পিছিয়ে পড়েও ইউরোপা লীগ জিতল সেভিয়া

101

খেলাধুলা প্রতিবেদন
২০১৫-১৬ মৌসুমেও সেভিয়া ইউরোপা লীগ জিতেছিল পিছিয়ে পড়ে। এবারো ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প লিখে রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের দ্বিতীয় সেরা প্রতিযোগিতার শিরোপা ঘরে তুলল স্প্যানিশ ক্লাবটি। জার্মানির কোলনে শুক্রবারের ফাইনালে ইন্টার মিলানকে ৩-২ গোলে হারায় হুলেন লোপিতেগির দল। ছয়বার ইউরোপা লীগের ফাইনাল খেলে প্রত্যেকবারই শিরোপা জিতল সেভিয়া। ম্যাচে খলনায়ক হতে গিয়েও বেঁচে গেছেন সেভিয়ার ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার দিয়েগো কার্লোস। বনে গেছেন নায়ক। ইন্টারের বেলজিক স্ট্রাইকার রোমেলু লুকাকুর ক্ষেত্রে ঘটেছে উল্টো। ম্যাচের শুরুতে ছিলেন নায়ক। শেষে আবার খলনায়ক। ম্যাচের পঞ্চম মিনিটে ডি বক্সে লুকাকুকে ফাউল করে বসেন কার্লোস। সফল স্পটকিক থেকে ইন্টারকে এগিয়ে দেন লুকাকু। চলতি মৌসুমে সব মিলিয়ে লুকাকুর এটি ৩৪তম গোল। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর ইউরোপীয় প্রতিযোগিতার নকআউট পর্বে টানা ছয় ম্যাচে গোল পেলেন তিনি। দ্বাদশ মিনিটেই সমতায় ফেরে সেভিয়া। হেসুস নাভাসের ফ্রিকিক থেকে ডাইভিং হেডে বল জালে জড়ান সেভিয়ার ডাচ স্ট্রাইকার লুক ডি ইয়ং। ৩৩তম মিনিটে আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার এভার বানেগার ক্রসে আরেকটা দুর্দান্ত হেডে সেভিয়াকে এগিয়ে দেন ডি ইয়ং। সেমিতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে বদলি হিসেবে নেমে গোল করে সেভিয়াকে ফাইনালে তুলেছিলেন। ফাইনালে একাদশে সুযোগ পেয়ে সেটা কাজে লাগাতে ভুল করলেন না। সেভিয়ার জার্সিতে শেষ ম্যাচ খেলা বানেগা শেষটা রাঙালেন দারুণভাবে। ৩২ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার যোগ দেবেন কাতারি ক্লাব আল শাবাবে। সমতায় ফিরতে সময় নেয়নি ইন্টার। ৩৫ মিনিটে আবারো লুকাকুকে ফাউল করে বসেন কার্লোস। ব্রজভিচের ফ্রিকিক থেকে উরুগুইয়ান ডিফেন্ডার দিয়েগো গদিনের ফ্লিক জালে জড়ালে ২-২ গোলে সমতা ফেরে ম্যাচে।