জীবননগরে ছেলের ইটের আঘাতে জখম বৃদ্ধা মা

303

জীবননগর অফিস: জীবননগর আন্দুলবাড়ীয়ায় পাষ- ছেলের ইটের আঘাতে রক্তাক্ত জখম হয়েছে গর্ভধারিণী মা মর্জিনা বেগম (৬৫)। আহত মর্জিনা বেগমকে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় জীবননগর উপজেলার আন্দুলবাড়ীয়া বাজারপাড়ায় বৃদ্ধ মর্জিনার বসতবাড়িতে ঘটনাটি ঘটে। মর্জিনা বেগম ওই গ্রামের বাজারপাড়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত মুসা করিমের স্ত্রী।
আহত বৃদ্ধা মা মর্জিনা বেগম জানান, সোমবার সন্ধ্যায় আমার বসতঘরের দরজার সামনে আমার ছেলে জাকির হোসেন (৪৫) গাছ লাগালে আমি তাকে নিশেষ করি। এতে আমার ছেলের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে সে উত্তেজিত হয়ে ইট দিয়ে আমার মাথায় আঘাত করে। তারপর আমার চিৎকারে পাশের বাড়ির লোকজন আমাকে উদ্ধার করে জীবননগর হাসপাতালে ভর্তি করে। আমি আমার এই ছেলের বিচার চাই। সে আমাকে প্রায়ই মারধর করে। সে আমার ভরণপোষণ করেনা, আমার স্বামী মুক্তিযোদ্ধা ছিলো। স্বামীর মুক্তিযোদ্ধার ভাতা দিয়ে আমি জীবনজাপন করি। এ ব্যাপারে জীবননগর থানার (ওসি) মাহমুদুর রহমান জানান, আহত বৃদ্ধা মা মর্জিনা বেগম রক্তাক্ত জখম অবস্থায় থানায় অভিযোগ নিয়ে আসছিলেন। আমি তাকে জীবননগর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছি।
পুলিশ পরিচয়ে ধর্ষণ : গ্রেপ্তার ১
সমীকরণ ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলায় পুলিশের এএসআই পরিচয়ে এক গৃহবধূ (৩৫) কে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে শুক্রবার রাতে মিজমিজি আব্দুল আলী পুল এলাকায়। এ বিষয়ে গতকাল সোমবার বিকেলে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ধর্ষণে সহযোগিতা করার অভিযোগে রনি (২৫) কে গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশ অভিযুক্ত রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস সাত্তার মিয়া অভিযোগকারীর বরাত দিয়ে জানান, আদমজী ইপিজেডে চাকরির সুবাদে রনির সঙ্গে পরিচয় হয় ওই গৃহবধূর। শুক্রবার রাতে রফিকুল ইসলামকে নিয়ে ওই গৃহবধূর বাসায় আসে রনি। এ সময় রফিকুল ইসলাম নিজেকে পুলিশের এএসআই হিসেবে পরিচয় দেয় এবং গৃহবধূর কাছে টাকা দাবি করে। গৃহবধূ টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে রফিকুল ইসলাম ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করে। রোববার ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে গৃহবধূ থানায় এসে অভিযোগ করেন। পরে পুলিশ রোববার রাতেই আদমজীর নতুন বাজার এলাকা থেকে রনিকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতা নিজে বাদী হয়ে রনি ও রফিকুল ইসলামকে আসামি করে আজ দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ওসি আরো জানান, এ ঘটনায় সহযোগিতা করার অভিযোগে রনিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অভিযুক্ত রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করার চেষ্টা চলছে। ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।