পাকিস্তানে দুই ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ৫১

19

পাকিস্তানের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ সিন্ধুতে দুটি যাত্রীবাহী ট্রেনের মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫১ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে শতাধিক মানুষ। দুর্ঘটনার ২৪ ঘণ্টা পার হলেও শেষ হয়নি উদ্ধারকাজ। ফলে প্রাণহানি আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে প্রশাসন।

সোমবার স্থানীয় সময় সকালে সিন্ধুর ঘোটকি জেলার দারকি শহরের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা। দুর্ঘটনার সময় ট্রেন দুটিতে প্রায় ১ হাজার ৪০০ আরোহী ছিলেন।

পাকিস্তানের রেলওয়ে বিভাগের এক মুখপাত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, মিল্লাত এক্সপ্রেস করাচি থেকে সারগোদা যাওয়ার পথে লাইনচ্যুত হয়ে ডাউন ট্রাকে চলে যায়, এ কারণে রাওয়ালপিন্ডি থেকে আসা স্যার সৈয়দ এক্সপ্রেসের সঙ্গে এটির সংঘর্ষ ঘটে।

স্থানীয় রাইতি রেলওয়ে স্টেশনের কাছে ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানিয়েছেন ওই মুখপাত্র।

জানা গেছে, দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের পরিবার প্রতি ১৫ লাখ রুপি করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসন।

ঘোটকির এএসপি উমর তুফাইল জানান, ঘণ্টার পর ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়েও অনেক বগির ধ্বংসস্তূপে ঢোকা যায়নি। একটি বগিতেই অন্তত ২৫ জন আটকে আছেন বলে জানতে পেরেছেন তারা। ঘটনাস্থলে উদ্ধারকাজ এখনো চলছে। এ কাজে সহযোগিতা করছেন সেনা ও আধা-সামরিক বাহিনীর সদস্যরাও।

ঘোটকির ডেপুটি কমিশনার (ডিসি) উসমান আব্দুল্লাহ বলেন, উল্টে পড়া বগিগুলো থেকে লোকজনকে উদ্ধারে বেগ পেতে হচ্ছে এবং মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে পারে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় ১৩ থেকে ১৪টি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে আর ছয় থেকে আটটি বগি ‘পুরোপুরি ধ্বংস’ হয়ে গেছে। এখনো আটকা পড়ে থাকা লোকজনকে বের করে আনা উদ্ধারকারী কর্মকর্তাদের জন্য ‘চ্যালেঞ্জ’ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানান তিনি।