চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ২৮ মার্চ ২০১৮
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার গুরুত্ব

সমীকরণ প্রতিবেদন
মার্চ ২৮, ২০১৮ ৯:২৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ধর্ম ডেস্ক: হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘পবিত্রতা ইমানের অর্ধেক।’ দৈহিক রোগব্যাধি থেকে মুক্ত থাকতে হলে দেহকে পরিচ্ছন্ন রাখতে হয়, কাপড়-চোপড় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হয়, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন খাবার খেতে হয়। মনোদৈহিক রোগ থেকে বেঁচে থাকার অন্যতম প্রধান চাবিকাঠি পবিত্র মন। এ প্রসঙ্গে কোরানে কারিমের একাধিক স্থানে গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘অবশ্যই আল্লাহ তওবাকারীদের ভালোবাসেন এবং যারা পবিত্র থাকে, তাদেরও ভালোবাসেন।’ -সূরা বাকারা: ২২২ আধুনিক বিজ্ঞানও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করেছে। এতে রোগ-বালাইয়ের প্রবণতা যেমন কমে, তেমন সুস্থ জীবনযাপন করা অনেক সহজ হয়। আধুনিক যুগের এই ধ্যান-ধারণা পবিত্রতা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কিত ইসলামের মৌলনীতির অনুসরণ মাত্র। তাই দৈহিক পরিচ্ছন্নতার ক্ষেত্রে সর্বদা আমাদের হাত, মুখ, চোখ, মাথা, পোশাক-পরিচ্ছদ, পরিবেশ থেকে শুরু করে খাদ্য ও পানীয়ের পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে জরুরি দৃষ্টি রাখা দরকার। আমরা হাত দিয়ে খাবার গ্রহণ করি, চোখ-মুখ মুছি এবং প্রয়োজনবোধে মুখগহ্বরে হাত দিই। আবার হাত দ্বারা ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করে থাকি। তাই হাত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘তোমাদের কেউ ঘুম থেকে উঠে হাত তিনবার না ধুয়ে যেন কোনো পাত্রে হাত না ঢোকায়।’ মুখ দিয়ে খাদ্যদ্রব্য ও পানীয় দেহে প্রবেশ করে। সে জন্য মুখ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা খুবই জরুরি বিষয়। মুখের ভেতর কোনো সংক্রমণ হলে তা খাদ্যনালিতে ছড়িয়ে পড়ে এবং তা মারাত্মক অবস্থার সৃষ্টি করে। অপরদিকে চোখ হচ্ছে আল্লাহর অন্যতম বড় একটি নিয়ামত। এরও যতœ নেয়া জরুরি। মাথার ত্বকের অপরিচ্ছন্নতা থেকে নানাবিধ রোগ-ব্যাধির জš§ হতে পারে। এ জন্য মাথার ত্বক এবং চুল পরিষ্কার রাখা জরুরি। এ বিষয়ে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যার মাথায় চুল আছে, সে যেন তার পরিচর্যা করে।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।