চুয়াডাঙ্গা শুক্রবার , ৪ জুন ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চ্যালেঞ্জ নিয়েই ইতিহাসের বড় বাজেট

সমীকরণ প্রতিবেদন
জুন ৪, ২০২১ ১১:৩৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

অর্থনৈতিক পুনর্গঠন জনজীবনে স্বস্তির চেষ্টা, সামাজিক সুরক্ষায় নতুন দরিদ্ররা, রেকর্ড ঘাটতি
সমীকরণ প্রতিবেদন:
ঘাটতির সব রেকর্ড ভেঙে নতুন অর্থবছরের জন্য বিশাল আকারের বাজেট ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। করোনা পরিস্থিতি ও ব্যবসায়ীদের দীর্ঘদিনের দাবি আমলে নিয়ে করপোরেট কর কমানোর প্রস্তাব করেছেন নতুন বাজেটে। এ ছাড়া কৃষি খাত ও দেশি শিল্পের ক্ষেত্রে কর অবকাশ, কর অব্যাহতিসহ নানা সুবিধা দেওয়ার ঘোষণা করেছেন। করোনা মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীকে সুবিধা দিতে সামাজিক সুরক্ষার আওতা বাড়ছে। স্বাস্থ্য খাতের সুরক্ষা দিতে বরাদ্দ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী তাঁর বাজেট বক্তৃতায় বলেছেন, দেশে মেগা শিল্পের বিকাশ ও আমদানি বিকল্প শিল্প উৎপাদন ত্বরান্বিত করতে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ প্রতিষ্ঠায় বদ্ধপরিকর। এদিকে সাধারণ মানুষের কাঁধে করের অতিরিক্ত বোঝা না চাপিয়ে ধনীদের সম্পদে সারচার্জ বাসিয়ে রাজস্ব আদায় বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। গতকাল বিকাল ৩টায় জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছিল ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকা। প্রস্তাবিত নতুন বাজেটে মোট আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। চলতি বাজেটেও এনবিআরের টার্গেট দেওয়া হয়েছিল ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা। করোনা মহামারীর কারণে অর্থবছরের প্রথম আট মাসে রাজস্ব ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৫১ হাজার কোটি টাকা। সরকারি চাকুরে বাদে ব্যবসায়ী, পেশাজীবী, বেসরকারি খাতের চাকরিজীবী, উদ্যোক্তাসহ সব শ্রেণির মানুষের আয় কমেছে। সে বিবেচনায় নতুন অর্থবছরের বাজেটে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য আগের মতোই রাখা হয়েছে। করমুক্ত আয়সীমা রাখা হয়েছে অপরিবর্তিত। যদিও বিশাল আকারের ঘাটতি পূরণে অভ্যন্তরীণ উৎসের প্রতি নির্ভরতা কিছুটা কমানোর পরিকল্পনা করেছেন অর্থমন্ত্রী। ঘাটতির অর্থ জোগাতে বৈদেশিক ঋণ নেওয়া হবে ৯৭ হাজার ৭৩৮ কোটি টাকা। অভ্যন্তরীণ খাত থেকে ঋণ নেওয়া হবে ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৫৩ কোটি টাকা।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘জীবন-জীবিকায় প্রাধান্য দিয়ে সুদৃঢ় আগামীর পথে বাংলাদেশ’ শিরোনামের এবারের বাজেট প্রস্তুত করা হয়েছে সরকারের অতীতের অর্জন এবং উদ্ভূত বর্তমান পরিস্থিতির সমন্বয়ে। এবারের বাজেটে সংগত কারণেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য খাতে। পাশাপাশি কভিড-১৯ মহামারী মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা- ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজগুলোর বাস্তবায়ন, কৃষি খাত, খাদ্য উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনাকে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। অর্থবছরের পুরো সময়জুড়েই থাকবে সরকারের নানা ধরনের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি, বাড়ানো হবে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতা। গতকাল দুপুর ১২টায় জাতীয় সংসদ ভবনের পশ্চিম ব্লকের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত মন্ত্রিসভা কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। নিয়ম অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এতে স্বাক্ষর করেন। পরে দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে খয়েরি রঙের ব্রিফকেস হাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সংসদের অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এ সময় তাঁর পরনে ছিল সাদা রঙের পাঞ্জাবি, ওপরে কালো মুজিবকোট। সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনেই সংসদে প্রবেশ করেন তিনি। এরপর বিকাল ঠিক ৩িটায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হলে অর্থমন্ত্রী বাজেট উপস্থাপন করেন। করোনাভাইরাসের কারণে সবচেয়ে কমসংখ্যক সংসদ সদস্যের উপস্থিতিতে দেশের ৫০তম বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময় সংসদের অধিবেশন কক্ষে বসে বাজেট উপস্থাপন অবলোকন করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। প্রস্তাবিত এ বাজেট অর্থমন্ত্রী হিসেবে আ হ ম মুস্তফা কামালের তৃতীয় ও বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের টানা ১৩তম এবং বাংলাদেশের ইতিহাসের ৫০তম। এ বছর স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘মুজিববর্ষ’ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন করা হয়ে“ যা অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায়ও উঠে এসেছে। টানা তৃতীয় মেয়াদে দেশ শাসন করছে আওয়ামী লীগ সরকার। স্বাভাবিকভাবেই দীর্ঘ এক যুগের সাফল্য-ব্যর্থতার ফুলঝুরি উঠে এসেছে অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায়।
বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, কভিড-১৯-এর দীর্ঘতর প্রভাব ও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে বৈশি^ক অর্থনীতি ব্যাপক ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। কভিড-১৯-এর কারণে দেশের অর্থনীতির বিভিন্ন খাতে সৃষ্ট ক্ষতি হতে পুনরুদ্ধারের কৌশল তুলে ধরা হয়েছে। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বরাদ্দ দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য, কৃষি ও কর্মসৃজনকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। আগামী বাজেটে করোনার দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব মোকাবিলায় জীবন ও জীবিকাকে প্রাধান্য দিয়ে অর্থনৈতিক পুনর্গঠনের মাধ্যমে জনগণের মৌলিক চাহিদা পূরণ নিশ্চিত করার বিষয়টি সক্রিয়ভাবে বিবেচনায় নিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। বাজেট বক্তৃতায় বলা হয়, বিগত এক দশকে দেশের ক্রমাগত উচ্চ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন কভিড-১৯-এর প্রভাবে সাময়িক বাধাগ্রস্ত হয়েছে। চলতি অর্থবছরে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৮ দশমিক ২ শতাংশ। কিন্তু মহামারীর প্রভাব দীর্ঘায়িত হওয়া এবং করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে পুনরায় লকডাউনে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড শ্লথ, আমদানি-রপ্তানিতে কাক্সিক্ষত গতি নেই। তবে প্রবাসী আয়ে কাক্সিক্ষত প্রবৃদ্ধি এবং সরকার-ঘোষিত অর্থনৈতিক প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নের বিবেচনায় চলতি অর্থবছরের প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন সংশোধন করে ৬ দশমকি ১ শতাংশ করা হয়েছে। পাশাপাশি কভিড-১৯-পরবর্তী উত্তরণের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পণার সঙ্গে মিল রেখে ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধির হার ৭ দশমিক ২ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। এ সময় মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৩ শতাংশ ধরা হয়েছে। নতুন বাজেটে সরকারের অগ্রাধিকারের ক্ষেত্রে কাঠামোগত পরিবর্তন আনা হয়েছে। কভিড মোকাবিলায় স্বাস্থ্য খাতকে সর্বাপেক্ষা অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয় অগ্রাধিকার খাত হিসেবে প্রধানমন্ত্রী-ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজসমূহের বাস্তবায়ন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কৃষিকে তৃতীয় অগ্রাধিকার খাত হিসেবে উল্লেখ করেছেন। কৃষিকে যান্ত্রিকীকরণ, সেচ ও বীজে প্রণোদনা, কৃষি পুনর্বাসন, সারে ভর্তুকি প্রদান অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী। অর্থমন্ত্রী আগামী বাজেটে শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়নসহ সার্বিক মানবসম্পদ উন্নয়নকে প্রাধান্য দিয়েছেন। সামাজিক নিরাপত্তার আওতা সম্প্রসারণ করাসহ ঘরহীন দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ঘর নির্মাণ এবং নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে বিনামূল্যে/স্বল্পমূল্যে খাদ্য বিতরণ কর্মসূচিকেও অগ্রাধিকারে রেখেছেন অর্থমন্ত্রী। দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়ার আওতায় আনার জন্য ভাগ ভাগ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন বাজেট বক্তৃতায়। ভ্যাকসিন কেনার জন্য যত টাকা লাগুক তা দেবে সরকার। চলতি অর্থবছরের মতো আাগামী অর্থবছরেও করোনা মোকাবিলায় ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী। স্বাস্থ্য খাতের গবেষণার জন্য চলতি অর্থবছরের মতো আগামী অর্থবছরেও গবেষণায়র জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দের কথা জানান অর্থমন্ত্রী। কভিড-১৯ মোকাবিলায় আগামী অর্থবছরে স্বাস্থ্য খাতে ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকার প্রস্তাব করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাপী করোনা দুর্যোগের কারণে খাদ্যশস্য উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থা বাধাগ্রস্ত হওয়ায় খাদ্য নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলেও বাংলাদেশ সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নেওয়ায় সমস্যা হয়নি। কর্মসংস্থানের ওপর জোর দেওয়ার কথা বলা হলেও সে বিষয়টি পরিষ্কার করেননি অর্থমন্ত্রী। সরকার দারিদ্র্য বিমোচনে সাহসী, দৃঢ়, জনকেন্দ্রিক এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক নীতি গ্রহণ ও বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে।
দারিদ্র্য বিমোচনে বাংলাদেশ ইতিমধ্যে বিশেষজ্ঞদের নজর কেড়েছে। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের মধ্যে দারিদ্র্যের হার ১২ দশমিক ৩ শতাংশে নামিয়ে আনার পরিকল্পনার কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রম সম্প্রসারণের কথা তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী বলেন, গত বছরের ন্যায় এ বছরও নিম্নআয়ের ৩৫ লাখ মানুষকে আড়াই হাজার করে নগদ টাকা দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে ১১২ উপজেলায় শতভাগ বয়স্ক ভাতা নিশ্চিত করা হয়েছে। আগামী অর্থবছরে তা বাড়িয়ে ১৫০ উপজেলা করা হয়েছে। এ খাতে ৪৮১ কোটি টাকা অতিরিক্ত ব্যয় হবে। একইভাবে ১১২টি উপজেলায় বিধবা ভাতা দেওয়া হতো। আগামী বাজেটে ১৫০ উপজেলা করা হচ্ছে। এ জন্য অতিরিক্ত ২৫৫ কোটি টাকা অতিরিক্ত বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। প্রতিবন্ধী খাতে ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ বাড়ানোর প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী। মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা ১২ হাজার থেকে বাড়িয়ে ২০ হাজার টাকা করা হয়েছে। এতে অতিরিক্ত ১ হাজার ৯২০ কোটি টাকা বরাদ্দ বাড়বে। আগামী অর্থবছরে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে ১ লাখ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি টাকার প্রস্তাব করা হয়েছে। যা বাজেটের ১৭ দশমিক ৮৩ শতাংশ এবং জিডিপির ৩ দশমিক ১১ শতাংশ।
ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উন্নয়নে ২০ হাজার কোটি টাকার একাধিক প্রণোদনা প্যাকেজ গ্রহণ করা হয়েছে, এটি বাস্তবায়ন হলে ২০২৪ সালের মধ্যে জাতীয় অর্থনীতিতে এ খাতের অবদান ৩২ ভাগে উন্নীত হবে। বাজেট বক্তৃতায় বলা হয়, বিনিয়োগ বাড়াতে দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হচ্ছে। এর মধ্যে ৯৭টি অঞ্চল স্থাপনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, ৯টি উৎপাদন শুরু করেছে। ২৮টির উন্নয়ন চলমান। অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো থেকে ২১০ জন বিদেশি বিনিয়োগকারীর কাছ থেকে ২৭ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ প্রস্তাব পেয়েছে। দুর্নীতি কমিয়ে আনতে দুদককে সম্পূর্ণ ডিজিটাল করার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। মোবাইল ব্যাংকিং আরও সহজীকরণ করা হয়েছে। এমএফএস মাধ্যমে লেনদেনের ব্যক্তিসীমা ৭৫ হাজার টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ২ লাখ টাকা করা হয়েছে। ক্যাশ আউট চার্জ ১ হাজার টাকা পর্যন্ত মওকুফ করা হয়েছে। ব্যাংক সুদের যৌক্তিকীকরণ নীতিমালার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ব্যাংক রেট ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৪ শতাংশ পুনর্র্নিধারণ করা হয়েছে। মুদ্রাবাজারে তারল্য ব্যবস্থাপনা সুষ্ঠু রাখার স্বার্থে সিআরআর ৪ শতাংশ, অফশোর ইউনিটের জন্য ২ শতাংশ এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের জন্য ১ দশমিক ৫ শতাংশ পুনর্র্নিধারণ করা হয়েছে।
রাজস্ব আহরণের ব্যাপারে অর্থমন্ত্রী তার প্রস্তাবনায় বলেন, করহার না বাড়িয়ে কর ব্যবস্থা সংস্কার করা হয়েছে। ই-টিআইএনধারীদের কর বিবরণী জমা দিতে উদ্বুদ্ধকরণ করা হয়েছে। নতুন করদাতা শনাক্তকরণ এবং কর ফাঁকি রোধে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিরাজমান ব্যবসাবান্ধব পরিবেশের সঙ্গে প্রতিযোগিতামূলক করহার দেশের বাণিজ্য প্রসারে ও শিল্পায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। ২০২১-২২ অর্থবছরে করপোরেট করহার আরও কমিয়ে নন-লিস্টেড কোম্পনির জন্য ৩২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ৩০ শতাংশের প্রস্তাব করা হয়েছে। তালিকাভুক্ত কোম্পানির জন্য ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২২ দশমিক ৫ শতাংশ করা হয়েছে। নন-লিস্টেড ব্যক্তি কোম্পানির ক্ষেত্রে ৩২ দশমিক ৫ শতাংশ করা হয়েছে। অর্থনীতিকে অধিকতর আনুষ্ঠানিক করা এবং এক ব্যক্তি কোম্পানির প্রতিষ্ঠা উৎসাহিত করার লক্ষ্যে এক ব্যক্তি কোম্পানির করহার ২৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। আগামী অর্থবছরে ব্যক্তিশ্রেণির করমুক্ত আয়ের সীমা অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিদের করমুক্ত আয়ের সীমা সাড়ে ৩ লাখ টাকা করা হয়েছে।
ব্যবসায়িক টার্নওভারের ওপর করহার দশমিক ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে দশমিক ২৫ করা হয়েছে। সারচার্জ ৭ স্তরের পরিবর্তে ৫ স্তরে নামিয়ে আনার প্রস্তাব করা হয়েছে। আইটি ফ্রি ল্যান্সিং সেবা ২০২৪ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এসএমই খাতে নারীদের টার্নওভারের ৭০ লাখ পর্যন্ত করমুক্ত প্রস্তাব করা হয়েছে। মেগা শিল্পের বিকাশ এবং আমদানি বিকল্প শিল্প উৎপাদনকে ত্বরান্বিত করতে মেড ইন বাংলাদেশ ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠায় অটোমোবাইল থ্রি হুইলার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে ১০ বছররের কর অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। সিমেন্ট আমদানির কাঁচামাল করহার ৩ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২ শতাংশ করা হয়েছে। উদ্যোক্তা তৈরির ক্ষেত্রে ১০ বছরের কর অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। শিল্পের কাঁচামাল আমদানির ক্ষেত্রে আগাম কর ৪ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ভ্যাট ফাঁকির মামলায় রাজস্বের দ্বিগুণ জরিমানার চেয়ে সমপরিমাণ করা প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।