চুয়াডাঙ্গা বেগনগরে পূর্বাশা পরিবহনের ধাক্কায় শিশু জুবায়ের নিহত ॥ বিক্ষুব্ধ জনতার সড়ক অবরোধ ॥ দর্শনা ডিলাক্সসহ গাড়ি ভাংচুর চুয়াডাঙ্গা সদরের বেগনগর ঈদগাপাড়া মসজিদের সামনে রাস্তা পার হতে গিয়ে বিপত্তি দ্রুতগামী পূর্বাশা পরিবহনের ধাক্কায় স্কুলছাত্র নিহত : শোকের মাতম

342

IMG_20160919_224729 ঘটনাস্থল থেকে ফিরে আফজালুল হক: চুয়াডাঙ্গা সদরের বেগনগর ঈদগাহপাড়ায় পূর্বাশা পরিবহনের ধাক্কায় শিশু জুবায়ের (৮) নামের এক স্কুলছাত্র নিহত হয়েছে। গতকাল সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বেগনগর ঈদগাপাড়ার মসজিদের সামনে এ দূর্ঘটনা ঘটে। নিহত স্কুলছাত্র জুবায়ের চুয়াডাঙ্গা বেগনগর ঈদগাপাড়ার হুমায়ুন কবির বনফুলের একমাত্র ছেলে। নিহত জুবায়ের সুবদিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্র। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল সকালে জুবায়ের বাসার সামনে রাস্তাপার হতে গেলে চুয়াডাঙ্গা থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী পূর্বাশা পরিবহনের একটি গাড়ি দ্রুত গতিতে এসে শিশু জুবায়েরকে স্ব-জোরে ধাক্কা দিলে জুবায়ের ঘটনাস্থল থেকে দূরে ছিটকে পড়ে। এতে জুবায়ের মাথায় গুরুতর আঘাত পায়। স্থানীয়রা তাকে দ্রুত উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করলে জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা: মশিউর রহমান জুবায়েরকে প্রয়োজনীয় প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজে যাওয়ার পথে কুষ্টিয়ায় প্রবেশ মুখে বেলা ১.৩০ মিনিটের দিকে জুবায়ের মারা যায়। এ দিকে শিশু জুবায়েরের মৃত্যুর খবর  এলাকায় এসে পৌঁছালে উত্তেজিত জনতা প্রায় ২ ঘন্টা চুয়াডাঙ্গা-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতা দর্শনা ডিলাক্সসহ বেশ কিছু ট্রাক ও বাস ভাংচুর করে। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ তোজাম্মেল হক সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। এ দিকে শিশু জুবায়েরের মৃত্যুতে এলাকায় নেমে  এসেছে শোকের ছায়া। একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে মা ছায়রা খাতুন বার বার মূর্ছা যাচ্ছিলেন, আর চোখের জলে বুক ভাসিয়ে বলছিলেন, মাগো তোমাকে ছাড়া আমি ভাত খাব না, তুমি কোথায় মা? তার কান্নায় এলাকায় এক বেদনা বিধূর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।IMG_20160919_224654
এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ তোজাম্মেল হক বলেন পূর্বাশা পরিবহনের একটি গাড়ি চুয়াডাঙ্গা বেগননগর ঈদগা পাড়ার কাছে জুবায়ের নামক একটি ছেলেকে ধাক্কা দেয়। পরে উন্নত চিকিৎসার্থে রাজশাহী মেডিকেলে যাত্রা পথে সে মারা যায়। তবে এ বিষয়ে নিহতের পক্ষ থেকে এখনও কোন অভিযোগ করেননি।
এ ঘটনায় পূর্বাশা পরিবহনের ঘাতক বাসটি উত্তেজিত জনতা স্থানীয় একটি তেল পাম্পে ৪ ঘন্টা আটকে রাখে। পরে পদ্মবিলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের বিশ্বাসের হস্তক্ষেপে ঘাতক বাসটি ছেড়ে দেয়া হয়। দূর্ঘটনা কবলিত পূর্বাশা পরিবহনটির নাম্বার জানার জন্য কয়েক বার চুয়াডাঙ্গা পূর্বাশা পরিবহনের কাউন্টারে ০৭৬১-৬২৪৮৪ নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে কাউন্টার বা পুলিশের নিকট থেকে নম্বর সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি।