দর্শনা শান্তিপাড়ায় প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে দীর্ঘদিনের পরকীয়া সাংবাদিক রাজু জনতার গণধোলাইয়ের শিকার!

1868

14322414_711371339010277_7597290814397819938_nনিজস্ব প্রতিবেদক: দর্শনা শান্তিপাড়ায় ঈদের আগের দিন অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় বেরসিক জনতার হাতে আটক ও গণধোলাই শিকার কথিত সাংবাদিক হারুন রাজু। বহু অপকর্মের হোতা আলোচিত হারুন রাজুর সাথে দর্শনা শান্তিপাড়ার প্রবাসী লিটনের স্ত্রী শাপলা খাতুনের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরকিয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে এবং দীর্ঘ ৫বছর তার সাথে অনৈতিক শারিরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। একপর্যায়ে ঈদের আগের দিন অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় জনতার হাতে আটক শেষে উত্তম মাধ্যমের শিকার হয়ে এই ঘটনা দর্শনায় টক অব দ্য টাউনে পরিণত হয়।
জানা গেছে, স্থানীয় দৈনিক মাথাভাঙ্গার দর্শনা ব্যুরো প্রধান এবং দর্শনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হারুন রাজু গত সোমবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে দর্শনা বাসষ্ট্যান্ড ভুট্টা ক্রয়কেন্দ্রের পাশে জনৈক এক ভাড়া বাড়ীতে অনৈতিক কাজে লিপ্ত অবস্থায় জনতার হাতে আটক ও গণধোলাইয়ের শিকার হয় এবং সংবাদ পেয়ে দর্শনা তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ এসে তাকে বিক্ষুদ্ধ জনতার হাত থেকে উদ্ধার করে নিরাপদ হেফাজতে নিয়ে যায়। এসময় উৎসুক জনতা হারুন রাজুর কাছ থেকে তিনটি বিদেশী কণ্ডম উদ্ধার করে পুলিশের নিকট হস্তান্তর করে। পূর্বেও এইধরণের একাধিক ঘটনায় তার জড়িত থাকার কারণে দর্শনাবাসীর কেউ কেউ হারুন রাজুকে কানকাটা রমজান নামে আখ্যায়িত করেছে। প্রবাসী লিটনের স্ত্রী শাপলা খাতুনের সম্্রাট (৭) ও রিমঝিম (১২) দুটি সন্তান আছে। এই শাপলা নিজের সন্তানদের সামনেই দীর্ঘদিন রাজুর সাথে অনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে গেছে। বহুল আলোচিত একাধিক নারি কেলেঙ্কারীর হোতা ৭ম শ্রেণী পাশ কথিত সাংবাদিক হারুন রাজু দর্শনা কেরুজ প্রাইমারী স্কুলপাড়ায় জনৈক ব্যক্তির ভাড়া বাড়ীতে এনে তুললে মহল্লাবাসী তাদের অনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখে শান্তিপাড়ার এই বাড়ী থেকে প্রবাসী লিটনের স্ত্রীকে তাড়িয়ে দিলে শাপলা তার বাপের জীবননগর কুলতলা কাশিপুরে চলে যায়। পরে মাস চারেক আগে কথিত সাংবাদিক হারুন রাজু দর্শনা বাসষ্ট্যান্ড এলাকার ভুট্টা ক্রয়কেন্দ্রের পাশে জনৈক ব্যক্তির বাড়ি ভাড়া নিয়ে লিটনের স্ত্রীকে রাখে এবং প্রায় নিয়মিত সেখানে যাতায়াত করতে থাকে। অনেকেই তাদের স্বামী-স্ত্রী মনে করতো। কিন্তু বেশ কিছুদিন আগে মহল্লাবাসী জানতে পারে শাপলা কথিত সাংবাদিক হারুন রাজুর দ্বিতীয় স্ত্রী নয় বরং শাপলা প্রবাসী লিটনের স্ত্রী। এলাকাবাসী সামাজিকভাবে হারুন রাজু ও শাপলকে এলাকা থেকে চলে যেতে বললে সে সাংবাদিকতার দম্ভ দেখিয়ে বলে আমার কেউ কিছু করতে পারবে না। এরই ধারাবাহিকতায় গত সোমবার বিকাল ৫ টার দিকে অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় বেরশিক জনতা সাংবাদিক রাজু ও প্রবাসীর স্ত্রীকে হাতে নাতে আটক করে। আটকের পরও সে এসব বেরসিক জনতাকে নানা রকম হুমকি দিতে থাকে। এ সময় স্থানীয়রা সাংবাদিক রাজুকে গণধোলাই দেয়। গণধোলাইয়ের সময় উৎসুক জনতা ছবি ও ভিডিও করে রাখে। ঘটনা মুর্হুতের মধ্যে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে শতশত নারি-পুরুষর ভীড় জমায়। এ সময় অবস্থার বেগতিক দেখে এলাকাবাসী দর্শনা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি শান্ত করে দ্রুত তাকে উদ্ধার করে দর্শনা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে যায়। এদিকে দর্শনাবাসী সাংবাদিক রাজুর বিচারের জন্য দৈনিক মাথাভাঙ্গার সম্পাদক ও দর্শনাা প্রেসক্লাবের সকল সাংবাদিক সদস্যের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার না হলে এলাকাবাসী বিচারের দাবীতে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করবে বলে জানাগেছে। ইতোমধ্যে হারুন রাজু নিজেকে রক্ষা করতে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও প্রভাবশালী লোকজনের কাছে  দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে। এছাড়া একটি মন বুঝাঁনো তদন্ত কমিটি করে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে বলে জানা গেছে।