চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৯ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নির্বাহী কমিটির বিভিন্ন পদে রদবদল করছে বিএনপি

দলের শৃঙ্খলা ফেরাতে কঠোর হাইকমান্ড
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
এপ্রিল ৯, ২০২২ ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন:

দলের জাতীয় নির্বাহী কমিটির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে রদবদল করছে বিএনপি। এ ক্ষেত্রে কাউকে পদোন্নতি কাউকে পদাবনতি দেয়া হচ্ছে। সম্প্রতি বিএনপির একজন আন্তর্জাতিক সম্পাদকের পদাবনতি ও দু’জনের পদোন্নয়ন এবং নির্বাহী কমিটিতে দুইজন নতুন মুখ যুক্ত হয়েছে। বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সাথে আলোচনা করে কিংবা কখনো চেয়ারম্যান গঠনতন্ত্রের ক্ষমতাবলে এসব রদবদল করেন। এ ছাড়া দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে কেউ শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থাও নিচ্ছে বিএনপি। মূলত দলীয় শৃঙ্খলা ঠিক রাখতে কঠোর অবস্থানে বিএনপির হাইকমান্ড। এ দিকে নিষ্ক্রিয় এবং দলীয় কর্মসূচিতে উপস্থিত না হওয়া নেতাদের পদ থেকে অব্যাহতিও দিচ্ছে বিএনপি। দলটির নীতিনির্ধারকদের মতে, আগামীতে যেকোনো পর্যায়ের নির্বাচনে মনোনয়নের ক্ষেত্রেও তাদের কম গুরুত্ব দেয়া হবে।

জানা গেছে, সম্প্রতি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে টানা কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। এর বাইরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে একাধিক কর্মসূচি পালন করেছে দলটি। এসব কর্মসূচিতে কেন্দ্র ও তৃণমূলের যেসব নেতার কম উপস্থিতি বা মোটেও উপস্থিত ছিলেন না, তাদের তালিকা করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া যেসব উপজেলা ও জেলায় কর্মসূচি পালিত হয়নি তারও একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। ওইসব জায়গায় কোনো কর্মসূচি পালিত না হওয়ার পেছনে নেতাদের কোনো গাফিলতি ছিল কিনা সে বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজ নেয়া হচ্ছে।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, দলের পদোন্নতি, পদাবনতি বা নতুন কাউকে দায়িত্ব দেয় বিএনপির হাইকমান্ড। এটা একটা চলমান প্রক্রিয়া। তারই অংশ হিসেবে দলের প্রয়োজনে কাউকে নতুনভাবে পদ দেয়া হয়। আবার কাউকে পদোন্নতি বা পদাবনতি দেয়া হয়। ২০১৬ সালের ১৯ মার্চ বিএনপির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের কয়েক মাস পর ৫৯২ সদস্যের জাতীয় নির্বাহী কমিটি ঘোষণা করা হয়। যা বেড়ে এখন ৬০১ সদস্যের হয়েছে। যদিও কয়েকজন মৃত্যুবরণ করেছেন। দলের কয়েকজন নেতা বলেন, কমিটিতে অনেককে খুশি রাখতে পদ-পদবি দেয়া হয়। কিন্তু পদ পাওয়ার পর অনেকে ব্যবসা-বাণিজ্য আর নিজের কর্মজীবন নিয়ে ব্যস্ত ও দলে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। যা তৃণমূলে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। তারা বলেন, কিছু নেতাকর্মী শতভাগ কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে নিজের জীবন ও সম্পদ বিসর্জন দিচ্ছেন। কিন্তু একশ্রেণীর নেতাকর্মী শতভাগ কর্মসূচিতে অনুপস্থিত থেকেও সাংগঠনিক পদে বহাল আছেন। ফলে বিএনপির গণতান্ত্রিক আন্দোলন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। তাই নির্বাহী কমিটির কিছু পদে রদবদলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। এ ক্ষেত্রে নির্বাহী কমিটির যুগ্ম মহাসচিব এবং কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সম্পাদকীয় পদে শিগগিরই রদবদল হবে বলে জানা গেছে।

পদোন্নতি ও পদাবনতি:

জানা গেছে, গত ২২ মার্চ স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক তারিকুল ইসলাম তেনজিং এবং ছাত্রদলের সাবেক দফতর সম্পাদক আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারীকে জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য করা হয়। তারা দুইজনই বিএনপির কেন্দ্রীয় দফতরের সাথে সংযুক্ত থাকবেন। এ ছাড়া বেলাল আহমেদকে সহদফতর সম্পাদক পদ থেকে পদাবনতি দিয়ে সহ-গ্রাম সরকারবিষয়ক সম্পাদক পদে মনোনীত করেছে বিএনপি। গত ৫ এপ্রিল বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির দুই সদস্যের পদোন্নতি হয়েছে। জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আহমেদ আলী মুকিব (সৌদি আরব) পেয়েছেন আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক পদ। অপর দিকে আন্তর্জাতিক সম্পর্কবিষয়ক কমিটির সদস্যপদে থাকা মোহাম্মদ রাশেদুল হককে (অস্ট্রেলিয়া) সহ-আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক পদ দেয়া হয়েছে। এ দিকে গত ৫ এপ্রিল চার দলীয় জোট সরকারের সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আ ন ম এহসানুল হক মিলনকে দলের আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে পদাবনতি দিয়ে নির্বাহী সদস্য করা হয়েছে। সূত্র জানায়, দলের শীর্ষ নেতৃত্বের সাথে দূরত্বকে কেন্দ্র করে আ ন ম এহসানুল হক মিলনের পদাবনতি ঘটেছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুর-১ আসন থেকে মনোনয়নবঞ্চিত হওয়ার পর থেকেই দলের হাইকমান্ডের সাথে তার দূরত্ব সৃষ্টি হয় বলে জানা গেছে।

জানা যায়, দল পুনর্গঠনের অংশ হিসেবে নিষ্ক্রিয় নেতাদের মধ্যে কর্নেল (অব:) আনোয়ারুল আজিমকে কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে সরিয়ে মোস্তাক মিয়াকে পদায়ন করা হয়। স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা: মীর ফাওয়াজ হোসেন শুভকে সরিয়ে ডা: রফিকুল ইসলামকে পদায়ন করা হয়েছে। তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক শরীফ শাহ কামাল তাজকে সরিয়ে এ কে এম ওয়াহিদুজ্জামানকে পদায়ন করা হয়েছে। রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বিদেশে অবস্থান করায় আবদুল মমিন তালুকদার খোকাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। দলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদায়ন করা হয়েছে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সায়েদুল হক সাইদকে। ঢাকা বিভাগের সহসাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল কৃষক দলের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি হওয়ায় তার স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন সাবেক ছাত্রনেতা বেনজীর আহমেদ টিটো।

দলীয় শৃঙ্খলা ফেরাতে কঠোর বিএনপি:

এ দিকে দলের শৃঙ্খলা ফেরাতে কঠোর অবস্থানে বিএনপি। তারই অংশ হিসেবে গত ৬ এপ্রিল দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বিএনপি। গত ২৭ মার্চ জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘পেশাজীবী সমাজ’র ব্যানারে এক সমাবেশকে কেন্দ্র করে এই নোটিশ দিয়ে পাঁচ দিনের মধ্যে তার কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। জানা গেছে, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে গত ২৭ মার্চের ওই সমাবেশে শওকত মাহমুদ সভাপতিত্ব করেছিলেন। এর আগে তাকে ২০১৯ সালের ১৩ ডিসেম্বর দলীয় শৃঙ্খলা ভঙের অভিযোগে শোকজ করেছিল বিএনপি। সে সময় আরেক ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব:) হাফিজ উদ্দিন আহমেদকেও শোকজ করা হয়েছিল। এ ছাড়া গত ২৭ মার্চের পেশাজীবী সমাজের ব্যানারে অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ায় গত বৃহস্পতিবার দলের কৃষিবিষয়ক কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক চৌধুরী আব্দুল্লাহ ফারুককে শোকজ করে পাঁচ দিনের মধ্যে জবাব চেয়েছে বিএনপি। এর আগে দল এবং দলের শীর্ষ নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলায় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জুকেও পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে বিএনপি। তারও আগে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কুকে গত বছরের ১৪ ডিসেম্বর বহিষ্কার করেছে দলটি। দলীয় কর্মকা-ে অংশ না নেয়া, সরকারি দলের সাথে আঁতাত করে চলাসহ বিভিন্ন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে এই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয় বিএনপি।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।