চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ৫ জুলাই ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহে আরও ২৪ জনের মৃত্যু!

সমীকরণ প্রতিবেদন
জুলাই ৫, ২০২১ ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

সারা দেশে আটদিনে করোনায় হাজারের বেশি প্রাণহানি, নতুন শনাক্ত ৮৬৬১
নিজস্ব প্রতিবেদক:
সারা দেশে টানা আটদিন মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এক হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু দেখল দেশ। দেশব্যাপী করোনাভাইরাস মোকাবেলায় চলমান লকডাউনের চতুর্থ দিনে অর্থাৎ গতকাল রোববার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ১৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ৮ হাজার ৬৬১ জনের শরীরে। এদিকে, গতকাল চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্র্গ নিয়ে আরও ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৫২ জনের শরীরে। গত ২৪ ঘন্টায় মেহেরপুরে করোনা ও উপসর্গে মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের এবং নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৮ জন। অন্যদিকে, গতকাল ঝিনাইদহে করোনা ও উপসর্গে মৃত্যু হয়েছে আরও ৮ জনের। নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ জন। এদিকে, গত ২৪ ঘন্টায় চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহে করোনা ও উপসর্গে ২৪ জনের মৃত্যুতে সবার কপালে চিন্তার ভাজ ফেলেছে।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে নতুন করে আরও ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল জেলায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে আরও ১৫২ জন। গতকাল রোববার জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষিত চুয়াডাঙ্গার ৩৭০টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে। এরমধ্যে ১৫২টি নমুনার ফলাফল পজিটিভ ও ২১৮টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। জেলায় নতুন আক্রান্ত ১৫২ জনের মধ্যে সদর উপজেলার ৬৮ জন, আলমডাঙ্গার ২২ জন, দামুড়হুদা উপজেলার ১৮ জন ও জীবননগর উপজেলার ৪৪ জন রয়েছেন। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের ৪০.০৮ শতাংশ। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছে ৩ হাজার ৮০৫ জন। আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলার ১ হাজার ৬৪৫ জন, আলমডাঙ্গার ৬১০ জন, দামুড়হুদায় ৮৫২ জন ও জীবননগরে ৬৯১ জন। গতকাল জেলা থেকে আরও ৪ জন সুস্থ হয়েছেন। এনিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হলেন ২ হাজার ৩৪৬ জন।
গতকাল চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত হয়ে সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটের রেড জোনে দুজন ও ইয়োলো জোনে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও ছয়জনের মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত করেছে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ। এছাড়া জেলার বিভিন্নস্থানে উপসর্গে আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। জেলা স্বাস্থ্যবিভাগের তথ্যমতে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে মোট ১১৬ জনের।
গতকাল সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটের রেড জোনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা আক্রান্ত হয়ে একজন, হোম আইসোলেশনে একজন ও জেলায় আক্রান্ত হয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলার বাইরে মৃত্যু হয়েছে আরও দুজনের। গতকাল হাসপাতালের রেড জোনে মৃত্যু হওয়া দুজন হলেন- চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার সাদেক আলী মল্লিকপাড়ার শহিদুল ইসলামের স্ত্রী ফরিদা ইয়াসমিন (৪৫) ও সদর উপজেলার কুন্দিপুর গ্রামের ফজলু মণ্ডলের স্ত্রী আল্লাদী খাতুন (৬০)।
গতকাল সদর হাসপাতালের ইয়োলো জোনে করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া ছয়জন হলেন- চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার নেহালপুর গ্রামের ভোলানাথ হালদারের ছেলে শ্রী মৃতুঞ্জয় (৭৬) ও হাসনহাটি গ্রামের তৈয়ব আলী বিশ্বাসের ছেলে পল্টু বিশ্বাস (৪২)। দামুড়হুদা উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের নাসির উদ্দীনের স্ত্রী নাজমা বেগম (৪০), একই উপজেলার ফকিরপাড়ার মৃত ইউনুস মণ্ডলের ছেলে গোলাম হোসেন (৭০) ও দর্শনা থানার কুন্দিপুর গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে নজরুল ইসলাম (৬৫)। এছাড়াও ঝিনাইদহ জেলার কাঠকুমড়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে বিপুল হোসেন (২৫) নামের এক যুবকের চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের ইয়োলো জোনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। এছাড়া উপসর্গে জেলার বিভিন্ন এলাকায় মারা যাওয়া অন্য তিনজনের পুরো ঠিকানা পাওয়া যায়নি।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. এ এস এম ফাতেহ্ আকরাম জানান, গতকাল রোববার (৪ জুন) সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা আক্রান্তে দুজন ও ইয়োলো জোনে ছয়জনসহ মোট আটজনের মৃত্যু হয়েছে। করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া প্রত্যেকের শরীর থেকে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করেছে স্বাস্থ্যবিভাগ। মৃত্যুর পর করোনা প্রটোকলে নিহতের লাশ পরিবারের সদস্যদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হওয়া নতুন দুজনসহ জেলায় আক্রান্ত হয়ে জেলায় হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে মৃত্যু হয়েছে মোট ৯৮ জনের।
জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য গত বৃহস্পতিবার ২৫৯টি, শুক্রবার ২৭টি ও শনিবার ২৮২টি নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করে। গতকাল উক্ত নমুনা ও পূর্বের পেন্ডিং নমুনার মধ্যে ৩৭০টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ। গতকাল জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ আরও ৩৬৯টি নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করেছে।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ১৪ হাজার ৮০৯টি, প্রাপ্ত ফলাফল ১৪ হাজার ১৪০টি, পজিটিভ ৩ হাজার ৮০৫ জন। জেলায় বর্তমানে ১ হাজার ৩৪১ জন হোম আইসোলেশন ও হাসপাতাল আইসোলেশনে রয়েছে। এর মধ্যে হোম আইসোলেশনে আছে ১ হাজার ২৬৪ জন ও হাসপাতাল আইসোলেশনে ৭৭ জন। গতকাল রোববার করোনা আক্রান্ত হয়ে জেলায় প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১১৬ জনের। এর মধ্যে জেলায় আক্রান্ত হয়ে জেলার হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে মৃত্যু হয়েছে ১০০ জনের। এছাড়া চুয়াডাঙ্গায় আক্রান্ত অন্য ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে।
মেহেরপুর:
মেহেরপুর জেলায় করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সেই সংখ্যার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় এই জেলায় নতুন করে ৮৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সদর উপজেলার ৫২ জন, গাংনী উপজেলার ৩২ জন এবং মুজিবনগর উপজেলায় ৫ জন। বর্তমানে করোনা আক্রান্ত হয়ে হোম ও হাসপাতাল আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৬৩৪ জন। জেলায় এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ২৪৩ জন। এদিকে, গতকাল মেহেরপুরে করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে মেহেরপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৪ জন এবং ঢাকাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক শিক্ষকের মৃত্যু হয়। জানা যায়, গতকাল জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষিত ১৬৩টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে। এরমধ্যে ৮৮টি নমুনার ফলাফল পজিটিভ এসেছে।
গতকাল মেহেরপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সদর উপজেলার টুঙ্গী গোপালপুর গ্রামের আবুল কাশেমের স্ত্রী নুরান্নাহার (৭০), রাধাকান্তপুর গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী নিলুফার ইয়াসমিন (৬০), পিরোজপুর গ্রামের খয়ের উদ্দিনের ছেলে রজব আলী (৬০) ও গাংনী উপজেলার সালদা গ্রামের আলিশা মণ্ডলের স্ত্রী আয়েশসহ (৬৫) করোনা আক্রান্ত চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া গতকাল মেহেরপুর শহরের স্টেডিয়ামপাড়া অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও হোমিও চিকিৎসক ইদ্রিস আলী ঢাকার বনানীর একটি হাসপাতালে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। এনিয়ে জেলায় মোট মৃত্যু হয়েছে ৫৭ জনের। এর মধ্যে সদর উপজেলার ২১ জন, গাংনী উপজেলার ২২ জন ও ১৪ জন মুজিবনগর এলাকার বাসিন্দা।
ঝিনাইদহ:
ঝিনাইদহে একের পর এক মৃত্যুর বিভিষিকাময় খবরে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে জেলাবাসী । গত ২৪ ঘণ্টায় ঝিনাইদহে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে আরও ৮ জনের। এনিয়ে জেলায় শুধু করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাড়িঁয়েছে ১০০ জনে। গতকাল জেলায় নতুন আক্রান্ত হয়েছে ১৭ জন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ঝিনাইদহ করোনা ইউনিটে ৫৭ জন চিকিৎসাধীন অবস্থঅয় ছিলো। ঝিনাইদহ ইসলামিক ফাউন্ডেশন এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া ১১১ জনের লাশ দাফন করেছে।
সারা দেশ:
মহামারী করোনাভাইরাস দেশে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। গত আটদিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১ হাজার ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই সময়ে প্রতিদিনই শতাধিক মৃত্যু হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে, গতকাল ৩ জুলাই মারা যায় ১৩৪ জন, ২ জুলাই ১৩২ জন, ১ জুলাই ১৪৩ জন, ৩০ জুন ১১৫ জন, ২৯ জুন ১১২ জন, ২৮ জুন ১০৪ জন, ২৭ জুন ১১৯ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।
এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ১৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা দেশে একদিনে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু। এর আগে বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) দেশে সর্বোচ্চ ১৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এনিয়ে দেশে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৫ হাজার ৬৫ জনে। টানা আটদিন ধরে শতাধিক মৃত্যু দেখছে দেশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশের ২৯ হাজার ৮৭৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ৮ হাজার ৬৬১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৭ দশমিক ৩৯ শতাংশ। এনিয়ে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াড়িছে ৯ লাখ ৪৪ হাজার ৯১৭ জনে।
গতকাল রোববার স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে আরও বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে হয়েছেন ৪ হাজার ৬৯৮ জন। এ নিয়ে দেশে মোট সুস্থ হয়েছে ৮ লাখ ৩৩ হাজার ৮৯৭ জন। ২৪ ঘন্টায় সুস্থতার হার ৮৮.২৫ শতাংশ।

Girl in a jacket

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।