চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ২ জানুয়ারি ২০১৮
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পদমর্যাদা ও টেকনিক্যাল বেতন স্কেলসহ চার দফা দাবী

সমীকরণ প্রতিবেদন
জানুয়ারি ২, ২০১৮ ১১:৫১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর ও মেহেরপুরে স্বাস্থ্য সহকারিদের কর্মবিরতি পালন
সমীকরণ ডেস্ক: চুয়াডাঙ্গার জীবননগর ও মেহেরপুরে চার দফা দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছে স্বাস্থ্য সহকারিরা। গতকাল সোমবার এ কর্মসুচি পালন বাংলাদেশ হেলথ এ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন।
জীবননগর অফিস জানিয়েছে, জীবননগরে টেকনিক্যাল বেতন স্কেল ও পদমর্যাদাসহ ৪ দফা দাবিতে টেকনিক্যাল কর্মকর্তাদের কর্মবিরতি কর্মসূচি পালিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ৮টার সময় জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রাঙ্গনে উপজেলা টেকনিক্যালের এইচআই কর্মকর্তা শরিফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ৪ দফা দাবি আদায়ের লক্ষে উপজেলার সকল টেকনিক্যাল কর্মকর্তারা কর্মবিরতি ও আলোচনা সভা করেন। এ সময় সকলে ৪ দফা দাবি তুলে বক্তারা বলেন, ১৯৯৮ সালের ৬ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা বাস্তবায়ন চাই। টেকনিক্যাল কাজ করি, টেকনিক্যাল বেতন স্কেল চাই। টেকনিক্যাল বেতন স্কেলসহ পদমর্যাদা দিতে হবে। মাঠ ভ্রমণ ভাতা ও ঝুঁকি ভাতা মুল বেতনের ৩০% হারে দিতে হবে। প্রতি ৬ হাজার জনগোষ্টির জন্য ১ জন করে স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগ দিতে হবে এবং ১০% পোষ্য কোটা করতে হবে। এ সময় বক্তব্য রাখেন এএইচআই সদস্য সচিব মুন্সী আ. সবুর, এইচএ কর্মকর্তা মোকতেদা, আনিছুর রহমান, আতিকুর রহমান, নাদিরশাহ, সাইফুল, মশিয়ার, বিলকিস, আছমা, রজিনা, সালমা, শাহিনা, নুরজাহান, নুরুল, রোকেয়া, সেলিনা আশরাফ, রহিমা প্রমুখ। উক্ত অনুষ্ঠানটি সার্বিক পরিচালনা করেন নুরুল ইসলাম।
মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, টেকনিক্যাল পদমর্যাদাসহ চার দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সারা দেশের ন্যায় মেহেরপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি পালন করেছে বাংলাদেশ হেলথ এ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ে সামনে তারা অবস্থান কর্মবিরতি পালন করে। এতে নেতৃত্ব দেন হেলথ এ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন মেহেরপুর জেলা শাখার সভাপতি তোফাজ্জেল হোসেন। উপস্থিত ছিলেন জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেনসহ জেলার সকল স্বাস্থ্য সহকারীরা। এ সময় বেতন স্কেলসহ টেকনিক্যাল পদমর্যাদা, অন্যান্য ভাতাদি, স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগসহ পোষ্য কোটা বাস্তবায়নের দাবি জানান তারা। স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতির ফলে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষ দূর্ভোগের শিকার হন।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।