চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ১৩ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঝালকাঠিতে জাহাজ ও ফতুল্লায় ফ্ল্যাটে বিস্ফোরণ : নিহত ৪

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
নভেম্বর ১৩, ২০২১ ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে জ্বালানি তেলবাহী একটি জাহাজে বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় দু’জন নিহত হয়েছেন। বিস্ফোরণে জাহাজের তলা ফেটে গেছে। অন্য দিকে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি ভবনের ফ্ল্যাটের গ্যাসলাইনে বিস্ফোরণ ঘটে। এ সময় দুই নারী নিহত হন। ঝালকাঠি সংবাদদাতা জানান, ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে জ্বালানি তেলবাহী একটি জাহাজে বিস্ফোরণে দু’জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন সাতজন। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সুগন্ধা নদীর পোনাবালিয়া খেয়াঘাট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে মারা যাওয়া একজন হলেন জাহাজের সুকানি মো: কামরুল ইসলাম। তার বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলায়। বিস্ফোরণে জাহাজের তলা ফেটে যায়।

জাহাজের আহত শ্রমিকরা জানান, ঢাকা থেকে জ্বালানি তেল পেট্রাল, অকটেন ও ডিজেল নিয়ে সাগর নন্দিনী নামে একটি জাহাজ ঝালকাঠির ডিপোতে খালাসের জন্য সুগন্ধা নদীতে নোঙর করে রাখে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে জাহাজ থেকে খালাসের প্রস্তুতি নিলে পাম্পকক্ষে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে দ্রুত জাহাজে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় কর্মরত আট শ্রমিক দগ্ধ হন। খবর পেয়ে ঝালকাঠি ও বরিশাল থেকে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে। তাদের প্রথমে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাদের বরিশাল শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এতে জাহাজের আটজন কর্মচারী দগ্ধ হন। এর মধ্যে সুকানি কামরুল ইসলাম ঘটনাস্থলেই নিহত হন। বরিশাল নেয়ার পথে রিপনের মৃত্যু হয়। ঝালকাঠি ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, ‘বিস্ফোরণের পর জাহাজের তলা ফেটে গেছে। ইঞ্জিন রুমে ফাটল ধরায় জাহাজের মধ্যে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। যেকোনো মুহূর্তে ডুবে যেতে পারে জাহাজটি। জাহাজে সাড়ে আট লাখ লিটার ডিজেল ছিল। জাহাজটি ক্রমেই নদীতে ডুবে যাচ্ছে।’

বরিশাল ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক কোবাদ আলী সরদার জানান, এক ঘণ্টার প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। বিস্ফোরণে জাহাজের তলা ফেটে পানি ঢুকছে। জাহাজটি যাতে পানিতে ডুবে না যায় তার জন্য চেষ্টা চলছে। ভেতরে থাকা জ্বালানি তেল খালাসের ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক মো: জোহর আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি হতাহতদের খোঁজখবর নেন। ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মো: জোহর আলী বলেন, বিস্ফোরণের খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। জাহাজে ১৩ জন স্টাফ ছিলেন। তাদের মধ্যে আটজন দগ্ধ হয়েছেন। দু’জন মারা গেছেন।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি ভবনের ফ্ল্যাটে গতকাল শুক্রবার ভোরে গ্যাসলাইনের ভয়াবহ বিস্ফোরণে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। বিস্ফোরণে উড়ে গেছে দেয়াল। এ ঘটনায় দগ্ধ ও দেয়ালের ইট পড়ে আহত হয়েছে আরো ১৫ জন। দগ্ধদের ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন উইনিটে ভর্তি করা হয়েছে। আহতবাকীদের ঢাকা মেডিক্যাল ও নারায়ণগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। বিস্ফোরণে ওই ফ্ল্যাটের পাঁচটি কক্ষসহ পাশের আরো তিনটি বাড়ির দেয়াল চূর্ণ হয়ে গেছে। গতকাল শুক্রবার ভোরে ফতুল্লার লাল খাঁর মোড়ে মোক্তার মিয়ার পাঁচতলা ভবনের নিচতলায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনা তদন্তে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে। তারা তদন্ত করে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নিবেন। নিহতরা হলেন, মায়া রানী (৪০) ও মঙ্গলী রানী (৩৫)। এদের মধ্যে মায়া রানী পাশের বাড়ির ভাড়াটিয়া আর মঙ্গলী রানী পথচারী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ভোর ৬টার সময় বিকট শব্দে ফ্ল্যাটটিতে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে পাশের আরো তিনটি বাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়। এ ঘটনায় ঘুমন্ত অবস্থায় মায়া রানী ঘটনাস্থলেই দেয়ালের নিচে চাপা পড়ে মারা যান। এ সময় মায়া রানীর দুই মেয়ে বৃষ্টি (১৪), সৃষ্টি (১০) ও এক ছেলে নির্জয়সহ (৩) জুমা (২১), রুমা (১২), সোহেল (২৬), তুলশি (৫০) ও দেড় বছরের শিশু বিশালী আহত হয়েছে। তাদের প্রত্যেককে ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বিস্ফোরণের সময় মঙ্গলী রানী তার মেয়ে পূর্ণিমাকে নিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন। তখন বিস্ফোরণে দেয়ালের ইট-বালু উড়ে এসে উপড়ে পড়ে গুরুতর আহত হয় মঙ্গলী এবং মাথায় ও পায়ে আঘাত পায় তার মেয়ে পূর্ণিমা। তাদের দুইজনকে শহরের ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলী রানী মারা যান এবং পূর্ণিমাকে চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। বিস্ফোরণে পাশের সুমির বাড়ির ভাড়াটিয়া বিনয় তার স্ত্রী নিপা ও তাদের দুই সন্তান ঘুমন্ত অবস্থায় দেয়াল চাপা পড়েন। এতে বিনয় ও তার মেয়ের মাথায় আঘাত। এ ছাড়া স্ত্রী ও আরেক সন্তান সামান্য আঘাত পেয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সহকারী উপপরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফিন জানান, রান্নাঘরের গ্যাস জমে ছিল। তা থেকে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ জানান, ১০ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটি তদন্তের পর আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান জানান, দুই নারী নিহত হয়েছে। আটজন ঢাকা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ছাড়াও কয়েকজন আহত হয়েছে তারা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে। শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন এস এম আইউব হোসেন জানান, ফতুল্লা থেকে গ্যাস বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে ছয়জন এখানে এসেছে। তাদের মধ্যে চারজনকে চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে ও দুইজনকে ভর্তি দেয়া হয়েছে। ভর্তি দুইজন হলেনÑ তুলসী রানী (৫৫) তার শরীরে ২০ শতাংশ পুড়ে গেছে এবং ঝুমা রানী (১৯) তার শরীরে ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।