চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজে ‘মাদকের ভয়াবহতা’ শীর্ষক সেমিনারে অধ্যক্ষ কামরুজ্জামান

389

একমাত্র সচেতনতাই পারে মাদক থেকে আমাদের বাঁচাতে
নিজস্ব প্রতিবেদক: চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজে ‘মাদকের ভয়াবহতা” শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার আহ্ছানিয়া মিশন মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র যশোরের সহযোগিতায় চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ, চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ ও জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কার্যালয় এ সেমিনারের আয়োজন করে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কার্যালয় চুয়াডাঙ্গার সহকারি পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. কামরুজ্জামান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. কামরুজ্জামান বলেন- সব মাদকাসক্তির প্রথম ধাপ হলো ধূমপান। এটি বিষপানের চেয়েও ভয়ঙ্কর। বিষপানে মৃত্যু ঘটে, কিন্তু ধূমপানে মানুষ ধুঁকে ধুঁকে মরে। ধূমপান ব্যক্তি, সমাজ ও জাতির জন্য এক জীবন্ত অভিশাপ। এ অভিশাপ আমাদের সমাজকেও গ্রাস করছে। ক্যান্সারের মতো দুরারোগ্য ব্যাধিতেও ধূমপানের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। এটি শুধু শারীরিক ক্ষতিই করে না, মানসিক ও বিভিন্ন সমস্যার জন্ম দেয়। সুস্থ মনমানসিকতাও নষ্ট করে দেয়। ধূমপানের ক্রমাগত নেশাই মানুষকে মাদকাসক্তির দিকে নিয়ে যায়। আমাদের দেশের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরা এখন মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। তোমাদের সবাইকে এই ভয়াবহ মাদক থেকে দূরে থাকতে হবে। এ ছাড়া নিজের আশপাশের সবাইকে মাদকের কুফল জানাতে হবে। একমাত্র সচেতনতাই পারে মাদক থেকে আমাদের বাঁচাতে। সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এ. কে. এম. সাইফুর রশিদ, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, চুয়াডাঙ্গার পুলিশ পরিদর্শক তোজাম্মেল হক, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কার্যালয় মেহেরপুরের সহকারি পরিচালক ইফতেখার উমার। অনুষ্ঠানে পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা করেন আহ্ছানিয়া মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র যশোরের সেন্টার ম্যানেজার আমিরুজ্জামান লিটন। সেমিনারে চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের শিক্ষক ও ২৫০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।