দর্শনা কেরুজ চিনিকলের চুক্তিভিত্তিক শ্রমিক-কর্মচারিদের এরিয়া বিল করতে : মতিন ও তুফানের বিরুদ্ধ ঘুষ গ্রহনের অভিযোগে লিফলেট বিতরণ

370

দর্শনা অফিস: দর্শনা কেরুজ চিনিকলের চুক্তিভিত্তিক শ্রমিক-কর্মচারিদের এরিয়া বিলের কাগজপত্র প্রস্তুত করার নাম করে প্রত্যেকের কাছ থেকে প্রায় পাঁচশত টাকা উৎকোচ গ্রহনের অভিযোগ উঠেছে মতিন ও তুফানের বিরুদ্ধ। গত শনিবার গভীর রাতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কেরুজ ক্যাম্পাস এলাকা সহ বিভিন্ন দপ্তরে কে/কারা লিফলেট বিতরণ করেছে। গতকাল সকালে লিফলেটটি পাওয়া গেলে সবাই ধারনা করে শনিবার গভীররাতে হয়তো এই রিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। তবে, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে ভুক্তভোগী শ্রমিকেরা। কেরুজ ক্যাম্পাস এলাকায় চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ লিফলেট বিতরনের কারণে কেরুজ ক্যাম্পাস সহ দর্শনা পৌর এলাকা বিষয়টি টক অব দা টাউনে পরিনত হয়।
জানা গেছে, দর্শনা কেরুজ চিনিকলে চুক্তিভিত্তিক শ্রমিক-কর্মচারিদের এরিয়া বিলের কাগজপত্র প্রস্তুত করার নাম করে বেশ কয়েকজন শ্রমিক-কর্মচারির কাছ থেকে ৫শ টাকা করে উৎকোচ গ্রহন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে কেরুজ চিনিকলের বাণিজ্যিক খামারের বড় বাবু মতিন ও সংস্থাপন শাখার করনিক তুফানের বিরুদ্ধে। এদিকে কেরুজ চিনিকলের কয়েকজন শ্রমিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ২০১৬ সালে সরকার ঘোষিত বেতন স্কেল অনুযায়ি বেতন বাড়লে চুক্তিভিত্তিক শ্রমিক-কর্মচারিদের এরিয়া বিল নির্ধারিত হয়। বেতন বাড়ার পর তাদের জন্য এরিয়া বিলের ব্যবস্থা করেন কেরুজ চিনিকল কর্তৃপক্ষ। নিয়ম অনুযায়ী মিলের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ ও শ্রমিক ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ শ্রমিকদের এরিয়া বিলের সকল কাগজ পত্র হেড অফিস থেকে নিয়ে আসে। জানা যায়, বানিজ্যিক খামারের বড় বাবু মতিন গত এক সপ্তাহ আগে অবসরগ্রহণ করেন এবং সংস্থাপন শাখার জুনিয়র করনিক তুফান গত এক সপ্তাহ আগে কর্তৃপক্ষ প্রশাসন ডিসপাস বিভাগে বিভাগে বদলী করে। এদিকে, মতিন ও তুফান ছাড়াও বেশ কয়েকজন শ্রমিকের যোগসাজসে কাগজপত্র প্রস্তুত করার নাম করে চুক্তিভিত্তিক শ্রমিকদের সকলের কাছ হতে ৫শ টাকা করে আদায় করে। এ টাকা  মিলের কর্মকর্তা ও শ্রমিক নেতাদের না দিলে এরিয়া বিল হবে না বলে মতিন ও তুফান চুক্তিভিত্তিক শ্রমিকদের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করেন বলে অভিযোগ উঠে। কেরুজ বাণিজ্যিক খামারের করনিক বড় বাবুর অবসর এবং সংস্থাপন শাখার ঐ করনিক পদোন্নতি নিয়ে বদলী হওয়ার পর প্রতারিত হওয়ার বিষয়টি পরিস্কার হলে কেরুজ ক্যাম্পাস এলাকাসহ দর্শনা প্রেসক্লাব, কেরুজ ব্যবস্থাপনা পরিচালক সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযুক্তদের ফিরিস্তি তুলে ধরে গোপনে কে/বা কারা লিফলেট বিলি করেছে। এ বিষয়ে হিজলগাড়ি বাণিজ্যিক খামারের চুক্তিভিত্তিক সিনিয়র করনিক মহর আলির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি এবং এরিয়াবিল করে দেওয়ার জন্য ৫শ টাকা করে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে শুনেছি। তিনি আরো বলেন, বিষয়টি সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে ভবিষৎ এ আর এ ধরণের ঘটনা ঘটবে না। এ বিষয়ে অভিযুক্ত অবসরপ্রাপ্ত বড় বাবু মতিন ও পদোন্নতি পাওয়া করনিক তুফানের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে, কেরু এ্যান্ড কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সাথে কথা বললে তিনি জানান বড় বাবু মতিন ও পদোন্নতি পাওয়া করনিক তুফানের বিষয়ে তাঁর কাছে কেউ অবিযোগ করেনি। এছাড়া বিষয়টি সত্য নয় বলেও তিনি এই প্রতিবেদককে জানান।