চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ২৪ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

টাইগারদের ঐতিহাসিক সিরিজ জয়

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
মার্চ ২৪, ২০২২ ৮:২৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন:
দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে বাংলাদেশের প্রথম সিরিজ জয়। গতকাল বুধবার সেঞ্চুরিয়ানে প্রোটিয়াদের উড়িয়ে দিয়ে ৯ উইকেটের ক্যারিশম্যাটিক জয়ে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করল টাইগাররা। বাঘের গর্জনে ঘরের মাঠেই বিধ্বস্ত দক্ষিণ আফ্রিকা। পেসার তাসকিন আহমেদের বিধ্বংসী বোলিং ও তামিম ইকবালের ক্যাপ্টেন্স নকে ১৪১ বল আগেই জয় তুলে নেন তামিমরা। সিরিজের প্রথম ম্যাচে দাপট দেখিয়ে ২০ বছর পর দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রথম জয়ের স্বাদ পেয়েছিল বাংলাদেশ। গতকাল অঘোষিত ফাইনালে স্বাগতিকরা প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়ে তুলতে পারেনি। এই জয়ে আইসিসি বিশ্বকাপ সুপার লিগে নিজেদের অবস্থান আরও দৃঢ় করল বাংলাদেশ। ১৮ ম্যাচে ১২ জয় টাইগারদের। ব্যাটিং, বোলিং কিংবা ফিল্ডিং- তিন বিভাগেই অনন্য বাংলাদেশ। তাসকিন আহমেদ ও সাকিব আল হাসানের বোলিং ক্যারিশমায় দক্ষিণ আফ্রিকাকে মাত্র ১৫৪ রানে আটকে দেওয়ার পর দুই টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাসের ১২৭ রানের জুটি এনে দেয় সহজ জয়।
বাংলাদেশের এমন আগ্রাসী জয়ের পর একটা প্রশ্ন উঠতে পারে, দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে এর আগে কোনো দল এতটা দাপট দেখাতে পেরেছে কি! তা নিয়ে রীতিমতো গবেষণাও হতে পারে। তবে ঘরের মাঠে বাউন্সি উইকেটে দক্ষিণ আফ্রিকা যে কতটা ভয়ংকর তা বোঝা যায় আগের সিরিজের ফলের দিকে তাকালে। এ দলটিই আগের সিরিজে ঘরের মাঠে ভয়ংকর ভারতকে হোয়াইটওয়াশ করেছে। ২০১৯ সালে অস্ট্রেলিয়াকেও তারা ৩-০-তে সিরিজে হারিয়েছে। সেই একই মাটিতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে পাত্তাই পেল না। মাত্র ৩৫ রানে ৫ উইকেট নিয়েছেন তাসকিন আহমেদ। টাইগার পেসার গতকাল সেঞ্চুরিয়ানে যে ক্যারিশমা দেখিয়েছেন শেষ ১০ বছরে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে এমন দাপট দেখাতে পারেনি সফরকারী দলের কোনো বোলার! সর্বশেষ ২০১২ সালে শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি পেসার লাসিথ মালিঙ্গা এই কীর্তি দেখিয়েছিলেন। দুর্দান্ত বোলিংয়ের জন্য ম্যাচসেরা হয়েছেন তাসকিন। সিরিজ সেরার পুরস্কারও তার হাতেই উঠেছে। কালকের ম্যাচটা শেষ করে দিয়েছেন মূলত বোলাররাই! তবে ব্যাটিংয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ক্যাপ্টেন তামিম। বিশেষ করে ম্যাচের দশম ওভারে ক্রিকেটের এ প্রজন্মের অন্যতম সেরা পেসার কাগিসো রাবাদার ওভারে যেভাবে চার চারটি বাউন্ডারি হাঁকিয়েছেন তা ছিল দেখার মতো। ৫২ বলে হাফসেঞ্চুরি পূরণ করেন টাইগার ক্যাপ্টেন। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে ৮২ বলে ৮৭ রান করে দলের জয় নিশ্চিত করেই মাঠ ছাড়েন। তাসকিনের দিনে বোলিংয়ে সাকিবও দুর্দান্ত দাপট দেখিয়েছেন। ৯ ওভারে মাত্র ২৩ রান দিয়ে নিয়েছেন ২ উইকেট। অন্য বোলাররাও রান দেওয়ায় ছিলেন ভীষণ কিপটে। তাই তো প্রোটিয়া কোনো ব্যাটসম্যানই কাল সুবিধা করতে পারেননি। সর্বোচ্চ রান ওপেনার মালানের ৩৯। টাইগার বোলারদের সামনে কাল প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা যে কতটা অসহায় ছিলেন তা বুঝতে পুরো স্কোর কার্ডও দেখার প্রয়োজন নেই! সুপার স্পোর্টস পার্কে সিরিজের প্রথম ম্যাচেও দুর্দান্ত বোলিং করেছিলেন তাসকিন। ৩৬ রানে নিয়েছিলেন ৩ উইকেট। সাকিব আল হাসানের ক্যারিশম্যাটিক ব্যাটিংয়ের কারণে সে ম্যাচে সেরা হতে পারেননি। কিন্তু এ ম্যাচে তাসকিন আর কাউকে সুযোগই দিলেন না। ম্যাচসেরা তো হলেনই, সিরিজ সেরার পুরস্কারও জিতে নিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে গত দুই যুগে বাংলাদেশের প্রতিটি মিশনই ছিল ব্যর্থ। তিন ফরম্যাট মিলে কোনো জয়ই ছিল না। তবে এবারের পরিস্থিতি ছিল অন্যরকম। কারণ, টাইগারদের কোচিংয়ে আফ্রিকান আবহ। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো আফ্রিকান। বোলিং কোচের দায়িত্বেও আছেন কিংবদন্তি প্রোটিয়া পেসার অ্যালান ডোনাল্ড। এমনকি কিছুদিন আগে ব্যাটিং কোচের দায়িত্বেও ছিলেন আরেক আফ্রিকান (অ্যাশওয়েল প্রিন্স)। আফ্রিকার মাটিতে ব্যাটারদের ভয় কমাতে সাময়িক কয়েক দিনের জন্য হার্ডহিটার প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান অ্যালবি মরকেলকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। শুধু তাই নয়, টিম হোটেলে সাকিব-তামিমদের সঙ্গে কোচ রাসেল ডমিঙ্গো আলাপ করিয়ে দিয়েছেন ৩৬০ ডিগ্রি এবি ডি ভিলিয়ার্সকেও। টিম বাংলাদেশের একাগ্র প্রচেষ্টাতেই এলো সাফল্য। টাইগাররা বিদেশের মাটিতে দাপট দেখানোর আত্মবিশ্বাসটা পেয়েছিল বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডে গিয়ে। তাসমান পাড়ে গিয়ে প্রথমবারের মতো টেস্ট জিতে ছিল বাংলাদেশ। সেটি ছিল নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাদের বিরুদ্ধে প্রথম জয়। এবার টাইগাররা সেই আত্মবিশ্বাস টেনে দক্ষিণ আফ্রিকায় নিয়ে গিয়ে বাজিমাত করে দিলেন। দুই বছর আগে এই দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতেই যুব বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।