চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৫ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দামুড়হুদায় কৃষকের তিন বিঘা জমির চায়না লেবুর গাছ কর্তন

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
মার্চ ৫, ২০২২ ৯:০৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

প্রতিবেদক, দামুড়হুদা:

দামুড়হুদায় উপজেলার লক্ষীপুরে শত্রুতামূলকভাবে সাড়ে তিন বিঘা জমির প্রায় ৪ শ টি চায়না লেবুর গাছ কেটে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে একই গ্রামের আবুল বাসারের বিরোধে। গত দুদিন আগে দিনের বেলায় এ গাছ কেটে দেওয়া হয়েছে বলে জানান ভুক্তভোগী।

জানা যায়, দামুড়হুদা উপজেলা সদরে মৃত সামসুল আলম ওরফে গটার ছেলে তরিকুল ইসলাম লিটন একই উপজেলার লক্ষীপুর গ্রামের মৃত নেহাল উদ্দীনের ছেলে আব্দুর রহমানের সাথে প্রায় ১২ বিঘা জমি ১০ বছর চুক্তিতে ভাগে চাষ করেন। এর মধ্যে এক বছর পূর্বে সাড়ে তিন বিঘা চায়না লেবু ও মালটা লেবুর গাছ লাগান তিনি। যার প্রতিটি গাছে ফুল চলে এসেছে। ঠিক এসময় সবার অজান্তে লক্ষীপুর গ্রামের আশরাফের ছেলে আবুল বাসার এই চায়না লেবুর গাছ কেটে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তরিকুল। এতে তরিকুলের প্রায় আড়ায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে।

লেবু বাগানের মালিক তরিকুল জানান, ‘আমি বিভিন্ন স্থানে লোন করে এই লেবু বাগানটি করি। সন্তান যেভাবে মানুষ করে, সেভাবে গাছগুলি মানুষ করেছি। আর এই মানুষ করা লেবুগাছগুলি লক্ষঢীপুর গ্রামের বাসার কেটে দিয়েছে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।’ লক্ষীপুর গ্রামের নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ব্যক্তি জানান, তরিকুল দীর্ঘদিন ধরে এ লেবুর চাষ করেছে। গ্রামের সবাই বলছে বাসার এ গাছ কেটে দিয়েছে।

এ বিষয়ে বাসারের সাথে কথা বললে তিনি জানান, ‘আব্দুর রহমান ভাই বিদেশে থাকে। সেখান ফোনের মাধ্যমে আমাকে জানায় লেবার দেখে জমিটি পরিস্কার করার জন্য। আমি লেবার দেখে দিয়েছিলাম। আমি তো গাছ কাটেনি। এবং গাছ কাটার প্রশ্নই ওঠে না।’

দামুড়হুদা উপজেলা কৃষি অফিসার মনিরুজ্জামান মনির বলেন, ‘ফলন্তগাছ কেটে দেওয়া একটি ফৌজদারি মামলার আওতায় পড়ে। এ ধরণের ন্যাক্কারজনক কাজ যে করেছে, সে ঠিক করেনি। জমির মালিক থানায় মামলা করার পরামর্শ দিয়েছি। আর এক কপি আমাদের কাছে অনুলিপি দিলে  আমারও বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।