চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ১ নভেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পুলিশকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস সম্ভব নয় -এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ১, ২০২০ ১০:৩৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

‘মুজিববর্ষের মূলমন্ত্র, কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র’ প্রতিপাদ্যে চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উদ্যাপন
সমীকরণ প্রতিবেদন:
চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহে নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে কমউিনিটি পুলিশিং ডে-২০২০ উদ্যাপন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার পৃথকস্থানে পুলিশিং ডে উদ্যাপন উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এবার কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০-এর প্রতিপাদ্য ছিলো ‘মুজিববর্ষের মূলমন্ত্র, কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র’।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০ উদ্যাপন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় এ উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা বড় বাজার শহীদ হাসান চত্বর থেকে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়। এর আগে শহীদ হাসান চত্বরে কবুতর ও বেলুন উড়িয়ে দিবসের উদ্বোধন করেন অতিথিরা। পরে শিল্পকলা একাডেমি চত্বরের মুক্তমঞ্চে পুলিশ সুপার ও জেলা কমিউনিটি পুলিশিং-এর প্রধান উপদেষ্টা জাহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার বলেন, আমরা ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার কাজ করে যাচ্ছি। এই কাজে পুলিশ আমাদের সহযোদ্ধা। পুলিশের ইতিহাস অনেক গৌরবোজ্জ্বল। পুলিশকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস লেখা সম্ভব নয়। কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রমের মাধ্যমে পুলিশি সেবা আরো সহজ হয়েছে। পুলিশ এখন সাধারণ মানুষের বন্ধু। তাই আগের ধারণা পাল্টে গেছে। মানুষের ভরসাস্থল এখন পুলিশ। মানুষ যেকোনো সমস্যা নিয়ে এখন থানায় যায়। জেলা পর্যায়সহ প্রত্যেক ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলায় কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম আছে। যেখানে বিট পুলিশিং-এর মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে পুলিশি সেবা দেওয়া হচ্ছে। এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার আরও বলেন, পুলিশের পক্ষপাতিত্ব করা যাবে না। আপনাদের প্রশংসনীয় অনেক ভূমিকা আছে। আপনারা মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে অনেক ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছেন। সাধারণ মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল পুলিশ। তাই পুলিশকে কাজে এবং কথায় মিল রাখতে হবে। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেয়েদের প্রাধান্য দিচ্ছেন। পুলিশ, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী সব স্থানেই নারীরা আছেন। আমরা অনেক দিবস পালন করি। শুধু আলোচনার মধ্যদিয়ে যেন সবকিছুর সমাপ্তি না ঘটে। কার্যকরি পদক্ষেপ নিতে হবে।
আগামী প্রজন্মকে সুচারুভাবে গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার আরও বলেন, যারা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তারা যদি মাদকাসক্ত হয়ে যায়, তাহলে আগামী নিয়ে চিন্তার বিষয় আছে। আপনার সন্তান কী করছে খোঁজ নিতে হবে। উচ্ছৃঙ্খল হলে পুলিশের কাছে এনে দেন, তাঁরা ঠিক করে দিবে। পুলিশ কন্ট্রোল করে দিবে তাদেরকে। ইদানিং একটা জিনিস লক্ষ্য করছি, রাস্তায় কিছু যুবক এমনভাবে মোটরসাইকেল চালিয়ে বেড়ায়, এই রাস্তা যেন তার বাবার। ভদ্রতা শিখতে হবে। তাই আগামী প্রজন্মকে সুচারুভাবে গড়ে তুলতে হবে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধ্বংস করা যাবে না।

অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য দেন, চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগর টগর। তিনি বলেন, কেউ আপনার দপ্তরে গেলে তার সাথে একটু হাসি মুখে কথা বলাসহ ভাই বসেন বললেই সে অনেক খুশি হয়। দেখবেন তখন সে মন খুলে সব কথা বলবে। আমাদের আচরণে পরির্বতন আনতে হবে। মানসিকতার পরিবর্তন জরুরি। জননেত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে নিরলসভাবে কাজ করছেন। তিনি পুলিশকে যুগোপযোগী করছেন। আগে পুলিশের তেমন কোনো ফ্যাসালিটিজ ছিলো না। এখন বাংলাদেশ পুলিশের সবকিছু আছে। প্রধানমন্ত্রী পুলিশে নানা-রকম ভাতা দিয়েছেন। এটা অতীতে ছিলো না। ভাতা বলতে কী জিনিস আগে আমরা সেটা বুঝতাম না। আজকে সকল ক্ষেত্রে ভাতা দিচ্ছে। পুলিশের মর্যাদা বৃদ্ধি করা হয়েছে। আজকে উন্নয়ন হচ্ছে বলেই, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ নির্মূল করা সম্ভব হচ্ছে। পুলিশকে সততার সাথে কাজ করতে হবে।
প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে বক্তব্য দেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। তিনি বলেন, কাউকে পিছিয়ে রেখে উন্নয়ন সম্ভব না। নারীদের সকল ক্ষেত্রে রাখা হচ্ছে। কমিউনিটি পুলিশিং-এ নারীরা আছেন। তাঁদের কথা শুনতে হবে। নারীরা যেন আলোচনা করতে পারে। সরকার যে উদ্দেশ্য নিয়ে কমিউনিটি পুলিশিং করেছে, সে উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করতে হবে। জনগণের সম্পৃক্ততা বাড়াতে হবে। মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করতে হবে। আমরা ইতিমধ্যে আলমডাঙ্গা উপজেলাকে মাদকমুক্ত করার পরিকল্পনা করেছি। একে-একে পুরো জেলাকে মাদকমুক্ত ঘোষণা করা হবে। জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসবাদ দূরীকরণে পুলিশের ভূমিকা অনেক বেশি। আজকে বাংলাদেশের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু ও জেলা কমিউনিটি পুলিশিং-এর সদস্যসচিব মো. মনিরুজ্জামান। চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মুন্সি আবু সাঈফের প্রাণবন্ত উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন কমিউনিটি পুলিশিং-এর সদস্য অ্যাড. মোল্লা আব্দুর রশিদ ও নুঝাত পারভীন। পরে, অতিথিরা কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০ উপলক্ষে কেক কাটেন। এসময় অনুষ্ঠানস্থল থেকে তিনজন দুঃস্থ ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তির মধ্যে হুইল চেয়ার, চশমাসহ সহায়তা সামগ্রী বিতরণ করা হয়।
মেহেরপুর
“মুজিববর্ষের মূলমন্ত্র-কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে নিয়ে মেহেরপুর জেলা পুলিশ এর আয়োজনে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০ পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষে মেহেরপুর পুলিশ লাইন্স থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি মেহেরপুর পুলিশ লাইন্স থেকে শুরু করে নুর ফিলিং স্টেশন মোড় ঘুরে আবারও পুলিশ লাইন্সে এসে র‌্যালিটি শেষ হয়।পরে পুলিশ লাইন্স মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় কবুতর ও বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি খুলনা রেঞ্জ’র অতিরিক্ত ডিআইজি বিপিএম (অপারেশন এন্ড ক্রাইম) একেএম নাহিদুল ইসলাম।
আলোচনা সভায় মেহেরপুর পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলির সভাপতিত্বে এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল আলমের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, মেহেরপুর জেলা জজকোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ও জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. পল্লব ভট্টাচার্য, পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস, মেহেরপুর জেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি ডা. আবুল বাশার, সাধারণ সম্পাদক আসকার আলী প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে সেরা পুলিশ কর্মকর্তা ও সেরা কমিউনিটি পুলিশিং এর সদস্যর হাতে ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট তুলে দেন মেহেরপুরের পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলি। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মেহেরপুর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ দারা খান, মেহেরপুর গোয়েন্দা ডিবি পুলিশের অফিসার ইনচার্জ জুলফিকার আলী, গাংনী থানার অফিসার ইনচার্জ ওবায়দুর রহমান, মুজিবনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাসেম, আমঝুপি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন আহমেদ চুন্নু, আমদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনারুল ইসলাম, বুড়িপোতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহাজামান প্রমুখ।
মুজিবনগর
‘পুলিশই জনতা, জনতাই পুলিশ’ “মুজিববর্ষের মূলমন্ত্র-কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে মুজিবনগরে করোনা সচেতনতায় মাস্ক বিতরণ, র‌্যালি ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে পালন করা হয়েছে কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০। মুজিবনগর থানা পুলিশের আয়োজনে গতকাল শনিবার বিকেলে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষে র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি মুজিবনগর থানা চত্বর থেকে শুরু করে উপজেলা পরিষদ হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় থানা চত্বরে এসে শেষ হয়। মুজিবনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাশেমের নেতৃত্বে র‌্যালিতে অংশ নেন মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মহাজনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমাম হোসেন মিলু, মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাগোয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেন, মুজিবনগর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শরিফুল ইসলাম, বাগোয়ান ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মধু, দারিয়াপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি মুস্তাকিম হক খোকন কমান্ডার, মুজিবনগর উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি তকলিমা খাতুনসহ উপজেলা, ইউনিয়ন আ.লীগের নেতৃবৃন্দ ও মুজিবনগর থানার পুলিশ সদস্যরা র‌্যালিতে অংশ নেন। পরে মুজিবনগর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা কামরুল হাসান চাঁদুর সঞ্চালনায় থানা চত্বরে কমিউনিটি পুলিশিং ডে ২০২০ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
গাংনী অফিস:
মেহেরপুরের গাংনীতে কমিউনিটি পুলিশিং দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার “মুজিববর্ষের মুলমন্ত্র-কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র” এই প্রতিপাদ্যে কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০ উৎযাপন উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভার অয়োজন করে গাংনী থানা পুলিশ। গতকাল শনিবার বিকেলে গাংনী থানা চত্ব¡র থেকে র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।
গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং ওসি তদন্ত সাজেদুল ইসলাম এর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, গাংনী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক।
বিশেষ অতিথি ছিলেন, গাংনী উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর সভাপতি ও গাংনী উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট একেএম শফিকুল আলম, জেলা পরিষদ সদস্য মজিরুল ইসলাম, গাংনী প্রেসক্লাব সভাপতি প্রভাষক রমজান আলী, জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি ও বামুন্দী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বিশ্বাস।
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা আ.লীগের ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান রানা, মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল আহমেদ, সাহারবাটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক, রাইপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন সেপু, গাংনী উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক নাজমুল হুদা বিশ্বাস, গাংনী পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবুসহ আ.লীগ ও অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। আলোচনা সভায় বক্তারা কমিউনিটি পুলিশিং এর বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা করেন।
ঝিনাইদহ:
‘মুজিববর্ষের মূলমন্ত্র-কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র’ স্লোগানকে সামনে রেখে কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষে ঝিনাইদহে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে ঝিনাইদহ জেলা পুলিশের আয়োজনে পুলিশ লাইন্সে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, পুলিশ বিভাগ ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা অংশ নেন। এসময় জেলা পুলিশ সুপার মুনতাসিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কনক কুমার দাস, কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাইয়ুম শাহারিয়ার জাহেদী হিজলসহ অন্যরা বক্তব্য দেন। বক্তরা তাদের বক্তব্যে জেলায় মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও নারী নির্যাতনসহ সব প্রকার অপরাধমুলক কর্মকা- থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি অপরাধ দমনে পুলিশকে সহযোগিতা করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।