ট্রাক চালককে পেটালেন বিজিবি সদস্য!

33

গাংনী অফিস:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার চোখতোলা মাঠ এলাকায় মিঠুন নামের এক ট্রাক চালককে বেধড়ক মারপিঠ করেছেন এক বিজিবি সদস্য বলে অভিযোগ উঠেছে। নির্মাণাধীন রাস্তায় যানজটে আটকে গিয়ে নিরপরাধ ট্রাক চালককে পিটিয়ে সমালোচনায় পড়েন ওই বিজিবি সদস্য। এনিয়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের নেতা-কর্মীদের মধ্যে। ট্রাক চালক মিঠুন মেহরপুরেরর বামনপাড়ার ফতের আলীর ছেলে। অভিযুক্ত বিজিবি সদস্যের নাম রফিক বলে জানান ভুক্তভোগীরা।
জানা গেছে, মেহেরপুর-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের গাংনী উপজেলার চোখতোলা নামক স্থানে প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তা সংস্কারের কাজ চলছে। একদিকে কাজ চলমান অন্যদিকে ওয়ানওয়ে হিসেবে যানবাহন চলাচল করছে। তবে নির্মাণকাজের ধীরগতি আর অব্যবস্থাপনায় বৃষ্টিতে রাস্তা কাদাপানিতে পরিণত হয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের অবহেলায় প্রতিদিন যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। গতকাল সোমবার দুপুরে এই যানজটে পড়েন ট্রাক চালক মিঠুন। তিনি মেহেরপুর থেকে নাটোরে যাচ্ছিলেন। এসময় বামুন্দীর দিক থেকে মোটরসাইকেলে গাংনীতে যাচ্ছিলেন দুই বিজিবি সদস্য। তারা পোশাক পরা অবস্থায় ছিলেন। যানজট পার হতে গিয়ে বাঁধা পড়ায় বিজিবি সদস্য ক্ষিপ্ত হন ট্রাক চালক মিঠুনের উপর। একপর্যায়ে তাকে বেধড়ক মারপিট করেন তারা। এসময় মোবাইলে মারপিটের দৃশ্য ধারণ করেন এক পথচারী। উত্তেজিত বিজিবি সদস্য রফিক তার মোবাইল কেড়ে নিয়ে তাকেও মারধর করে ভিডিওটি ডিলিট করে দেন বলে অভিযোগ উঠেছে। একপর্যায়ে পথচারীসহ অনেকে বিষয়টির প্রতিবাদ করলে ওই দুইজন বিজিবি সদস্য সেখান থেকে চলে যান। তবে ভিডিও ও ছবি ডিলিট করলেও মোবাইলের রিসাইকেলবিনে তা রয়ে যায়। পরে সেই ভিডিও ও ছবি ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে।
এবিষয়ে ট্রাক চালক মিঠুন বলেন, ‘বিজিবি সদস্য বিনা কারণেই আমাকে মারধর করেছেন। তিনি ক্ষমতার দম্ভ দেখিয়ে আমার সাথে চরম অন্যায় করেছেন। বিজিবি সদস্য আমাকে অন্যায়ভাবে লাথি, কিল মারলেও অন্যরা তা চেয়ে চেয়ে দেখেছেন। কারো কিছুই করার ছিল না। আমি এর বিচার চাই।’
এদিকে বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ। মেহেরপুর জেলা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, ‘এভাবে মারধরের বিষয়টি আমরা কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না। আমরা এর বিচার চায়। ট্রাক চালক ভাড়া থেকে ফিরে আসলেই আমরা আমাদের কার্যক্রম শুরু করবো।’
তবে এ ব্যাপারে বিজিবির স্থানীয় ক্যাম্পগুলোতে খোঁজ নিয়ে ওই বিজিবি সদস্যর পরিচয় মেলেনি। বিজিবির দায়িত্বশীল কেউ এবিষয়ে কিছুই জানেন না বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।