদ খান।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন বলেন, এমন কোনো দিক নেই, যেদিকে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নজর নেই। এই দেশের প্রতিটি দিকে তিনি খেয়াল রাখেন। প্রত্যেকটি মানুষের কথা ভাবেন। লকডাউনে পরিবহন বন্ধ। শ্রমিকের কথাও তিনি ভেবেছেন। তিনি আরও বলেন, ‘রোগ কারো আত্মীয় হয় না। করোনাভাইরাস সবার হচ্ছে। তাই সবাইকেই সতর্ক থাকতে হবে। দেশে লকডাউন দেওয়া হয়েছে সাধারণ মানুষের স্বার্থে। কথা-বার্তা চলছে, পরিবহন দ্রুতই চালু করা হবে। আমাদের পাশের দেশ ভারতে যেভাবে রোগ ছড়াচ্ছে, তা কিন্তু সত্যিই চিন্তার বিষয়। আমরা বর্ডার এলাকার মানুষ। ভারতের অবস্থা কেমন হয়েছে, পত্র-পত্রিকায় দেখছেন তো। আমরা যেন ওই রকম বিপদে না পড়ি, সেজন্য আমাদের সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।’
সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, ‘দীর্ঘ করোনাকালীন সময়ে গত বছরও সরকার সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। খুব খারাপ পরিস্থিতিও সরকার সুষ্ঠুভাবে মোকাবিলা করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী চিন্তায় এ দেশে এখনো কেউ না খেয়ে মারা যায়নি। প্রত্যেক অসহায়ের ঘরে খাবার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এবারও প্রধানমন্ত্রী মানবিক সহযোগিতা পাঠিয়েছেন। আপনাদের মাঝে সেগুলো বিতরণ করা হলো। আমাদের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সচেতন থাকতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। কোভিডে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা এখন মোটেও কম নয়। এটা দেখে হলেও আমাদের সচেতন হতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে, করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে হলে সবথেকে আগে সচেতন হওয়া প্রয়োজন। যারা স্বাস্থ্যবিধি মানতে চাচ্ছেন না, তারাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। মাস্ক পরাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে।’
চুয়াডাঙ্গা কালেক্টরেটের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাবিবুর রহমানের পরিচালনায় এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন নেজারত ডেপুটি কালেক্টর আমজাদ হোসেন, সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শিবানী সরকার, শাহিদুল আলম প্রমুখ।