চুয়াডাঙ্গা শুক্রবার , ৩ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দামুড়হুদায় অল্প লাভে ঋণ দেওয়ার নামে ফেয়ার সঞ্চয় সমবায় সমিতির প্রতারণা

গরীব কৃষকদের টাকা হাতিয়ে নিল প্রতারক চক্র!
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ৩, ২০২২ ৮:৫৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

মোজাম্মেল শিশির, দামুড়হুদা: চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলায় ‘ফেয়ার সঞ্চয় সমবায় সমিতি’ নামরে একটি এনজিও থেকে ঋণের টাকা দেওয়ার নামে এক প্রতারক চক্র উপজেলার রঘুনাথপুর ও লোকনাথপুর গ্রামের ১০-১২ জন গরীব কৃষকের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ভুক্তভোগী কৃষকরা ঋণের টাকা তুলেতে এসে দেখেন অফিসে তালাবদ্ধ। পরে মোবাইল ফোনে  যোগাযোগ করে তাদের কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। গত বুধবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, দামুড়হুদায় ফেয়ার সঞ্চয় সমবায় সমিতির তিনজনের এক প্রতারক চক্র রঘুনাথপুর গ্রামের সাধারণ মানুষের মাঝে এসে কম লাভে  এক বছরের জন্য এক লাখ টাকা ঋণ দেওয়া হবে বলে প্রচারণা চালায়। যার কোনো কিস্তি দেওয়া লাগবে না। বছরে একবারে পরিশোধ করতে হবে। এই মর্মে ১০ হাজার টাকা সঞ্চয় জমা করলে দুই দিন পরে এক লাখ টাকা ঋণ দেওয়া হবে। তাদের ফাঁদে পা দিয়ে রঘুনাথপুর গ্রামের হারুন, বদরউদ্দিন, ফজলু, ওহাব, আব্দুল্লাহ, শহিদুল গাফ্ফার, জাব্বার, লোকনাথপুর গ্রামের লিটন ও সুজন প্রত্যেকে ১০ হাজার টাকা করে সঞ্চয় জমা দেন। পরে গত বুধবার বিকেলে লোকনাথপুর গ্রামের মৃত বখতিয়ার হোসেনের ভাড়া বাসার অফিসে গিয়ে দেখেন ঘরে তালা মারা। পরে প্রতারক চক্রকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে দামুড়হুদা মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

লোকনাথপুর গ্রামের অফিস ভাড়া নেওয়া ওই বাড়ির মালিকের ভাতিজা বিপু জানান, ‘গত চারদিন আগে লিটন নামের একজন ব্যক্তি ফেয়ার সঞ্চয় সমবায় সমিতি অফিসার নামে পরিচয় দেন। এবং তারা বলেন আমাদের একটি অফিস দরকার। আপনার ঘরটি যদি ভাড়া দেন, তাহলে নিতাম। আমি ভাড়া দিতে ইচ্ছুক হলে তারা বলেন আপনার ঘরটি ডেকোরেশন করে দেন কাল ডিড করব। ওই দিনে তারা একটি সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেয়। সেখানে লেখা ছিল ফেয়ার সঞ্চয় সমবায় সমিতি, রেজিস্ট্রেশন নম্বর ০০১৪২/২০১৩, ঢাকা অফিস সেক্টর নং ৪, রোড নং ১৯, বাড়ি নং ২০, উত্তরা,  ঢাকা। পরদিন শুনছি তারা আর নেই। তাদের ০১৬১৬৭৩৫৮০২ নম্বরে আমার সাথে কথা হয়েছিল।’

দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, এ ঘটনায় একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।