জীবননগরে ব্যাঙ্গের ছাতার মত তৈরি হচ্ছে ইট ভাটা সরকারী নির্দেশ অমান্য করেই ইট ভাটাই পুড়ছে কাঠ: কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন

340

15941463_1716901708623863_5038227426379306667_n

জীবননগর অফিস: জীবননগরে সরকারী নিয়মনীতি ছাড়াই ব্যাঙ্গের ছাতার মত গড়ে উঠছে ইট ভাটা। সরকারী নিদের্শনা অমান্য করে ইট ভাটাই পোড়ানা হচ্ছে বিভিন্ন ফলজ, বনজ, ঔষধী গাছ। এর ফলে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশে ধ্বংশ হচ্ছে প্রাকৃতিক সম্পদ বন। জানা গেছে জীবননগর উপজেলায় অতিতে কয়েকটি মাত্র ইটের ভাটা তৈরি হয়েছিল। এই ইট ভাটার  ফলে এলাকার কিছু বেকার যুবকসহ সাধারন মানুষের একটি কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হলেও। অন্যদিকে ঝুকিপূর্ণর মধ্যে দিয়ে জীবন যাবন করছে হাজারো মানুষ সাথে সাথে পরিবেশ রক্ষার্থে প্রাকৃতি সম্পদ বিভিন্ন ধরনের প্রয়োজনীয় গাছপালা কেটে পোড়ানো হচ্ছে ইট ভাটায় যার ফলে বেড়েই চলেছে পরিবেশ দূষন, ধ্বংস হচ্ছে বনাঞ্চল। এব্যাপারে এলাকাবাসীর সাথে কথা বললে অনেকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অভিযোগ করে বলেন জীবননগর উপজেলায় গত কয়েক বছর আগেও ছিল অল্প সংখ্যেক ইট ভাটা কিন্তু এক বছরেই জীবননগর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ব্যাঙ্গের ছাতার মত গড়ে উঠেছে ইট ভাটা। সাথে সাথে ইট ভাটায় যে ভাবে গাছ পুড়ানো হচ্ছে তাতে করে অল্প দিনেই সাধারন মানুষ চরম সমস্যার মধ্যে পড়বে বিলিন হয়ে পড়ছে বনাঞ্চল। তারা আরও বলেন ইট ভাটার ট্রাক্টর, পাওয়ার টিলার ইত্যাদি যেভাবে দূরত্ব গতিতে চলাচল করে তাতে করে ছোট ছোট শিশুদের নিয়ে সব সময় আতঙ্কের মধ্যে থাকতে হয়। শুধু তাই নয় ইট ভাটায় যে সমস্থ ড্রাইভার গাড়ি চালায় তাদের কারও নেই কোন বৈধ লাইসেন্স যার ফলে যদি কোন দূর্ঘটনা হয় তাহলে ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা দিয়ে রফা করে মিটিয়ে ফেলে অথচ একজন বৈধ লাইসেন্সধারী গাড়ি চালকের কাছ থেকে অসাবধনতার মধ্যে দিয়ে দূর্ঘটনা ঘটলে তাদের যেতে হয় জেল খানায় অথবা লক্ষ টাকা দিয়ে রফা করতে হয়। সরেজমিনে দেখা গেছে জীবননগর উপজেলার সীমান্ত ইউনিয়নের মোল্লা ব্রিক্সের ইট ভাটার মাটি রাস্তার উপরেই অনেকটা রেখেছেন যে কোন মুহুর্তে একটু বৃষ্টি হলেই পানিতে মাটি ধুয়ে রাস্তার উপরে পড়বে আর তখনই ঘটবে বড় ধরনের দূর্ঘটনা, এই ইট ভাটার পাশে মাটি রাখার ফলে এর আগেও বেশ কয়েকবার দূর্ঘটনা ঘটেছে, অন্যদিকে জীবননগর পৌরসভার লতিফ ট্রের্ডাসের ইট ভাটার মাটির গাড়ি যেভাবে দ্রুতগতিতে চলাচল করে এতে যে কোন সময় হতে পারে বড় দূর্ঘটনা, তা ছাড়া অভার লোডে মাটির গাড়ি রাস্তা দিয়ে দ্রুতগতিতে চলাচল করায় রাস্তার দু ধারের পিচ নষ্ট হতে চলেছে বিভিন্ন স্থানে খানা খন্দে পরিনত হয়েছে। এদিকে বিভিন্নইট ভাটায় সরেজমিনে দেখা গেছে কোন কোন ইট ভাটায় লোক দেখানো কয়লা থাকলেও সেগুলো দিয়ে ইট না পুড়িয়ে ঢিবি মেরে রেখেছে আর অল্প দামের গাছ কিনে ইট ভাটায় ইট পোড়ানো হচ্ছে এ যেন প্রশাসনকে একটি বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখানোর মত ঘটনা। একটি সুত্রে জানা গেছে ইট ভাটার মালিকরা প্রচুর অর্থ সম্পদ থাকার কারনে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোন পদক্ষেপ নিতে পারে বলে অনেকে জানিয়েছেন। এদিকে জীবননগর উপজেলার সুযোগ্য নির্বাহী অফিসার  গত বছরে রাস্তার পাশে মাটি রাখার অপরাধে বেশ কয়েকটি ইট ভাটায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে জরিমানা আদায় করেছিল সেই থেকে রাস্তার পাশে মাটি রাখা বেশ কয়েকদিন বন্ধ ছিল। কিন্তু দিন যেতে না যেতেই আবার ও রাস্তার পাশে মাটি রাখা শুরু করেছে যার ফলে ঘটছে নানা ধরনের দূর্ঘটনা। কথায় বলে চোরে না শোনে ধর্মেরও কাহিনী। এদিকে এলাকাবাসীসহ সুশিল সমাজের সকলে ইট ভাটার মাটি রাস্তার পাশ থেকে সরানোসহ ইট ভাটার মাটি বহন গাড়ি দ্রুতগতি বন্ধ এবং প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার্থে উর্দ্ধতন কর্মকর্তার আশুহস্তক্ষেপ কামনা করছেন।