চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ৫ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, ঝিনাইদহসহ সারাদেশে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের বিক্ষোভ

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদ
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ৫, ২০২২ ২:১৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির ষড়যন্ত্র ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা ও দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়ার ঘোষণা

 

সমীকরণ প্রতিবেদন: আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ও দেশবিরোধী বক্তব্যের প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, ঝিনাইদহসহ সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাবেশ থেকে রাজপথে থেকেই বিএনপি-জামায়াতসহ স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির সকল ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা ও দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। গতকাল শনিবার পৃথক আয়োজনে সারা দেশে
এ বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিএনপি সমর্থিত জোটের দুস্কৃতিকারীরা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ও দেশবিরোধী বক্তব্যের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে দলীয় কার্যালয় হতে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শহীদ হাসান চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। সেই সাথে প্রধানমন্ত্রীকে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্যকারী বিএনপি-জামায়াত জোটের সকলের শাস্তির দাবি জানাই এবং ছাত্রদলকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করতে হবে। স্বাধীনতাবিরোধী সকল অপশক্তিকে বাংলাদেশ থেকে বিতাড়িত করা হবে, তাদের সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে, চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সকল বিএনপি-জামায়াত জোটের ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করা হবে। স্বাধীনতাবিরোধী সকল অপশক্তির ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়নে সর্বদা প্রস্তুত আছে আওয়ামী লীগ। ছাত্রদলের সন্ত্রাসীরা আমাদের নেত্রীকে নিয়ে যে কটূক্তি করেছে এটি মেনে নেওয়া যায় না। দ্রুত আইনের মাধ্যমে তার বিচারের দাবি জানাচ্ছি।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক অ্যাড. আবু তালেব বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. শামসুজ্জোহা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. তালিম হোসেন, কোষাধ্যক্ষ আলী রেজা সজল, উপ-প্রচার সম্পাদক শওকত আলী বিশ্বাস, কার্যনির্বাহী সদস্য ও জেলা জজ আদালতের বিজ্ঞ পিপি অ্যাড. বেলাল হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এবিএম জহুরুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার, পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকন, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গরীব রুহানি মাসুম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহাজাদী মিলি, জাতীয় মহিলা সংস্থা চুয়াডাঙ্গা সভাপতি রুকসানা নাবিলা ছন্দা, পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়া সাহাব, যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক গিণি ইসলাম, জেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক আরেফিন আলম রঞ্জু, সাবেক যুবলীগ নেতা আব্দুল কাদের, সিরাজুল ইসলাম আসমান, শাকিল আহম্মেদ টিপু, শেখ সেলিম, আব্দুস সালাম, সোহেল, টুটুল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি সাহাবুল ইসলাম, ছাত্রলীগ নেতা গালিব, রাজু আহমেদ, হিমেল মল্লিক, ওয়ালিউর রকি, সোহেল, মিঠুন, আলিফ নূর, মোমিনপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান নিপুল, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মামুন রতন, আলুকদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান আবুল কালাম, পদ্মবিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি খাজা আহমেদ ও ইউপি চেয়ারম্যান আলম মন্ডল, মাখালডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বিশ্বজিৎ দাস, জেলা শ্রমিক লীগ এর সাধারণ সম্পাদক রিপন মন্ডল, শ্রমিক লীগের সকল ইউনিটের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, জেলা কৃষক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তহিদুর রহমান চন্দন ও সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কবির, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য ও রেড ক্রিসেন্ট চুয়াডাঙ্গা ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শাহান, সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাফিজুর ইসলাম লাল্টু প্রমুখ।
অপর দিকে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ও দেশবিরোধী বক্তব্যের প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গায় জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ, জেলা কৃষক লীগ ও জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল পাঁচটায় চুয়াডাঙ্গা কলেজ রোড থেকে সংগঠন তিনটি একযোগে একটি বৃহত্তর বিক্ষোভ মিছিল সহকারে বের হয়ে কোর্ট রোড, পুরাতন হাসপাতাল রোড, আবুল কাশেম সড়কসহ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে শহীদ হাসান চত্বরে এসে শেষ হয়। পরে শহীদ হাসান চত্বরে এক বিক্ষোভ সমাবেশ করে সংগঠন তিনটি। এ বিক্ষোভ সমাবেশে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শিতায় দেশ যখন উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছাতে যাচ্ছে। সকল বৃদ্ধাঙ্গুলী, ষড়যন্ত্র উপক্ষো করে পদ্মা সেতু উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। তখন দেশবিরোধী চক্র বিএনপি ও তার দোষররা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকিসহ নানা ধরণের কটূক্তি করছেন। আওয়ামী লীগ ঠুনকে কোনো দল নয়। আমরা মাঠে আছি, থাকব এবং সকল ষড়যন্ত্রের মোকাবিলা করব।
বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য দিলীপ কুমার আগরওয়ালা। তিনি বলেন, ‘আমি এক বাক্যে বিএনপিকে বলতে চাই আপনারা সতর্ক হোন। না হলে জনগণ আপনাদের এমনভাবে প্রতিহত করবে যে, আপনারা মাঠে অস্তিত্ব খুঁজে পাবেন না। বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষ আপনাদের লাঠিপেটা করবে।’ তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘একটি গভীর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। আপনারা সবাই ঐক্যবদ্ধ হোন। সকল ষড়যন্ত্রকে প্রতিহত করতে হবে।’
সমাবেশে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক ও চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু। তিনি বলেন, ‘আমি জামায়াত-বিএনপিকে বলতে চাই, যদি আমার নেত্রীর নামে কোনো কথা হয়, তাহলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ, ছাত্রলীগ এ দেশের সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবে।
সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. আব্দুল মালেক, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. শফিকুল ইসলাম শফি, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক জোয়ার্দ্দার প্রমুখ। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষক লীগের সহসভাপতি আক্তারুজ্জামান, সলিল মল্লিক, আইনবিষয়ক সম্পাদক আব্দুল খালেক, দপ্তর সম্পাদক রাকিব আহম্মেদ জনি, সদর থানা কৃষক লীগের আহ্বায়ক আব্দুল মতিন দুদু, যুগ্ম আহ্বায়ক দিনুল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. জানিফ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য গাজী ইমদাদুল হক সজলসহ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের বিক্ষোভ মিছিল:
চুয়াডাঙ্গায় জেলা আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা হুমকির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্রীয় যুবলীগের নির্দেশে চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দাদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় জেলা যুবলীগের কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। বিক্ষোভ মিছিলের নেতৃত্ব দেন জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জিল্লুর রহমান জিল্লু ও সামসুদ্দোহা মল্লিক হাসু। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বড় বাজার শহিদ হাসান চত্বরে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে জেলা যুবলীগের আয়োজনে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের সদস্য সাজেদুল ইসলাম লাভলুর সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জিল্লুর রহমান জিল্লু। সমাবেশে প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সামসুদ্দোহা মল্লিক হাসু। জেলা যুবলীগের সদস্য হাফিজুর রহমান হাপুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বিশেষ অতিথি থেকে বক্তব্য দেন জেলা যুবলীগের সদস্য আজাদ আলী, আলমগীর আজম খোকা ও আবু বক্কর সিদ্দিক আরিফ। সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন চুয়াডাঙ্গা সাবেক কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ও যুবলীগ নেতা আল ইমরান শুভ এবং যুবলীগ নেতা খালিদ মণ্ডল।
এসময় উপস্থিত ছিলেন আলুকদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা শান্তি, জেহালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক মকলেছুর রহমান শিলন, যুগ্ম আহ্বায়ক বকুল হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক আনারুল, নাগদাহ ইউনিয়নের সভাপতি আবুল হাসনাত, পদ্মবিলা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির বনফুল, সাধারণ সম্পাদক জাণ্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুমন মেম্বার, শঙ্করচন্দ্র ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক সেলিম রেজা, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহফুজ, মোমিন, জিসান, কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মাসুদ রানা মাসুম, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, গড়াইটুপি ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রাশেদুর জামান পলাশ, সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন চান, নেহালপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলী, মোমিনপুর ইউনিয়ন যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোমিন, ছোট, বাড়াদী ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক শরীফ হোসেন, গাংনী ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা বজলুর রহমান, মাখালডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা জাকির, ফিরোজ, সোহাগ, বেগমপুর ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা শামীম মিজি, পৌর তিন নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি রানা, সাধারণ সম্পাদক খান জাহান, ৫ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আলিম, সাধারণ সম্পাদক মিঠুন, সাংগঠনিক সম্পাদক রনি, ৭ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি আসাদ ও সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব।
এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা যুবলীগ নেতা পিরু মিয়া, মাসুদুর রহমান মাসুম, রামীম হাসান সৈকত, চুয়াডাঙ্গা পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি ও যুবলীগ নেতা সামিউল শেখ সুইট, শেখ রাসেল, তানভীর রেজা টুটুল, রনি, দিপু বিশ্বাস, লোকমান, জামাল খান, সুমন, ইমরান, হিরা, মিণ্টু, মুন্না, হাসান, সজিব, সজল, জনি, সাকিব, বাচ্চু, চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক আনোয়ার শেখ, ছাত্রলীগ নেতা শাওন রেজা কবীর, মৃদৃল ইসলাম সৌরভ, ওয়াশিম, আতাউর রহমান বিপুল, মাহফুজসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতা-কর্মীবৃন্দ।

যুব মহিলা লীগ:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ও দেশবিরোধী বক্তব্যের প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গায় যুব মহিলা লীগ বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছে। গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় জেলা যুব মহিলা লীগের আয়োজনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। যুব মহিলা লীগের নেতা-কর্মীরা চুয়াডাঙ্গা গোরস্তানপাড়া থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে শহরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ঘুরে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সামনে এসে শেষ করে। পরে একই স্থানে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সহসভাপতি ইভা খাতুন, শিউলি খাতুন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আলীজা আক্তার ও জাহানারা খাতুন, সদর উপজেলা যুব মহিলা লীগ সভাপতি পারুল খাতুন, সাধারণ সম্পাদক কাজলী খাতুন, আলমডাঙ্গা উপজেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরা খাতুন, সাংগঠনিক সম্পাদক পপি খাতুন, দামুড়হুদা উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাহিদা খাতুন, সাধারণ সম্পাদক আদুরী খাতুন ও জীবননগর উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি কহিনুর খাতুনসহ জেলার প্রায় পাঁচ শতাধিক যুব মহিলা লীগ নেতৃবৃন্দ।

আলমডাঙ্গা:
আলমডাঙ্গা উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিএনপি-জামায়াত কর্তৃক হত্যার হুমকির প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সারাদেশের ন্যায় বেলা সাড়ে তিনটায় আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় থেকে এক বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। বিক্ষোভ মিছিলটি চারতলার মোড় হয়ে হাজী মোড়, মাছ বাজার, আলিফ উদ্দিন মোড়, স্বাধীনতা স্তম্ভ মোড় ঘুরে আল-তায়েবা মোড়ে এসে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু মুছার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাস্টারের উপস্থাপনায় বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান ফারুক, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুর রহমান পিণ্টু, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শাহ আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব লিয়াকত আলী লিপু মোল্লা, সাবেক পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদুর রহমান অরুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আতিয়ার রহমান, সাবেক ধর্ম সম্পাদক হাজী ঠান্ডু রহমান, সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক মহিদুল ইসলাম মহিদ, সাবেক প্রচার সম্পাদক মাসুদ রানা তুহিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুর মোহাম্মদ জকু, কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক সোহেল রানা শাহিন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি অ্যাড. সালমুন আহমেদ ডন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মারজাহান নিতু, ইউপি চেয়ারম্যান আশিকুজ্জামান অল্টু, আবু সাঈদ পিণ্টু, তরিকুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসান চঞ্চল, শেখ আশাদুল হক মিকা, এমদাদ মুন্সি, পৌর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রিপন আলী, দপ্তর সম্পাদক মাসুদ সালেহীন উৎপল, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু মুসা, লাকচু, শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক মেহেদিজ্জামান, মহিলাবিষয়ক সম্পাদক ডালিম রানী, পৌর আওয়ামী লীগের সদস্য মহসিন কামাল, নূরনবী, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সম্পাদকের মধ্যে নুরুল ইসলাম দিপু, জয়নাল আবেদীন, মোল্লা কামরুজ্জামান শামিম, মোস্তাফিজুর রহমান রুন্নু, বিল্লাল গণি, তোফাজ্জেল হোসেন, আব্দুল হান্নান, আইনাল হক, আব্দুর রাজ্জাক, সাজিবার রহমান, মকবুল হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা দিদার আলী, রাহাব আলী, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি নয়ন সরকার, সম্পাদক নাহিদ হাসান তমাল, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আশরাফুল হক, যুগ্ম সম্পাদক হাসানুজ্জামান, ছাত্রলীগ নেতা ইছানুর কবীর, রকি, সাকিব, সজিব, টিটন, অটাল, শিহাব, টিংকু মোল্লা, পৌর ওয়ার্ড সভাপতি সম্পাদকের মধ্যে কামাল হোসেন, জাহাঙ্গীর আলম, কাউন্সিলর জহুরুল ইসলাম স্বপন, সিরাজুল ইসলাম, লাভলু, পরিমল কুমার কালু ঘোষ, মাহবুব আলম, আক্তারুজ্জামান, দেলোয়ার মোল্লা, শহিদ মোল্লা, আাফায়েত আলী, মহিলা আওয়ামীলীগের নেত্রী সাহিদা ইসলাম, মনিরা পারভীন, মর্জিনা খাতুন, জাহানারা খাতুন, সালেহ, ফিরোজা, শাহানাজ, সুফিয়া, সালমা প্রমুখ।

দামুড়হুদা:
দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে দামুড়হুদা বাসস্ট্যান্ড থেকে চৌরাস্তার মোড় ঘুরে উপজেলা গেটে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহফুজুর রহমান মঞ্জুর নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন দামুড়হুদা সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল কবির ইউসুফ, দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হযরত আলী, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেলিম উদ্দিন বগা, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের নেতা হযরত আলী, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক রকিবুল হাসান, জুড়ানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন, নতিপোতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইয়ামিন আলী, নাটুদাহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাজু আহম্মেদ রিংকুসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ।

কার্পাসডাঙ্গা:
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তি ও হত্যার হুমকির প্রতিবাদে দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গায় বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংঠনের নেতা-কর্মীরা। গতকাল শনিবার বিকেল চারটায় কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিলটি ব্রিজ মোড় থেকে বের হয়ে বাজারের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কার্পাসডাঙ্গা কাউন্সিল মোড়ে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান হাজি সহিদুল ইসলাম।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজির আহম্মেদের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন কার্পাসডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল করিম বিশ্বাস, কুড়ুলগাছি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. হাবিবুল্লাহ বাহার, কুড়ুলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি সহিদুল হক, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল কাদের বিশ্বাস, সিরাজুল ইসলাম, আব্দুল হান্নান, ইস্রাফিল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক নজির আহম্মেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুর রহমান মুকুল, মখলেছুর রহমান রিপন, কুড়ুলগাছি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরোয়ার হোসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুল মালেক, আওয়ামী লীগ নেতা হাসমত আলী, করিম শাহ, নাসির উদ্দিন, আশরাফ আলী, শহিদুল সর্দ্দার, সাইদুর রহমান সাইদ, আশাবুল হক আশা পাল, আব্দুল হামিদ, নাজমুল হাসান গেগার, নাজমুল হাসান, জামাত আলী, দুই ইউনিয়নের সকল ইউপি সদস্য, যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম এপি, মোস্তাফিজ কচি, শরীফুজামান শরীফ, আব্দুল মজিদ, আতিক, বখতিয়ার খলজি বকুল, মেহেদী হাসান মিলন, শফি উদ্দিন, তুহিন, আক্তার আলী, জহির খান, ছাত্রলীগ নেতা সানাউল কবির শিরিন, অপূর্ব, রোমেল, ফয়সাল, লিমন, খায়রুলসহ কার্পাসডাঙ্গা ও কুড়ুলগাছি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ, কৃষকলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের শতশত নেতা-কর্মী।

জীবননগর:
প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি ও হত্যার হুমকির প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে জীবননগর মুক্তমঞ্চে এই বিক্ষোভ ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে জীবননগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজী আলী আজগার টগর।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, যারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্য বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটুক্তি ও হত্যার হুমকি প্রদান করেছে তাদের দাত ভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে। যে দলের নেতা গরীর এতিমের টাকা আত্বস্বাৎ করতে পারে তারা দেশের কোনো উন্নয়ন মূলক কাজ করতে পারে না। বিএনপির আমলে তারা বাংলাদেশটাকে ধ্বংস করে দিয়েছিল। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পরে দেশে যে উন্নয়ন হয়েছে তা দেশের মানুষ কখনও ভুলতে পারবে না। দেশের উন্নয়ন দেখে বিএনপি-জামায়াতের নেতাদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। এখন তারা দিনের বেলা ভুল-ভাল কথা শুরু করেছে। যারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কুটুক্তি ও হত্যার হুমকি প্রদান করেছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলবো এবং যারা এই ধরনের কথাবার্তা বলেছে তাদের শাস্তি না হওয়া পযন্ত আমরা রাজপথে থাকব।
সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু মো. আব্দুল লতিফ অমল, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মো.হাফিজুর রহমান, পৌর মেয়র মো. রফিকুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মুন্সী নাসির উদ্দিন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম, জীবননগর থানা যুবলীগের সভাপতি ও ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম ইসা, সাধারণ সম্পাদক সোয়েব আহম্মেদ অঞ্জন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা. আশেয়া সুলতানা লাকী, বাঁকা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের প্রধান, সাধারণ সম্পাদক ফরজ আলী, আন্দুলবাড়ীয়া ইউপি চেয়ারম্যান শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তার, রায়পুর ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুল রশিদ শাহ, মনোহরপুর ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন খাঁন, সীমান্ত ইউপি চেয়ারম্যান ইসাবুল ইসলাম মিল্টন, উথলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হান্নান, মনোহরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রসুল, সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব বকুল, সীমান্ত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আ. মালেক মোল্লা, আওয়ামী লীগ নেতা আকিমুল ইসলামসহ ছাত্রলীগ, যুবলীগ, মহিলালীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মেহেরপুর:
মেহেরপুরে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তি ও হত্যার হুমকির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগ। গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে গাংনী পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাহিবুল ইসলামের সঞ্চালনায় ও গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মকলেছুর রহমান মুকুলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন এমপি। এছাড়াও বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান মাস্টার, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন, গাংনী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু, সাবেক ছাত্র নেতা সাইফুজ্জামান শিপু। এসময় উপস্থিত ছিলেন, বামুন্দি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান ওবাইদুর রহমান কমল, সাহারবাটি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ মুর্শেদ অতুল সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক প্রমুখ। এর আগে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান এমপির নেতৃত্বে একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল গাংনী বাজার বাসস্ট্যান্ড শহীদ রেজাউল চত্বর থেকে বের হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শেষে সমাবেশে মিলিত হয়

মুজিবনগর:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকি ও দেশব্যাপী বিএনপির নৈরাজ্য ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে মুজিবনগরের কেদারগঞ্জ বাজারে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ। গতকাল শনিবার বিকেল চারটার দিকে কেদারগঞ্জ বাজারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম তোতার নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে বাজারের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিল শেষে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান চাঁদুর সঞ্চলনায় প্রধান বক্তা ছিলেন মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম তোতা।
বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, বাগোয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আয়ূব হোসেন, দারিয়াপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাকিম হক খোকন, বাগোয়ান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান মধু, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নাসিরউদ্দীন বাবলু, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সোনাল উদ্দীন, উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি তকলিমা খাতুন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি মতিউর রহমান মতিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ সাকিব, উপজেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা তাঁতী লীগের আহ্বায়ক আব্দুল খালেক, উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি মহাসিন আলী, যুবলীগ নেতা হাসানুজ্জামান লাল্টু প্রমুখ।

গাংনী:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি ও কটূক্তির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগ। গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ও গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন।
গাংনী পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাহিবুল ইসলামের সঞ্চালনায় ও গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মকলেছুর রহমান মুকুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দেন গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান মাস্টার, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন, গাংনী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবু ও সাবেক ছাত্রনেতা শাহিদুজ্জামান শিপু।
এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বামুন্দী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান ওবাইদুর রহমান কমল, সাহারবাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ মুর্শেদ অতুল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক প্রমুখ। এর পূর্বে মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকনের নেতৃত্বে একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল গাংনী বাজার বাসস্ট্যান্ড শহীদ রেজাউল চত্বর থেকে শুরু হয়ে উপজেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শেষে সমাবেশে মিলিত হয়।

ঝিনাইদহ:
বঙ্গবন্ধু কন্যা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্রদের ওপর ছাত্রদলের হামলার প্রতিবাদে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে এ শহরের পায়রা চত্বর থেকে এই মিছিল শুরু হয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মকবুল হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিণ্টু, দলের সহসভাপতি তৈয়ব আলী জোয়ার্দ্দার, সাবেক ছাত্রনেতা গোলাম সরোয়ার খান সউদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক কনক কান্তি দাস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ আহমেদ সঞ্জু, সাংগঠনিক সম্পাদক অশোক কুমার ধর, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক এসএম আনিছুর রহমান খোকা, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আহাদুর রহমান খোকন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বিশ্বাস, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আছাদুজ্জামান আছাদ, প্রচার ও প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক মনজুর পারভেজ তুষার, উপ-দপ্তর সম্পাদক ও হরিণাকুণ্ডু উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসাইন, যুব মহিলা লীগের সভাপতি শাপলা ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সালমা ইয়াসমিন, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম শিমুল, সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি রানা হামিদসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্দ।
বক্তরা বিএনপি নেতা-কর্মী ও তাদের অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীদের মুখে লাগাম টানার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে পাকিস্তান ও মুসলিম লীগের ষড়যন্ত্রে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। সেদিন তারা বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, করেছিল বাংলাদেশকে, ধ্বংস করতে চেয়েছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে। জিয়াউর রহমান বলেছিল কোনো দিন বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার এ দেশে হবে না। কিন্তু বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। ২১ বার বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করেছে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তি। কিন্তু তারা সফল হয়নি। আর কোনো দিন সফল হবেও না। যারা বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হত্যার হুমকি দিয়েছে, তাদেরকে অতিদ্রুত আইনের আওতায় আনা হোক।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।