দত্তনগর কৃষি ফার্মে অর্ধকোটি টাকা চাঁদা দাবি

59

সমীকরণ প্রতিবেদক:
এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃষি খামার দত্তনগর কৃষি ফার্মে ভারতীয় নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন ‘উলফা’র নামে কয়েক দফায় মোবাইল ফোনে অর্ধকোটি টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। সংগঠনটির কয়েকজন নেতা চিকিৎসাধীন থাকায় তাঁদের চিকিৎসার জন্য ওই টাকা দাবি করা হয়েছে। টাকা না দিলে গুলি করে মাথার খুলি উড়িয়ে দেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয়েছে ফার্মের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার কুশাডাঙ্গা, মথুরা, করিঞ্চা, গোকুলনগর এবং চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার পাথিলা বীজ উৎপাদন খামার নিয়ে গঠিত দত্তনগর কৃষি ফার্ম। এটি প্রায় তিন হাজার একর এলাকাজুড়ে বিস্তৃত। ভারতীয় নিষিদ্ধ ঘোষিত বিদ্রোহী সংগঠন ‘উলফা’র নামে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সম্প্রতি কয়েক দফায় প্রায় প্রতিটি ফার্মের কর্মকর্তাদের কাছে চাঁদা দাবি করে আসছে। তাঁদের দাবিকৃত চাঁদার পরিমাণ প্রায় অর্ধকোটি টাকা। দুর্বৃত্তদের দাবি তাঁরা উলফা সংগঠনের সদস্য। তাঁদের দলের কয়েকজন সদস্য আহত হয়ে ভারতে চিকিৎসাধীন আছেন। তাঁদের চিকিৎসার জন্য ৮০ লাখ টাকার প্রয়োজন। ইতোমধ্যেই ৫০ লাখ টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে। আরও ৩০ লাখ টাকা লাগবে। বিকাশ নম্বর দেওয়া হয়েছে, ওই নম্বরে দ্রুত টাকা বিকাশ করার জন্য তাগিদও দেয়। তবে এসব ব্যাপারে পুলিশকে বলা যাবে না মর্মে হুমকিও দেয় দুর্বৃত্তরা। তারা আরও হুমকি দেয় যে, কোনো রকম ছলচাতুরি করা কিংবা চালাকি করলে আমরা পাশেই আছি, একেবারে মাথার খুলি উড়িয়ে দেওয়া হবে। তারা ০১৭৭৫৭৮৪৯৮৫ ও ০১৮২৬৭৫১০০৮ নম্বর মোবাইল ফোন দিয়ে চাঁদা দাবি ও হুমকি দিয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। ভারতীয় বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহী সংগঠন ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসামের (উলফা) সন্ত্রাসী চক্রের এমন হুমকিতে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন দত্তনগর পাঁচ ফার্মের উপ-পরিচালকসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী। তবে এ ব্যাপারে ফার্ম কর্তৃপক্ষ থানা-পুলিশকে অবহিত করেছেন।
জীবননগর উপজেলার পাথিলা বীজ উৎপাদন খামারের উপ-পরিচালক গোলাম সরোয়ার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আমাকে ছাড়াও আমার সহকারী পরিচালক মনোরঞ্জন, গোকুলনগর ফার্ম, কুশাডাঙ্গা, মথুরাসহ প্রায় ফার্মের উপ-পরিচালক ও সহকারী উপ-পরিচালকদের কাছে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। সন্ত্রাসীরা সর্বশেষ মঙ্গলবার আমার ফার্মের সহকারী উপ-পরিচালক শাহজাহান আলীর কাছে চাঁদা দাবি করে। চাঁদার টাকা তারা ০১৮২৬৭৫২৮৭১ বিকাশ নম্বরে দেয়ার কথা বলে। টাকা না দেয়ায় তারা আমাদের গালিগালাজ করাসহ নানাভাবে হুমকিও দেয়। তারা নিজেদেরকে ভারতের ‘উলফা’ সংগঠনের সদস্য বলে পরিচয় দেয়। আমরা ঘটনাটি র‌্যাবসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও থানার অফিসার ইনচার্জকে জানিয়েছি। বর্তমানে সন্ত্রাসীদের ওই নম্বরগুলো এখন বন্ধ রয়েছে। ঘটনার ব্যাপারে আমরা এখনো থানায় মামলা কিংবা জিডি করিনি। তবে আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি, তাদের পরামর্শ অনুযায়ী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।
জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, ‘ঘটনার ব্যাপারটি আমরা শুনেছি। সন্ত্রাসীদের ধরতে পুলিশি তৎপর রয়েছে। মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে সন্ত্রাসীদের পরিচয় পাওয়া যাবে বলে আমাদের বিশ^াস।’ (সূত্র-নয়া দিগন্ত)