দামুড়হুদায় মাদ্রাসাছাত্রকে একাধিকবার বলাৎকারের অভিযোগ

12

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দামুড়হুদায় বিভিন্নস্থানে নিয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রকে একাধিকবার বলাৎকারের অভিযোগ উঠেছে শামিম হোসেন (৩০) নামের এক ব্যক্তির ওপর। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে পরিবারের সদস্যরা বলাৎকারের শিকার মাদ্রাসাছাত্রকে সদর হাসপাতালের জরুরি বিভগে নেয়। জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি করে। অভিযুক্ত শামিম হোসেন দামুড়হুদা উপজেলার মোক্তারপুর গ্রামের মিনারুল ইসলামের ছেলে।
বলাৎকারের শিকার মাদ্রাসাছাত্রের মা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমাদের গ্রামের মিনারুল ইসলামের ছেলে শামিম দুই মাস পূর্বে বিভিন্নস্থানে নিয়ে আমার ছেলে পাঁচবার বলাৎকার করেছে। শামিমের ভয়ে ও কাউকে না বলার হুমকিতে ছেলে এতদিক আমাদেরকে কিছুই বলেনি। শুধু আমার ছেলে নয় গ্রামের অরও অনেক ছেলেকে সে বলাৎকার করেছে। গত মঙ্গলবার গ্রামের কয়েকজনের কাছে শুনতে পাই আমার ছেলের সঙ্গে ঘটে যাওয়া অপরাধের বিষয়ে। রাতে ছেলেকে জিজ্ঞাস করলে সে কাঁদতে কাঁদতে এ সকল ঘটনা খুলে বলে। ছেলে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে, সে এখনও সম্পূর্ণ সুস্থ নয়। আজ (গতকাল) সকালে ছেলেকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছি। আমি শামিমের শাস্তি চাই, আর কারও সঙ্গে সে যেন এই জঘন্য কাজ না করতে পারে।’
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. ওয়াহেদ মাহমুদ রবিন বলেন, ‘দুই মাস পূর্বে কয়েকবার বলাৎকারের শিকার হয়েছে এমন এক কিশোরকে তার মা জরুরি বিভাগে নিয়ে আসে। ভুক্তভোগী কিশোরের মা এ তথ্য দিয়েছে। জরুরি বিভাগ থেকে কিশোরের স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে ভর্তি রাখা হয়েছে।’
এ বিষয়ে দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল খালেক বলেন, ‘এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যহত রয়েছে। ভুক্তভোগীর মেডিকেল রিপোর্ট ও পুলিশি তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।’