চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ১৯ অক্টোবর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দামুড়হুদার মাঠজুড়ে শোভা পাচ্ছে শীতকালীন সবজি

সমীকরণ প্রতিবেদন
অক্টোবর ১৯, ২০২১ ৯:০৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

প্রতিবেদক, জয়রামপুর:
দামুড়হুদা উপজেলার বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে এখন শোভা পাচ্ছে শীতকালীন সবজি। যেদিকে চোখ যায়, সেদিকেই যেন শীতকালিন সবজির সমারহ। সবজি চাষে বদলে গেছে মাঠের দৃশ্যপট। চিরচেনা সবুজ দৃশ্য যেকোনো মানুষের নজর কাড়তে বাধ্য। কৃষকের অক্লান্ত পরিশ্রমে বেড়ে উঠছে শীতকালীন সবজি। কৃষকের হাসির ঝিলিক এখন মরিচের ডগায়। ধনে পাতা যেন সুভাস ছড়াচ্ছে তার আপন মনে। নীরবেই আলুর শরীর মোটা তাজা হচ্ছে মাটির নিচে। ভালোবাসতে হাত ছানি দিচ্ছে যেন ফুলকপির সাদা শরীর। চোখের আনন্দ যেন বাঁধাকপির সবুজ পাতায়। সবকিছু নিয়ে তাই সবজি পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে দামুড়হুদা উপজেলার প্রান্তিক কৃষকেরা।
সকালের শিশির ভেজা উপজেলার মাঠ ঘুরে দেখা মিলছে সবজির খেত। এসবের মধ্যে আছে লাউ, সিম, বরবটি, চালকুমড়া, বেগুন, চিচিঙ্কা, মেটে আলু, ঢ্যারস, শসা, পটল, গাজর, মুলা, মটরশুটি, করলা, উচতে, ফুলকপি, বাধাকপি, পালংশাক, ডাটাশাক, কলমি শাক, সরিষার শাক, পুদিনাপাতা শাক, মেথির শাকসহ নানা রকম শাসসবজি।
উপজেলার জয়রামপুর কুমারীদহ মাঠের একজন সবজি চাষি মো. মাহফুজ (২৫) শীতকালিন সবজি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, শীতকালে আবহাওয়া ভালো থাকে, যে কারণে শীতকালীন সবজিতে খরচের পরিমাণ কম হয় ফলন হয় ভালো। বিধায় অন্যন্যা সময়ের তুলনায় লাভের পরিমাণ খরচের তুলনায় বেশি করা যায়।
ডুগডুগি গ্রামের আরেক চাষি মো. রাশেদ বলেন (২৮) বলেন, ‘আমি তিন বিঘা সবজি চাষ করেছি, যেখানে ঝাল, বেগুন ও বাধাকপি আছে। আবহাওয়া অনুকূলে এবং পরিচর্যা ভালো করায় ভালো গাছ হয়েছে এবং ফলন ভালোর আশা করছি। এবং সেগুলো সংগ্রহ করে আমি বাজারজাত করছি লাভের পরিমাণ ভালো পাচ্ছি।’
উপজেলার বাস্তপুর গ্রামের আরেক চাষি আশাদুল হক (৩৫) বলেন, ‘আমি প্রতিবারেই অল্প অল্প করে শীতকালীন সবজি চাষ করি। কোনো কারণে একটি সবজিতে লোকসান হলে অন্য সবজিতে যেন পুষিয়ে নেওয়া যায়। পরিবারের সবজি চাহিদা মিটিয়ে আমি সেগুলো বাজারজাত করে প্রতিবারই আমার ভালো লাভ থাকে।’
দামুড়হুদা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মনিরুজ্জামানকে শীতকালিন সবজি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দামুড়হুদা উপজেলায় এ বছর শীতকালিন সবজির লক্ষ্যমাত্রা ২৬৬০ হেক্টর জমি এবং আমাদের অর্জন হয়েছে ২৯১১ হেক্টর জমি। তিনি আরও বলেন, এ বছর সবজির দাম ভালো থাকায় কৃষক ভালো লাভবান হচ্ছে এবং কৃষককে সবজি চাষে নানাবিধ পরিকল্পনা উপজেলা কৃষি অফিস থেকে নেওয়া হচ্ছে। এবং যেকোনো কৃষি সহযোগিতার জন্য উপজেলা কৃষি অফিস সর্বদা প্রস্তুত আছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।