চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ১৩ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পাকিস্তানে নতুন মন্ত্রিসভায় থাকছেন কারা

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
এপ্রিল ১৩, ২০২২ ২:৩৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন:

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন পাকিস্তান মুসলিম লিগ (এন) নেতা শাহবাজ শরিফ। বিরোধী দলগুলোর প্রতিনিধি নিয়ে ফেডারেল সরকারের ক্যাবিনেট গঠনে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। গতকাল রাতেই মন্ত্রিসভা অনেকাংশে চূড়ান্ত হওয়ার খবর দিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো। মুসলিম লিগের নেতাদের বরাত দিয়ে গণমাধ্যমের খবর, ধারণা করা হচ্ছে শাহবাজের দল থেকে ১২ জনকে মন্ত্রিসভায় রাখা হবে। বিলাওয়ালের নেতৃত্বাধীন ৭ জন এবং জমিয়তকে চারটি মন্ত্রণালয় দেওয়া হতে পারে।  অন্য দলগুলোকে একটি করে মন্ত্রিত্ব দেওয়া হবে। বিলাওয়াল ভুট্টোকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী করা হতে পারে। পিএমএল-এনের নেতা রানা সানাউল্লাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হতে পারেন। আর তথ্যমন্ত্রী করা হতে পারে একই দলের মরিয়ম আওরঙ্গজেবকে। শাজিয়া মুরির নামও মন্ত্রিসভায় যুক্ত হতে পারে। গত সপ্তাহে এক সাক্ষাৎকারে পিপিপি চেয়ারম্যান বিলাওয়াল বলেন, মন্ত্রিসভায় তার ভূমিকা কী হবে, তা দল ঠিক করবে। সূত্র জানায়, পিএমএল-এন থেকে খাজা আসিফ, সাদ রফিক, খুররম দস্তগীর, আহসান ইকবাল, মরিয়ম আওরঙ্গজেব, শায়েস্তা পারভেজ মালিক, রানা সানাউল্লাহ ও মুর্তজা জাভেদ মন্ত্রিসভায় থাকতে পারেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহসিন দাওয়ার ও আসলাম ভুটানি এবং পিএমএল-কিউয়ের তারিক বাশির চিমারও মন্ত্রী হতে যাচ্ছেন বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে। সম্ভাব্য নামগুলোর মধ্যে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটের নেতা আজম নাজির তারার কথাও বিবেচনা করা হচ্ছে। সিনেট থেকে শেরি রেহমান বা মুস্তফা নওয়াজ খোখার মধ্যে একজনকে মন্ত্রিত্ব দিতে যাচ্ছে পিপিপি। অন্যদিকে, ক্ষমতাসীন জোটের অন্যতম শরিক জেইউআই-এফ বেলুচিস্তান অথবা খাইবার পাখতুনখাওয়ার গভর্নরদের একজন তাদের দল থেকে নেওয়ার দাবি জানিয়েছে। আর পাঞ্জাবের গভর্নর হবেন পিপিপি থেকে আর সিন্ধর গভর্নর হবেন এমকিউএম-পি থেকে।

আজ ইমরান খানের বিক্ষোভ র‌্যালি: আজ পেশোয়ারের র‌্যালিতে অংশ নেবেন সদ্য পদচ্যুত ইমরান খান। টুইটারে এ ঘোষণাও দিয়েছেন পাকিস্তানের সদ্য সাবেক হওয়া এই প্রধানমন্ত্রী। অনাস্থা ভোটে প্রধানমন্ত্রিত্ব হারানো তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ইমরান খান শিগগিরই নির্বাচন চান। টুইট বার্তায় দ্রæত নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানিয়ে ইমরান খান বলেন, আমরা অতি দ্রæত নির্বাচন দেওয়ার দাবি করছি। নির্বাচনই এগিয়ে যাওয়ার একমাত্র উপায়। দেশের জনগণ কাকে নিজেদের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় সেই সিদ্ধান্ত যেন তারা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে নিতে পারে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।