চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৪ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুরসহ ১৯টি জেলায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়ায় সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা গ্রহণ সম্পন্ন
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ৪, ২০২২ ১০:১৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন: তৃতীয় ধাপে চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুরসহ দেশের ১৯টি জেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

চুয়াডাঙ্গা:

চুয়াডাঙ্গা জেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগে তৃতীয় ধাপের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টায় শুরু হয়ে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এক ঘণ্টা চলে এ পরীক্ষা। চুয়াডাঙ্গাসহ দেশের ৩৩ জেলায় এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গায় ১২টি কেন্দ্রে সর্বমোট ১০ হাজার ৪১৩ জন পরীক্ষার্থী এই নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন। ৩৩ জেলার মধ্যে চুয়াডাঙ্গাসহ ১৯ জেলার সব উপজেলায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলাগুলো হলো- জয়পুরহাট, বগুড়া, পাবনা, চুয়াডাঙ্গা, নড়াইল, মেহেরপুর, নারায়ণগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, শরীয়তপুর, কক্সবাজার, ঝালকাঠি, সিলেট, ভোলা, বরগুনা, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড় ও সিলেট।

চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) শারমিন আক্তার জানান, সুষ্ঠু, সুন্দর ও নকলমুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা নেওয়ার জন্য পূর্বেই সব ধরণের প্রস্তুতি নেওয়া হয়। সে হিসেবে কোথায় কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে।

মেহেরপুর:

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় মেহেরপুর জেলাতে ৬ হাজার ১১৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অনুপস্থিত ছিলেন ১ হাজার ৭৪৮ জন। যা শতকরা হিসেবে ২৮.৫ শতাংশ। গতকাল শুক্রবার মেহেরপুরের ১০টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্রগুলো হলো- মেহেরপুর সরকারি কলেজ, মেহেরপুর সরকারি মহিলা কলেজ, মেহেরপুর সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, মেহেরপুর সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ছহি উদ্দীন ডিগ্রি কলেজ, মেহেরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় অ্যান্ড বিএম কলেজ, মেহেরপুর দারুল উলুম আহমাদিয়া মাদ্রাসা, কবি নজরুল শিক্ষা মঞ্জিল ও জিনিয়াস ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ।

মেহেরপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ভূপেন রঞ্জন রায় বলেছেন, পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে। ৬ হাজার ১১৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ হাজার ৭৪৮ জন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিলেন এবং ক্রুটিযুক্ত কারণে একজনের বাতিল করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা পরিচালনার লক্ষ্যে জেলা শহরের সবগুলো ফটোকপিয়ারের দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশনা ছিল। প্রবেশপত্র ছাড়া পরীক্ষা কেন্দ্রে কোনো পরীক্ষার্থী বই, খাতা, ক্যালকুলেটর, ইলেকট্রনিক ডিভাইস, ইলেকট্রনিক ঘড়ি, উত্তরপত্র, নোট বা কোনো কাগজ, ভ্যানেটি ব্যাগ, পার্স, মোবাইল ফোন বা কোনো ধরণের বস্তু নিয়ে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। কেন্দ্রের ১০০ গজের মধ্যে ১৪৪ ধারা জারি ছিল।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।