চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ৯ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দর্শনায় বাবা-ছেলেকে কুপিয়ে জখম

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
মার্চ ৯, ২০২২ ৮:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চুয়াডাঙ্গার দর্শনায় বাবা ও ছেলেকে হাসুয়া দিয়ে কুপিয়ে জখম করার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা থানাধীন সুলতানপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে পরিবারের সদস্যরা রক্তাক্ত জখম দুজনকে দ্রুত উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। জখম দুজন হলেন- সুলতানপুর গ্রামের মাঝের পাড়ার আবুল তরফদারের ছেলে আশাবদ্দীন (৫২) ও তাঁর ছেলে আসলাম (৩০)।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গতকাল দুপুরে আশাবদ্দীনের বাড়িতে কয়েকজন রাজমিস্ত্রী কাজ করছিলেন। তখন হঠাৎ করেই সুলতানপুর গ্রামের শেষ মাথা এলাকার কুদ্দুস হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ আলী (৩৭) আশাবদ্দীনের বাড়িতে প্রবেশ করে কর্মরত রাজমিস্ত্রীদের গালিগালাজ করতে থাকে। এসময় আশাবদ্দীন ও তাঁর ছেলে আসলাম গালিগালাজ করতে নিষেধ করে আলীকে বাড়ি থেকে চলে যেতে বলে। তখন আলী তার হাতে থাকা একটি হাসুয়া দিয়ে আশাবদ্দীন ও তাঁর ছেলে আসলামকে কুপিয়ে জখম পরে। পরে পরিবারের সদস্যরা জখম দুজনকে দ্রুত উদ্ধার করে প্রথমে দামুড়হুদা উপজেলার চিৎলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়। এসময় সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক বাবা-ছেলে দুজনকেই তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের পুরুষ সার্জারি বিভাগে ভর্তি রাখেন।

জখম আশাবদ্দীন বলেন, ‘আমার বাড়িতে কয়েকজন রাজমিস্ত্রী কাজ করছিল। দুপুরে আমাদের গ্রামেরই কুদ্দুস হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ আলী মদ খেয়ে বাড়ির মধ্যে এসে মিস্ত্রীদের গালমন্দ করতে শুরু করে। এসময় আমি আলীকে গালমন্দ করতে নিষেধ করি ও তাকে বাড়ি থেকে চলে যেতে বলি। তখন সে আমাকেও গালমন্দ করতে শুরু করে, এরই এক পর্যায়ে আলী তার হাতে থাকা একটি হাসুয়া দিয়ে আমার হাতে কোপ মারে। আমার ছেলে আমাকে বাচাতে ছুটে এলে তাকেও কুপিয়ে জখম করে।’

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সোহানা আহমেদ বলেন, ‘বেলা সাড়ে তিনটার দিকে পরিবারের সদস্যরা রক্তাক্ত জখম অবস্থায় দুজনকে জরুরি বিভাগে নেয়। দুজনেরই হাতে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। জরুরি বিভাগ থেকে দুজনকেই তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের পুরুষ সার্জারি বিভাগে ভর্তি রাখা হয়েছে।’

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।