চুয়াডাঙ্গা শুক্রবার , ৪ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দর্শনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ছাত্রলীগ নেতার দ্বন্দ্ব!

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
মার্চ ৪, ২০২২ ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

দর্শনা অফিস:

দর্শনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মজনুর রহমানের দীর্ঘদিনের বিরোধপূর্ণ বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। দর্শনা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ববির নেতৃত্বে এ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁর পরিবার। এদিকে, এ ঘটনায় সাংবাদিকদের নিকট পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিয়েছে দুই পক্ষ।

জানা যায়, দর্শনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মজনুর রহমান দীর্ধদিন যাবৎ কেরু অ্যান্ড কোম্পানির পার্শ্ববর্তী ফুলতলা নামক স্থানে নিজ বাড়িতে বসবাস করে আসছেন। বেশ কিছুদিন পূর্বে সৈয়দ মজনুর রহমানের বাড়ির পাশে অবস্থিত একটি বাড়ি ক্রয় করেন দর্শনা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ববির চাচা আব্দুস সামাদ। বাড়িটি ক্রয় করে বুঝে নেওয়ার সময় সৈয়দ মজনুর রহমানের ঘরের সাথে থাকা একটি ঘর তাঁর জায়গায় বলে দাবি করেন আব্দুস সামাদ। পরে রেকর্ড অনুসারে উক্ত স্থানটি গড়মিল থাকার অভিযোগ তোলেন সৈয়দ মজনুর রহমান। সেই থেকে শুরু হয় দুই পক্ষের বিরোধ। এ বিরোধ সমাধানে দর্শনার বিভিন্ন মহল একাধিকবার বসেও কোনো সুরাহা করতে পারেনি। পরে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়ে উক্ত স্থানের ওপর আদালত ২০২০ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি তারিখে ইনজেনশন জারি করে। পরে ১০টি ধার্য তারিখে বাদী পক্ষের গরহাজিরায় ২০২২ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি তারিখে বিবাদীপক্ষের বিরুদ্ধে বিনা খরচায় ইনজেনশন জারিটি খারিজ করে দেয় আদালত।

এ ঘটনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মজনুর রহমান বলেন, ‘আমি বাড়িতে না থাকায় আমার জমিতে নির্মিত একটি ঘর ও ঘরে থাকা আসবাবপত্র ভাঙচুর করে পার্শ্ববর্তী জমির ক্রয়কৃত মালিক আব্দুস সামাদের ভাতিজা রফিকুল ইসলাম ববি ও তাঁর সহযোগীরা জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা করছে। বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে আব্দুস সামাদের ভাতিজা ছাত্রলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম ববির নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন যুবক উক্ত স্থানটির দেওয়াল ভেঙে স্থানটি ফাঁকা করে নিজেদের দখলে নেওয়ার চেষ্টা করেন। এছাড়া আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়েছে। এমতাবস্থায় আমি দলীয় উপর মহলে বিষয়টি জানিয়েছি। তারা বিষয়টি সমাধান করবে বলে আমাকে আশ্বস্ত করেছেন। এছাড়া দর্শনা থানায় একটি লিখিত অভিযোগও করব।’

এ ঘটনায় দর্শনা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ববি জানান, ‘আমার চাচা আব্দুস সামাদ নিজের ক্রয়কৃত জমিতে নতুন করে বাড়ি নির্মাণ করার জন্য চাচার নিজের স্থানে পরিত্যাক্ত একটি ঘরের একপাশ ভেঙে সীমানা প্রাচীর দেওয়ার জন্য পরিস্কার করা হয়েছে। ওনারা যে অভিযোগ করছেন, তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।