চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ৯ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ডিবিসি নিউজের সংবাদকর্মীকে গলা কেটে হত্যা

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ৯, ২০২২ ৯:১৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন: রাজধানীর হাতিরঝিলে বেসরকারী টেলিভিশন স্টেশন ডিবিসি নিউজের মোঃ আব্দুল বারি (২৮) নামে সংবাদ কর্মীর গলা কেটে ও এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। তিনি ডিবিসি নিউজের একজন জ্যেষ্ঠ নিউজে প্রযোজক (প্রডিউসার) ছিলেন। গতকাল বুধবার সকাল ৭টার দিকে পুলিশ কনকর্ড প্লাজার উল্টো দিকে লেকের ধারের সড়কে তার ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায় পুলিশ। এদিকে খবর পেয়ে সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে হত্যাকাণ্ডের আলামত সংগ্রহ করেন। তাদের ধারণা তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হতে পারে।

গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ শাহানুর রহমান জানান, নিহত বারির গলা ও পেটে ছুরিকাহতের চিহ্ন রয়েছে। লাশের পাশে তার মোবাইল ফোন, মানিব্যাগ, জুতা এবং একটি রক্তমাখা ছুরি পড়ে ছিল। পরিদর্শক তদন্ত জানান, মহাখালী ওয়্যারলেস গেট এলাকায় ডিবিসি নিউজের কার্যালয়ের কাছে একটি মেসে থাকতেন আব্দুল বারি। তিনি জানান, ঘটনাস্থলে আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ দেখা হচ্ছে। হত্যাকারীদের চিহ্নিত করতে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে। ইতোমধ্যে তদন্ত শুরু করেছেন। তবে বারিকে কারা হত্যা করে থাকতে পারে, সে বিষয়ে স্পষ্ট কোন ধারণা দিতে পারেননি গুলশান থানার পরিদর্শক তদন্ত শাহানুর রহমান। তবে তিনি জানান, আমরা তার পরিবারের সাথে কথা বলছি। সবাই গ্রামের বাড়িতে থাকেন। কারোর সাথে তার বিরোধ আছে কিনা সহকর্মীরাও বলতে পারছেন না। তারপরও আমরা বিভিন্ন ক্লু নিয়ে কাজ করছি। আশা করছি অল্প সময়ের মধ্যে হত্যাকা-ের রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে।

ডিবিসি নিউজের প্রধান প্রতিবেদন রাজিব ঘোষ জানান, মঙ্গলবার তার সাপ্তাহিক ছুটি ছিল। সকালে পুলিশের কাছ থেকেই আমরা বারির খুন হওয়ার কথা জানতে পারি। ডিবিসি নিউজ কর্তৃপক্ষ জানায়, বুধবার সকালে কয়েকজন পথশিশু লেকের পাড়ে লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ সদস্যদের জানায়। পরে পুলিশ সেখান থেকে বারির লাশ উদ্ধার করে। ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার নাজমুল হাসান ফিরোজ জানান, ধারণা করা হচ্ছে, প্রথমে তাকে ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। পরে সে বাঁচার জন্য পানিতে নেমে পড়ে, কারণ তার জামা কাপড় ভেজা ছিল। পরে বারি আবার লেকপাড়ে উঠে এলে তাকে মাটিতে শুইয়ে গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। এ ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ সদরে। গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান জানান, আব্দুল বারিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সুরতহালে সে রকম আলামতই আমরা পেয়েছি। তাতে ধারণা করা হচ্ছে ৭-৮ ঘণ্টা আগে তাকে হত্যা করা হতে পারে। প্রাথমিকভাবে ধারণা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়ে থাকতে পারে। নিহতের গলা, বুকে ও পিঠে ছুরিকাঘাতের গভীর ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, পুলিশ প্লাজা কনকর্ড শপিংমলের লেকের উল্টো দিক থেকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। লেকের পাড়ে পাশের সড়ক দিয়ে গুলশান যাওয়ার সড়ক রয়েছে। পুলিশের ধারণা, খুনী স্থান বুঝেই সেখানে বারিকে হত্যা করেছে। যেখান থেকে বারির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে ওই স্থানের পাশে কিছু কচুরিপানা রয়েছে। সেখানে বারি কী একা গেছেন? নাকি তাকে জোর করে বা অন্য কোন উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। সবুজ নামে এক হকার জানান, বারিকে যেখানে খুন করা হয়েছে সেখানে বিকেলে এবং সন্ধ্যায় লোকজন হাঁটাহাঁটি করে। অনেক বয়স্ক লোক ওই পাড় দিয়ে শরীর চর্চা করেন। কিন্তু রাতে তেমন কোন লোকজনের আনাগোনা থাকে না। লেকের পাড়ের বাসিন্দা আরিফুল ইসলাম জানান, সকালে শুনেছি এখান থেকে একটি লাশ উদ্ধার হয়েছে। জায়গাটির পাশে পথশিশুরা খেলা করে। এছাড়াও স্থানীয় হকারও সেখানে বসে বিশ্রাম নেন। খুনীরা গভীর রাতে ওই খুনের ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে ধারণা করেন তিনি। এদিকে মাতম চলছে নিহত বারির গ্রামের বাড়িতে। বারির বাবা-মা জানায়, তাদের ছেলের কোন শত্রু ছিল না। ঢাকায় মেসে কষ্ট করে থেকে চাকরি করত সে। তার বিয়ের কথাও চলছিল। গত দুই সপ্তাহ আগে ছেলের বিয়ের জন্য তারা পাত্রী দেখতে গিয়েছিল বলে জানান। তাকে কি উদ্দেশে এবং কারা নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে কিছুই জানে না পরিবার। এ সময় ছেলে হত্যার বিচার চেয়েছেন তারা। আব্দুল বারির মা আলেয়া খাতুন ও বাবা মুদি দোকানি আবদুল্লাহ শেখ। নিহত আব্দুল বারির বাড়ি রাজগঞ্জ সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের চন্ডিদাসগাঁতী গ্রামে। ভিকটিমের বড় ভাই আব্দুল আলীম মরদেহ আনতে ঢাকায় এসেছেন। তিন বোন ও দু’ভাইয়ের সংসারে বারি সবার ছোট। বোনদের দু’জনের সিরাজগঞ্জে, একজনের ঢাকার উত্তরায় বিয়ে হয়েছে। বড়ভাই আলীম বাবার সঙ্গে দোকান চালান। অনেক কষ্ট করে ঢাকার বিউবি থেকে প্রকৌশল বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। এ ব্যাপারে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান বলেন, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে কারও সঙ্গে দ্বন্দ্ব বা মনোমালিন্যের জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। পুলিশের বেশ কয়েকটি ইউনিটি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে। যে বা যারাই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকুক, তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।